অবশেষে মুক্তি। দীর্ঘ ৫ মাস পর ব্রাজিলে ফিরলেন বিশ্বকাপ জয়ী তারকা ফুটবলার রোনাল্ডিনহো। ভুঁয়ো পাসপোর্ট ও কাগজপত্র বানিয়ে প্যারাগুয়ে যাওয়ার অপরাধে রোনাল্ডিনহো ও তার বাইকে গ্রেফতার করে পুলিস। ৬ মার্চ একটি চ্যারিটি ইভেন্টে যোগ দেওয়ার জন্য প্যারাগুয়ে গিয়েছিলেন রোনাল্ডিনহো এবং তাঁর ভাই রবের্তো। সেখানেই হোটেলের রুম থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। রোনাল্ডিনহোর পাসপোর্টে তাঁর নাম, জন্মস্থান ও জন্ম তারিখ ঠিকঠাক থাকলেও তাঁর নাগরিকত্ব লেখা ছিল প্যারাগুয়ের। হোটেলের ঘরে তল্লাশি চালিয়েই নাকি পুলিশ জাল পাসপোর্ট-সহ বেশ কিছু ভুয়ো নথিপত্র পায়।

গ্রেফতার হওয়ার পর ৩২ দিন জেলে কাটান রোনাল্ডিনহো। জেলেও বন্দিদের সকার টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে দুরন্ত খেলেছিলেন রোনাল্ডিনহো। কারাগেরই নিজের ৪০ তম জন্মদিনও পালন করেছিলেন প্রাক্তন বার্সা তারকা। প্রথম দিকে আদাল তার জামিন নাকোচ করে দিলেও, গত এপ্রিলে ১৬ লক্ষ মার্কিন ডলার জরিমানা দিয়ে শর্তসাপেক্ষে তাঁদের জামিন মঞ্জুর করা হয়েছিল রোনাল্ডিনহো ও তার ভাইয়ের। তবে আদালতের তরফে নির্দেশ ছিল তারা কেউ কোনওভাবেই প্যারাগুয়ের বাইরে যেতে পারবে না। ফলে জামিনে মুক্তি পেয়েও প্যারাগুয়ের একটি চারতারা হোটেলে গৃহবন্দি থাকতে হয় তাদের। প্রায় সাড়ে চার মাস গৃহবন্দি অবস্থায় প্যারাগুয়েতে ছিলেন বিশ্বকাপজয়ী ব্রাজিলীয় কিংবদন্তি রোনাল্ডিনহো।

অবশেষে আদালত তাদের দেশে ফেরার অনুমতি দেয়। গৃহবন্দি দশা থেকে মুক্তি পাওয়ার পর মঙ্গলবার সকালেই ব্যক্তিগত বিমানে রিও দি জেনেইরোর উদ্দেশে রওনা দেন প্রাক্তন বার্সেলোনা তারকা। বিচারপতি জানিয়ে দেন, স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজের জন্য রোনাল্ডিনহোকে ৯০ হাজার মার্কিন ডলার ব্যয় করতে হবে। তবে দেশে ফিরলেও আগামী ২৪ মাস ব্রাজিল ছেড়ে কোথাও যেতে পারবেন না রবের্তো। এই সময়ের মধ্যে নিয়মিত রিও ডি জেনেরিওতে হাজিরা দিতে হবে তাঁকে। যদিও পুরোপুরি দায়মুক্ত রোনাল্ডিনহো। তবে দীর্ঘ দিন ঘরের ছেলে ঘরে ফেরায় স্বস্তিতে ব্রাজিলের ফুচবল প্রেমিরা। একইসঙ্গে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলেছেন বিশ্ব জুড়ে রোনাল্ডিনহো ভক্তরা।