২০২০ বিশ্বকাপ ও আগামী এশিয়া কাপের যোগ্যতা অর্জনের জন্য মাঠে নেমে পরেছে ভারতীয় দল।  ঘরের মাঠে ওমানের বিরুদ্ধে লড়াই করে হারের পর দোহায় গিয়ে এশিয়ান ট্যাম্পিয়ন কাতারের সঙ্গে গোলশুন্য ড্র করে এসেছে ভারতীয় দল। সুনীল-গুরপ্রীতরা যখন মাঠে লড়াই করছেন, তখন সুনীলদের ম্যাচ পাওয়ার লড়াই চলছে বিভিন্ন ভারতীয় স্টেডিয়ামের মধ্যে। আর এই লড়াইতে বড় সাফল্য পেল ওড়িশার কলিঙ্গ স্টেডিয়াম। ভুবনেশ্বরের এই মাঠেই হবে ভারত কাতার ম্যাচ। চলতি সপ্তাহেই দোহায় কাতারের বিরুদ্ধে অ্যাওয়ে ম্যাচ খেলে এসেছেন সন্দেশরা। এবার কাতার আসবে ভারতে খেলতে। সেই ম্যাচ হবে আগামী বছর মার্চে। কিন্তু  শুক্রবারই ফেডারেশন জানিয়ে দিল কোথায় হতে চলেছে এই হাই প্রোফাইল ম্যাচ। 

সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশনের এক কর্তা জানিয়েছেন, ‘ওড়িশা সরকারের সঙ্গে আমাদের কথা হয়েছে, তারা ভারত কাতার ম্যাচ আয়োজন করতে ইচ্ছুক। সব দিক দেখে ওড়িশাকেই এই ম্যাচ দেওয়া হল। কারণ কলিঙ্গ স্টেডিয়াম এই ম্যাচ আয়োজন করতে পারবে না, এমন কোনও কারণ আমরা দেখছি না।’  এবার ভারতীয় ফুটবলার মঞ্চে নতুন রাজ্য হিসেবে উঠে আসছে ওড়িশা। কারণ দিল্লি ডায়নামোজ নাম বদলে এবার ওড়িশা এফসি হয়ে আইএসএলের মঞ্চে নামতে চলেছে। কলিঙ্গ স্টেডিয়ামেই তাদের শিবির। কিন্তু মার্চে কিছুদিনের জন্য কলিঙ্গ স্টেডিয়াম ছাড়তে হবে তাদের, কারণ ভারত কাতার ম্যাচ। এছাড়াও ২০২০তে অনুর্ধ্ব ১৭ মহিলা বিশ্বকাপের প্রথম ভেনু হিসেবেও ছাড়পত্র পেয়েছে কলিঙ্গ স্টেডিয়াম। 

বিশ্বকাপের যোগ্যতা নির্নায়ক পর্বে সব দলই হোম ও অ্যাওয়ে ভিত্তিতে ম্যাচ খেলবে। ভারত ওমানের বিরুদ্ধে হোম ম্যাচ খেলেছে গুয়াহাটিতে। অক্টোবরে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে কলকাতার যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গনে খেলবে ব্লু টাইগার্সারা। কলকাতার ফুটবল প্রেমী জনতাকে মাঠ ভরিয়ে তোলার  আবেদন জানিয়েছেন ভারতীয় দলের অধিনায়ক সুনীল ও কোচ স্টিমাচ। এরপর কাতারের বিরুদ্ধে ঘরের মাঠের ম্যাচটি হতে চলেছে ভুবনেশ্বরে। কাতারের সঙ্গে ড্র করে এখন মাত্র এক পয়েন্ট সুনীলদের। কিন্তু দুই কঠিন দলের সঙ্গে খেলা হয়ে গেছে স্টিমাচের দলের। তাই বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে অনেকটা খোলা মনে মাঠে নামতে পারবে ভারতীয় দল।