কেমন যাবে ১৪২৬ সাল - সারা বছরের লগ্নফল কী বলছে

First Published 29, Apr 2019, 3:59 PM IST

মহা ধূমধামে নতুন বাংলা বছরকে বরণ করে নিয়েছে বাঙালী। প্রভাতফেরি, খাওয়া-দাওয়া, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান তো ছিলই, অনেক ব্যবসায়ীকে নতুন বছরে হালখাতাও করেছেন। বন্ধু-বান্ধব চেনা পরিচিতরা একে অপরকে নতুন বছরের শুভকামনা জানিয়েছেন। তবে বছরের শুরুতে প্রত্যেকেরই চিন্তা থাকে নতুন বছরটা কেমন যাবে, তাই নিয়ে। এক নজরে দেখে নেওয়া যাক লগ্নফল অনুযায়ী বিভিন্ন লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য কেমন হতে চলেছে বাংলা সন ১৪২৬।

 

মেষ লগ্ন: বছরের শুরু ও শেষটা আর্থিক দিক থেকে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য বেশ ভালো গেলেও পেট, পাকস্থলী ও কোষ্ঠবদ্ধতা ভোগাতে পারে। তবে অগ্রহায়ণ মাসের পর অবস্থার উন্নতির সম্ভাবনা রয়েছে। গ্রহের উপর শনির দৃষ্টি থাকায় গৃহে অশান্তি হতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে ধনাগম হলেও ব্যয়যোগও রয়েছে। পৌষমাসের পর উন্নতি হবে চাকুরিক্ষেত্রে। ময়ের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।   প্রতিকার - তারা কবচ ও বগলামুখী কবচ ধারণ।

মেষ লগ্ন: বছরের শুরু ও শেষটা আর্থিক দিক থেকে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য বেশ ভালো গেলেও পেট, পাকস্থলী ও কোষ্ঠবদ্ধতা ভোগাতে পারে। তবে অগ্রহায়ণ মাসের পর অবস্থার উন্নতির সম্ভাবনা রয়েছে। গ্রহের উপর শনির দৃষ্টি থাকায় গৃহে অশান্তি হতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে ধনাগম হলেও ব্যয়যোগও রয়েছে। পৌষমাসের পর উন্নতি হবে চাকুরিক্ষেত্রে। ময়ের স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। প্রতিকার - তারা কবচ ও বগলামুখী কবচ ধারণ।

বৃষ লগ্ন: বছরটি ভালোই যেতে চলেছে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য। আয়বৃদ্ধি, চাকরিতে উন্নতি, নতুন যান-বাহন লাভ, গৃহসংস্কার ও বিশেষ ক্ষেত্রে গৃহলাভ, ব্যবসাক্ষেত্রে ধনলাভ, ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ায় উন্নতির সম্ভাবনা রয়েছে। শত্রুরা সক্রিয় হলেও অনিষ্ট করতে পারবে না। মাঝে মাঝে পেটের রোগ ভোগাতে পারে। মায়ের শরীর ভালো থাকলেও বাবার শরীর খারাপ হতে পারে। বিবাহ যোগ প্রবল, বিদেশ ভ্রমণের যোগও রয়েছে।   প্রতিকার: দক্ষিণকালী কবচ ধারণে শুভফল বৃদ্ধি পাবে ও ছিন্নমস্তা কবচ ধারণে বিশেষ উপকার হবে।

বৃষ লগ্ন: বছরটি ভালোই যেতে চলেছে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য। আয়বৃদ্ধি, চাকরিতে উন্নতি, নতুন যান-বাহন লাভ, গৃহসংস্কার ও বিশেষ ক্ষেত্রে গৃহলাভ, ব্যবসাক্ষেত্রে ধনলাভ, ছেলে মেয়েদের লেখাপড়ায় উন্নতির সম্ভাবনা রয়েছে। শত্রুরা সক্রিয় হলেও অনিষ্ট করতে পারবে না। মাঝে মাঝে পেটের রোগ ভোগাতে পারে। মায়ের শরীর ভালো থাকলেও বাবার শরীর খারাপ হতে পারে। বিবাহ যোগ প্রবল, বিদেশ ভ্রমণের যোগও রয়েছে। প্রতিকার: দক্ষিণকালী কবচ ধারণে শুভফল বৃদ্ধি পাবে ও ছিন্নমস্তা কবচ ধারণে বিশেষ উপকার হবে।

