কাল ভারতীয় সময় অনুযায়ী রাত দেড়টায় চ্যাম্পিয়ন্স লিগের দ্বিতীয় পর্বের খেলায় মুখোমুখি হয়েছিল দুই ইউরোপীয় মহাশক্তি। ইতালিয়ান জায়ান্ট জুভেন্তাসের মুখোমুখি হয়েছিল স্প্যানিশ দৈত্য বার্সেলোনা। সাম্প্রতিক ফর্মের বিচারে দুটি দলই খুব একটা ভালো জায়গায় ছিল না। জুভেন্তাসের প্রধান তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো করোনা সংক্রমণের শিকার হয়ে অক্টোবর মাসে একদিনও মাঠে নামতে পারেননি। তাকে ছাড়া লিগের শেষ দুটি খেলায় নিজেদের চেয়ে দুর্বল প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ড্র করে পয়েন্ট খুইয়েছিল জুভেন্তাস। অপরদিকে লা লিগায় টানা তিন ম্যাচে জয় অধরা ছিল মেসিদের। শেষ ম্যাচে হারতে হয়েছিল চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদের কাছে। তবে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে জয় পেয়েছিল দুই পক্ষই। 

দুই দলই আক্রমণাত্মক ভঙ্গিতে শুরু করে। তবে গোলের কাছাকাছি গিয়েও গোল পেতে ব্যর্থ হয় বার্সা। ফরাসি তারকা আন্তোনিও গ্রিয়েজম্যানের শট পোস্টে লাগে। মেসির শট অল্পের জন্য বাইরে যায়। এইসবের মধ্যেই মেসির অসাধারণ বাড়ানো বল ধরে বক্সের বাইরে থেকেই শট নেন ফ্রেঞ্চ উইঙ্গার ডেমবেলে। এক জুভে ডিফেন্ডারের শরীরে লেগে সেই বল নিরুপায় জুভে গোলরক্ষক সেজনিকে দাঁড় করিয়ে রেখে গোলে ঢোকে। প্রথমার্ধ শেষ হয় ০-১ ফলেই। দ্বিতীয়ার্ধে একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করে বার্সা। দুর্দান্ত ফুটবল খেলেন বার্সেলোনার তরুণ, ১৭ বছর বয়সী ফুটবলার পেদ্রি। এরমধ্যেই মেসিকে ফাউল করে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন জুভেন্তাসের তুরস্কের ডিফেন্ডার, ডেমরিয়াল। এরপর ম্যাচের শেষ দিকে পরিবর্ত হিসাবে নামা তরুণ বার্সা ফুটবলার আনসু ফাতিকে আটকাতে গিয়ে বক্সের ভেতর ফাউল করে বসেন জুভেন্তাসের বেরনারদেশচি। পেনাল্টি থেকে চলতি মরশুমে চ্যাম্পিয়ন্স লিগে নিজের দ্বিতীয় গোলটি তুলে নেন মেসি। 

ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো হীন জুভেন্তাসকে ম্যাচ গড়ানোর সাথে সাথে অসহায় দেখিয়েছে। রোনাল্ডোর অনুপস্থিতিতে দাগ কাটতে ব্যর্থ মোরাতা-দিবালা জুটি। গোটা ম্যাচে একবারও বিপজ্জনক হয়ে উঠতে পারেননি আর্জেন্টাইন তারকা দিবালা। আর স্প্যানিশ স্ট্রাইকার মোরাতা তিনবার গোলে বল ঢোকালেও তিনবারই তা অফসাইডের কারণে বাতিল হয়। ফুটবল মাঠে এমন ঘটনা শেষবার কবে ঘটেছে তা মনে করতে পারছেন না কেউই। ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো কবে ফিরবেন জানা নেই। সেই সময়টুকু জয়ের সরণিতে দলকে ফেরাতে না পারলে সমস্যায় পড়বেন জুভে ম্যানেজার আন্দ্রেয়া পিরলো।