সম্ভাবনা ছিল উজ্জ্বল কেরিয়ারের। ব্রাজিলের আরও এক কিংবদন্তী হওয়ার প্রতিভাও ছিল। কেরিয়ারের শুরুতে দেশ ও ক্লাব জার্সিতে সেই ঝলকও দেখা গিয়েছিল। কিন্তু উৎশৃঙ্খল জীবন যাপন সবকিছু শেষ করেদিল রবিনহোর। ধর্ষণের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হয়ে ৯ বছরের জেল হল ব্রাজিল তারকার। ২০১৩ সালে ইতালিতে একটি ধর্ষণের মামলায় নাম জড়িয়েছিল রবিনহোর। তাতেই দোষী সাব্যস্ত হল হলেন রবিনহো। তাকে ৯ বছরের সাজা শোনাল মিলানের একটি আদালত।

২০১৩ সালে সেই সময় ইতালির ক্লাব এসি মিলানে খেলতেন রবিনহো। সেই সময় বন্ধুদের সঙ্গে একটি নাইট ক্লাবে গিয়েছিলেনন ব্রাজিল তারকা। একই নাইট ক্লাবে নিজের জন্মদিনের পার্টি দিয়েছিলেন আলবেনীয় বংশোদ্ভূত এক যুবতী। তারপরই ক্রমে ওই মেয়েটির সঙ্গে পরিচয় হয় রবিনহো ও তার বন্ধুদের। তারপরই তাঁকে সবাই মিলে ধর্ষণ করেছিলেন বলে অভিযোক। আদালতে এমনটাই জানান ওই যুবতী। এই মামলায় ২০১৭ সালেই দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন রোবিনহো। তখনও আদালত রোবিনহোকে ৯ বছরের সাজা শুনিয়েছিল।

সেই রায়কেই চ্যালেঞ্জ জানিয়ে উচ্চ আদালতে আপিল করেন রবিনহো। সেই মামলাতেই মিলানের আদালত পূর্ববর্তী সাজাই বহাল রাখল। এর আগে ২০০৯ সালেও রোবিনহোর বিরুদ্ধে একবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছিল। তখন সাক্ষ্য প্রমাণের অভাবে তিনি জামিনে মুক্ত হলেও এবার তাঁকে জেলে যেতেই হবে। ই মামলার কারণেই গত অক্টোবরে তাঁর সঙ্গে চুক্তি করার পরও সেটি ভেঙে দিয়েছে ব্রাজিলিয়ান ক্লাব স্যান্টোস। ধর্ষণে অভিযুক্ত প্লেয়ারের সঙ্গে ঐতিহাসিক ক্লাব কোনও চুক্তি রাখবে না বলেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রবিনহোর সমালোচনায় সরব হয়েছে ব্রাজিলের ফুটবল মহলও।