মিথুন লগ্ন: মিশ্রফল পাওয়ার সম্ভাবনা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। একদিকে কর্মক্ষেত্রে কদর বৃদ্ধি, নতুন ভালো চাকরি লাভ ও আয়বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। আবার একইসঙ্গে আয়ের ধারাবাহিকতাও থাকবে না। ব্যবসায়ীদের সতর্ক থাকতে হবে, ঝুঁকি এড়িয়ে চলাই ভালো। পরমাত্মীয়রা শত্রু হয়ে উঠতে পারে। সন্তানদের নিয়ে চিন্তা না থাকলেও বাবা-মায়ের স্বাস্থ্য ভালো-মন্দ মিশিয়ে যাবে। স্ত্রীর শরীর খারাপ হতে পারে। নিজের শরীর ভালো থাকলেও অতিরিক্ত চিন্তা অসুস্থতার কারণ হতে পারে।   প্রতিকার: দক্ষিণকালী ও ধূমাবতী কবচ।

মিথুন লগ্ন: মিশ্রফল পাওয়ার সম্ভাবনা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। একদিকে কর্মক্ষেত্রে কদর বৃদ্ধি, নতুন ভালো চাকরি লাভ ও আয়বৃদ্ধির সম্ভাবনা রয়েছে। আবার একইসঙ্গে আয়ের ধারাবাহিকতাও থাকবে না। ব্যবসায়ীদের সতর্ক থাকতে হবে, ঝুঁকি এড়িয়ে চলাই ভালো। পরমাত্মীয়রা শত্রু হয়ে উঠতে পারে। সন্তানদের নিয়ে চিন্তা না থাকলেও বাবা-মায়ের স্বাস্থ্য ভালো-মন্দ মিশিয়ে যাবে। স্ত্রীর শরীর খারাপ হতে পারে। নিজের শরীর ভালো থাকলেও অতিরিক্ত চিন্তা অসুস্থতার কারণ হতে পারে। প্রতিকার: দক্ষিণকালী ও ধূমাবতী কবচ।

কর্কট লগ্ন: বছরটা ভালোই যাবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। প্রচুর আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে একইসঙ্গে ব্যয়যোগ থাকায় সঞ্চয় বিশেষ হবে না। চাকুরিক্ষেত্রে পদোন্নতি ও ব্যবসাক্ষেত্রে প্রচুর অর্থাগম হবে। তবে তার জন্য পরিশ্রম করতে হবে ব্যবসায়ীদের। নিজের ও বাবা-মায়ের শরীর-স্বাস্থ্য ভালোই থাকবে। সন্তানরা মুখ উজ্জ্বল করতে পারে। গৃহলাভের যোগও রয়েছে। তবে শত্রুরা সারাবছরই সক্রিয় থাকায় গৃহ-শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে।   প্রতিকার: তারা কবচ বা পীত পোখরাজ এবং কমলা কবচ বা বার্মিজ মুক্তো।

কর্কট লগ্ন: বছরটা ভালোই যাবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। প্রচুর আয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে একইসঙ্গে ব্যয়যোগ থাকায় সঞ্চয় বিশেষ হবে না। চাকুরিক্ষেত্রে পদোন্নতি ও ব্যবসাক্ষেত্রে প্রচুর অর্থাগম হবে। তবে তার জন্য পরিশ্রম করতে হবে ব্যবসায়ীদের। নিজের ও বাবা-মায়ের শরীর-স্বাস্থ্য ভালোই থাকবে। সন্তানরা মুখ উজ্জ্বল করতে পারে। গৃহলাভের যোগও রয়েছে। তবে শত্রুরা সারাবছরই সক্রিয় থাকায় গৃহ-শান্তি বিঘ্নিত হতে পারে। প্রতিকার: তারা কবচ বা পীত পোখরাজ এবং কমলা কবচ বা বার্মিজ মুক্তো।

