৭৪ তম স্বাধীনতা দিবসের প্রাককালে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল একটি সাদা-কালো ছবি। আর সেই ছবি ঘিরেই শুরু হয়েছে নেটিজেনদের মধ্যে তরজা। জওহরলাল নেহেরু আর মহাত্মা গান্ধীকে টেনে এনে বিতর্ক উসকে দিয়েছেন অনেকেই। কিন্তু ছবিটি কার? তা নিয়ে প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। 

একটি পক্ষের দাবি এই ছবিটি ভগৎ সিং-এর। তাঁকেই হাত-পা বেঁধে প্রকাশ্যে চাবুক মারছে ব্রিটিশ পুলিশ। ছবিটির ক্যাপসানে লেখা হয়েছে, এটি ভগৎ সিংএর ছবি। ছবিটি বিরল, এখানে তাঁকে চাবুক দিয়ে মারা হচ্ছে। আর আমাদের শেখান হয় নেহেরু আর গান্ধী আমাদের স্বাধীনতা দিয়েছে। কিন্তু আসল খবর হল অন্য। এটি শহিদ ভগৎ সিং-এর ছবি নয়।  


সমস্ত খোঁজ খবর নিয়ে জানা গেছে এই ছবিতে যে লোকটিকে দেখা গেছে তিনি কোনও স্বাধীনতা সংগ্রামী ছিলেন না। ১৯১৯ সালে কাসুর রেল স্টেশনে ছবিটি তোলা হয়েছিল। কাসুর বর্তমানে পাকিস্তানে। আর তথ্য বলছে ১৯১৯ সালে ভগৎ সিং-এর বয়স ছিল মাত্র ১২ বছর। তখন তিনি লাহোরের ডিএভি স্কুলের পড়ুয়া ছিলেন। আর ভগৎ সিং তখনও স্বাধীনতার আন্দোলনে যোগ দেননি। তাঁকে ব্রিটিশ সরকার প্রথম গ্রেফতার করেছিল ১৯২০ সালে। 

কোভ্যাক্সিন প্রথম দফার ফলাফলে নজর রাখুন, সেপ্টেম্বর থেকেই দ্বিতীয় পর্যায়ের মানবিক ট্রায়াল শুরু

গালওয়ান বা প্যাংগং নয়, মে মাস থেকে লাদাখে চিনের বিরুদ্ধে লড়ছে ভারতীয় সেনা...

একটি তথ্য বলছে এই ছবিটি ২০১৮ সালে কুইন মেরি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক কিম এ ওয়াগনার পোস্ট করেছিলেন। তিনি লিখেছিলেন পঞ্জাবের কাসুরের এক ব্যক্তিকে বেত্রাঘাত করার ছবি ভারতে পাঠান হয়েছিল। আর এই ছবিটি ছাপা হয়েছিল অমৃতসরমাস্যাক্রেতে। বেঞ্জামিনের লেখা বইতেও এই ছবিটির উল্লেখ রয়েছে। তাতে লেখা হয়েছে কাসুর রেলস্টেশনে মই দিয়ে বাঁধা ভারতীয়ের আরও একটি ছবি। সেখানেও ভগৎ সিং-এর নাম উল্লেখ করা হয়নি। 
লালগ্রহের ছবিতে কী রয়েছে, নাসার সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট ঘিরে কৌতূহল বাড়ছে নেটিজেনদের মধ্যে ..