২০২০ তে আগুন ফর্ম দেখাচ্ছে মোহনবাগান। প্রতিটি পারফরম্যান্সের সঙ্গে সকলের মনে তাদের আই লিগ জয়ের ধারণা বদ্ধমূল হয়ে যাচ্ছে। প্রতিটি ম্যাচে কোচের বানানো স্ট্র্যাটেজির অক্ষরে অক্ষরে প্রতিফলন দেখা যাচ্ছে। নির্ভুল ফুটবল খেলছে বেইতিয়া, নাওরেম রা। গোলকিপার থেকে স্ট্রাইকার সকলেই রয়েছে দুর্দান্ত ছন্দে। আত্মবিশ্বাস ঠিকরে পড়ছে প্রত্যেক খেলোয়াড়ের শরীরী ভাষা থেকে। ফলস্বরূপ লিগের প্রায় মাঝপথে থাকা অবস্থাতেই লিগ প্রায় নিজেদের পকেটস্থ করে ফেলেছেন তারা। আই লিগে এখনও তাদের খেলতে হবে আট ম্যাচ। তার মধ্যে একটি ডার্বিও আছে। কিন্তু এই মুহুর্তে মোহনবাগান যে ফর্মে আছে তাতে আই লিগের কোনও ক্লাবের পক্ষেই তাদেরকে হারানো সম্ভব নয় বলে মনে করা হচ্ছে। 

শুক্রবার লিগ টেবিলে নিচের দিক থেকে থাকা নেরকা এফ সি কে ৬-২ ফলে উড়িয়ে দিয়েছে মোহনবাগান। হ্যাটট্রিক করেছেন ফ্রান গঞ্জালেজ। একটি করে গোল করেন ফ্রান মোরান্তে, বাবা দিওয়ারা এবং জেসুইরাজ। এই ম্যাচের পর ১২ ম্যাচ থেকে ২৯ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলশীর্ষে নিজেদের অবস্থান মজবুত করলো বাগান। সবুজ-মেরুণ ব্রিগেডের সবচেয়ে কাছে থাকা পাঞ্জাবও রয়েছে তাদের থেকে অনেক পয়েন্ট পিছিয়ে। ১২ ম্যাচে ১৮ পয়েন্ট নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে পাঞ্জাব। 

এখনও অবধি আই লিগে মাত্র একটি ম্যাচ হেরেছে মোহনবাগান। তাও গতবছর চার্চিল ব্রাদার্সের বিরুদ্ধে তাদের ঘরের মাঠে। ২০২০ তে এখনো ৮ টি ম্যাচ খেলেছে মোহনবাগান। তার মধ্যে ৭ টি তেই জিতেছে তারা। বাকি একটি ম্যাচে দ্বিতীয় স্থানে থাকা পাঞ্জাবের সাথে ড্র করেছে তারা। সময় পরিবর্তিত হওয়া ডার্বিটিও দাপট দেখিয়ে জিতেছে তারা। চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইস্টবেঙ্গল কে ২-১ গোলে হারায় সবুজ-মেরুণ ব্রিগেড। এই মুহুর্তে ১১ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে লিগ টেবিলের নবম স্থানে ধুঁকছে লাল-হলুদ ব্রিগেড। প্রতিপক্ষের এই অবস্থায় নিজেদের ক্লাবের দুর্ধর্ষ ফর্মে থাকাটা তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছে সবুজ-মেরুণ সমর্থকরা। 

যদিও মোহনবাগান কোচ তার খেলোয়াড়দের সতর্ক থাকতে বলছেন। লিগ জয় নিশ্চিত করতে গেলে এখনো কমপক্ষে ৪টি ম্যাচ জিততে হবে মোহনবাগানকে। যতক্ষণ না তা হচ্ছে ততক্ষণ ফুটবলারদের মধ্যে আত্মতুষ্টি দানা বাঁধতে দিচ্ছেন না স্প্যানিশ কোচ। এই মরশুমে প্রত্যেক খেলোয়াড় রয়েছেন চূড়ান্ত ফর্মে। বেইতিয়া, গঞ্জালেজ, মোরান্তে, দিওয়ারা দের মতো বিদেশি দের সাথে সাথে নাওরেম, জেসুইরাজ, শুভ ঘোষের মতো দেশীয় ফুটবলার রাও আছেন চূড়ান্ত ফর্মে। তাই কোচ যতই সাবধান বাণী শোনান না কেন, সমর্থকরা আই লিগ ট্রফি দেখতে পাচ্ছেন এখন থেকেই।