সিংহ লগ্ন: এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদেরও এই বছরটি ভালো-মন্দ মিশিয়ে কাটবে। ব্যবসায়ীদের বিশেষ করে হোটেল ব্যবসায়ীদের অর্থলাভ ও চাকুরিজীবীদের পদোন্নতির যোগ রয়েছে। মিলিটারি সার্ভিস ও পুলিশে চাকরী প্রার্থীদের জন্য ভালো খবর আসতে পারে। তবে পেটের রোগ ভোগাতে পারে। বাবা-মায়ের স্বাস্থ্য ভালো থাকলেও সন্তানদের শরীর ভালো নাও থাকতে পারে। কিন্তু, তাদের পড়াশোনায় উন্নতি হবে। বিবাহ ও সন্তানলাভের সম্ভাবনা প্রবল।   প্রতিকার: পান্না বা ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং দক্ষিণকালী কবচ

সিংহ লগ্ন: এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদেরও এই বছরটি ভালো-মন্দ মিশিয়ে কাটবে। ব্যবসায়ীদের বিশেষ করে হোটেল ব্যবসায়ীদের অর্থলাভ ও চাকুরিজীবীদের পদোন্নতির যোগ রয়েছে। মিলিটারি সার্ভিস ও পুলিশে চাকরী প্রার্থীদের জন্য ভালো খবর আসতে পারে। তবে পেটের রোগ ভোগাতে পারে। বাবা-মায়ের স্বাস্থ্য ভালো থাকলেও সন্তানদের শরীর ভালো নাও থাকতে পারে। কিন্তু, তাদের পড়াশোনায় উন্নতি হবে। বিবাহ ও সন্তানলাভের সম্ভাবনা প্রবল। প্রতিকার: পান্না বা ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং দক্ষিণকালী কবচ

কন্যা লগ্ন: শারীরিক কিছু সমস্যা ছাড়া বছরটা ভালোই যাবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। কর্মস্থলে অস্থিরতা দেখা দিলেও নিজের দক্ষতাতেই তা কেটে যাবে। ব্যবসায় ধনলাভ ও অর্থসঞ্চয় দুইই হবে। বাবার শরীর ভালো গেলেও মায়ের শরীর খারাপ হতে পারে। বিবাহ যোগ ও স্বামী বা স্ত্রীর দ্বারা সম্পত্তি লাভের সম্ভাবনা রয়েছে। সম্পত্তি নিয়ে মামলা আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। সন্তানদের অবাধ্যতাও মনোকষ্টের কারণ হতে পারে।   প্রতিকার: দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ

কন্যা লগ্ন: শারীরিক কিছু সমস্যা ছাড়া বছরটা ভালোই যাবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। কর্মস্থলে অস্থিরতা দেখা দিলেও নিজের দক্ষতাতেই তা কেটে যাবে। ব্যবসায় ধনলাভ ও অর্থসঞ্চয় দুইই হবে। বাবার শরীর ভালো গেলেও মায়ের শরীর খারাপ হতে পারে। বিবাহ যোগ ও স্বামী বা স্ত্রীর দ্বারা সম্পত্তি লাভের সম্ভাবনা রয়েছে। সম্পত্তি নিয়ে মামলা আদালত পর্যন্ত গড়াতে পারে। সন্তানদের অবাধ্যতাও মনোকষ্টের কারণ হতে পারে। প্রতিকার: দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ

তুলা লগ্ন: বছরটা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য দারুণ হতে চলেছে। রোজগারের পাশাপাশি নাম-যশও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। চাকরিতে পদোন্নতি, বিশেষ ক্ষেত্রে বিদেশে চাকরি লাভ হতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে বাধা আসলেও প্রচুর উপার্জন হবে। নতুন বাহনলাভের যোগ রয়েছে। তবে দুর্ঘটনা ও চোট-আঘাত থেকে সাবধান থাকতে হবে। শত্রুরা সক্রিয় থেকেও ক্ষতিসাধন করতে পারবে না। সন্তানদের পরীক্ষায় ভালো ফলের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে মাঝে মাঝে বৃদ্ধিবিভ্রম হতে পারে। যার জন্য গৃহে শান্তি থাকলেও ভাই-বোনদের মতবিরোধ চুড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছতে পারে।   প্রতিকার: ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং সিংহলি গোমেদ

তুলা লগ্ন: বছরটা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের জন্য দারুণ হতে চলেছে। রোজগারের পাশাপাশি নাম-যশও বাড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। চাকরিতে পদোন্নতি, বিশেষ ক্ষেত্রে বিদেশে চাকরি লাভ হতে পারে। ব্যবসাক্ষেত্রে বাধা আসলেও প্রচুর উপার্জন হবে। নতুন বাহনলাভের যোগ রয়েছে। তবে দুর্ঘটনা ও চোট-আঘাত থেকে সাবধান থাকতে হবে। শত্রুরা সক্রিয় থেকেও ক্ষতিসাধন করতে পারবে না। সন্তানদের পরীক্ষায় ভালো ফলের সম্ভাবনা রয়েছে। তবে মাঝে মাঝে বৃদ্ধিবিভ্রম হতে পারে। যার জন্য গৃহে শান্তি থাকলেও ভাই-বোনদের মতবিরোধ চুড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছতে পারে। প্রতিকার: ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং সিংহলি গোমেদ

বৃশ্চিক লগ্ন: বছরটা বলা যেতে পরে মোটামুটি কাটবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। চাকরিতে পদোন্নতি হবে ও বেকাররা চাকরি পাবেন। ব্যবসা খুব একটা ভালো না গেলেও বকেয়া অর্থ লাভ হবে। অর্শ, ফিসচুলা ভোগাতে পারে। স্বামী বা স্ত্রীয়ের শরীর মাঝে মধ্য়ে খারাপ হতে পারে। সন্তান বিশেষ করে কন্যা সন্তান লাভ এবং গৃহলাভের যোগ রয়েছে। রয়েছে গৃহে শুভ অনুষ্ঠানের যোগও।  সন্তানদের পরীক্ষা ভালো হবে।   প্রতিকার: মা ছিন্নমস্তা কবচ ও ইতালিয় রক্তমুখি প্রবাল

বৃশ্চিক লগ্ন: বছরটা বলা যেতে পরে মোটামুটি কাটবে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। চাকরিতে পদোন্নতি হবে ও বেকাররা চাকরি পাবেন। ব্যবসা খুব একটা ভালো না গেলেও বকেয়া অর্থ লাভ হবে। অর্শ, ফিসচুলা ভোগাতে পারে। স্বামী বা স্ত্রীয়ের শরীর মাঝে মধ্য়ে খারাপ হতে পারে। সন্তান বিশেষ করে কন্যা সন্তান লাভ এবং গৃহলাভের যোগ রয়েছে। রয়েছে গৃহে শুভ অনুষ্ঠানের যোগও। সন্তানদের পরীক্ষা ভালো হবে। প্রতিকার: মা ছিন্নমস্তা কবচ ও ইতালিয় রক্তমুখি প্রবাল

ধনু লগ্ন: এই বছর এই লগ্নে পাপগ্রহ কেতু ও শনির অবস্থানের কারণে বছরটা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের ভালো কাটবে না। বারবার শরীর খারাপ হতে পারে। তবে বাবা-মায়ের শরীর স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। স্ত্রীর স্বাস্থ্য নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। চাকরিক্ষেত্রে উন্নতি না হলেও খুব একটা খারাপ যাবে না। ব্যবসায়ীদের সঞ্চয় হবে না, অর্থপ্রাপ্তিতেও বিলম্ব হতে পারে। দূর ভ্রমণ ও গৃহসংস্কারের যোগ রয়েছে। শত্রু সংখ্যা বাড়বে, বন্ধুরাও শত্রু হয়ে উঠতে পারে। সন্তানরা অবাধ্য হবে।    প্রতিকার: দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ ধারণে অশুভ ফল অনেকটাই কাটানো যেতে পারে।

ধনু লগ্ন: এই বছর এই লগ্নে পাপগ্রহ কেতু ও শনির অবস্থানের কারণে বছরটা এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের ভালো কাটবে না। বারবার শরীর খারাপ হতে পারে। তবে বাবা-মায়ের শরীর স্বাস্থ্য ভালো থাকবে। স্ত্রীর স্বাস্থ্য নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। চাকরিক্ষেত্রে উন্নতি না হলেও খুব একটা খারাপ যাবে না। ব্যবসায়ীদের সঞ্চয় হবে না, অর্থপ্রাপ্তিতেও বিলম্ব হতে পারে। দূর ভ্রমণ ও গৃহসংস্কারের যোগ রয়েছে। শত্রু সংখ্যা বাড়বে, বন্ধুরাও শত্রু হয়ে উঠতে পারে। সন্তানরা অবাধ্য হবে। প্রতিকার: দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ ধারণে অশুভ ফল অনেকটাই কাটানো যেতে পারে।

মকর লগ্ন: এই লগ্নের জাত-জাতিকাদের এই বছরের লগ্নফল বেশ ভালো। উপার্জনের পাশাপাশি ব্যয়ও বাড়বে। নতুন চাকরির সম্ভাবনা রয়েছে। ব্যবসায় কখনও দারুণ উন্নতি হবে, আবার কখনও মন্দা যাবে। শরীর-স্বাস্থ্য ভালো থাকলেও পায়ের রোগ বা পায়ে আঘাত থেকে সতর্ক থাকতে হবে। মা-বাবার স্বাস্থ্য মোটামুটি ভালোই গেলেও সন্তানরা মাঝে মধ্যে অসুস্থ হতে পারে। সম্পত্তি লাভ এবং লটারিতে অর্থাগমের যোগ আছে। দীক্ষা নেওয়ার জন্য এই বছরটা ভালো সময়। শত্রুরা প্রবল সক্রিয় হলেও শেষ পর্যন্ত কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। পরিবারে শান্তি ও ভাই-বোনদের মধ্যে সদ্ভাব বজায় থাকবে।   প্রতিকার: ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং বার্মিজ মুক্তো ধারণে শুভ যোগ আরও বৃদ্ধি পাবে।

মকর লগ্ন: এই লগ্নের জাত-জাতিকাদের এই বছরের লগ্নফল বেশ ভালো। উপার্জনের পাশাপাশি ব্যয়ও বাড়বে। নতুন চাকরির সম্ভাবনা রয়েছে। ব্যবসায় কখনও দারুণ উন্নতি হবে, আবার কখনও মন্দা যাবে। শরীর-স্বাস্থ্য ভালো থাকলেও পায়ের রোগ বা পায়ে আঘাত থেকে সতর্ক থাকতে হবে। মা-বাবার স্বাস্থ্য মোটামুটি ভালোই গেলেও সন্তানরা মাঝে মধ্যে অসুস্থ হতে পারে। সম্পত্তি লাভ এবং লটারিতে অর্থাগমের যোগ আছে। দীক্ষা নেওয়ার জন্য এই বছরটা ভালো সময়। শত্রুরা প্রবল সক্রিয় হলেও শেষ পর্যন্ত কোনও ক্ষতি করতে পারবে না। পরিবারে শান্তি ও ভাই-বোনদের মধ্যে সদ্ভাব বজায় থাকবে। প্রতিকার: ত্রিপুরাসুন্দরী কবচ এবং বার্মিজ মুক্তো ধারণে শুভ যোগ আরও বৃদ্ধি পাবে।

কুম্ভ লগ্ন: স্বাস্থ্য ভালো, প্রচুর অর্থ উপার্জন, কর্মক্ষেত্রে উন্নতি, ব্যবসায় প্রচুর লাভ, দূর ভ্রমণ যোগ, যানবাহন লাভ, প্রবল বিবাহ যোগ, শত্রুরা সব পরাস্ত  - এই বছরটা অত্যন্ত ভালো কাটতে চলেছে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। তবে একটি ক্ষেত্রই চিন্তার কারণ হতে পারে, তা হল সন্তান। তাদের বিরুদ্ধাচারণ, অবাধ্যতা, অনৈতিকতা মনোকষ্টের কারণ হতে পারে। বাবার শরীর ভালো থাকলেও মায়ের শরীর খারাপ হতে পারে। গৃহশান্তিও মাঝে মাঝে বিঘ্নিত হতে পারে।   প্রতিকার: মা ছিন্নমস্তা কবচ ধারণ করলে সন্তানদের সঠিক পথে নিয়ে আসা যাবে।

কুম্ভ লগ্ন: স্বাস্থ্য ভালো, প্রচুর অর্থ উপার্জন, কর্মক্ষেত্রে উন্নতি, ব্যবসায় প্রচুর লাভ, দূর ভ্রমণ যোগ, যানবাহন লাভ, প্রবল বিবাহ যোগ, শত্রুরা সব পরাস্ত - এই বছরটা অত্যন্ত ভালো কাটতে চলেছে এই লগ্নের জাতক-জাতিকাদের। তবে একটি ক্ষেত্রই চিন্তার কারণ হতে পারে, তা হল সন্তান। তাদের বিরুদ্ধাচারণ, অবাধ্যতা, অনৈতিকতা মনোকষ্টের কারণ হতে পারে। বাবার শরীর ভালো থাকলেও মায়ের শরীর খারাপ হতে পারে। গৃহশান্তিও মাঝে মাঝে বিঘ্নিত হতে পারে। প্রতিকার: মা ছিন্নমস্তা কবচ ধারণ করলে সন্তানদের সঠিক পথে নিয়ে আসা যাবে।

মীন লগ্ন: শুভ-অশুভ যোগ মিলিয়ে মিশিয়ে বছরটা কাটবে মীন লগ্ন জাতক-জাতিকাদের। স্বাস্থ্য ভালো যাবে, বিবাহ যোগ প্রবল, গৃহসংস্কার ও যানবাহন লাভের যোগ রয়েছে, শত্রুরা দুর্বল হবে, ভ্রমণের সম্ভাবনাও উজ্জ্বল। কিন্তু অশুভ যোগ রয়েছে কর্মক্ষেত্রে। ঈর্ষাপরায়ণ সহকর্মীদের বিরুদ্ধাচারণের কারণে নানান অসুবিধার সৃষ্টি হতে পারে। বাবা ও স্ত্রীর স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তার কারণ না থাকলেও মা ও ভাই-বোনদের স্বাস্থ্য মাঝে মধ্যে খারাপ হতে পারে।   প্রতিকার: আবেগ সংবরণ করে বাস্তবতাকে মেনে পদক্ষেপ করতে হবে। সেই সঙ্গে দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ ধারণে অশুভ দিকগুলি অনেকাংশে কম হবে।

মীন লগ্ন: শুভ-অশুভ যোগ মিলিয়ে মিশিয়ে বছরটা কাটবে মীন লগ্ন জাতক-জাতিকাদের। স্বাস্থ্য ভালো যাবে, বিবাহ যোগ প্রবল, গৃহসংস্কার ও যানবাহন লাভের যোগ রয়েছে, শত্রুরা দুর্বল হবে, ভ্রমণের সম্ভাবনাও উজ্জ্বল। কিন্তু অশুভ যোগ রয়েছে কর্মক্ষেত্রে। ঈর্ষাপরায়ণ সহকর্মীদের বিরুদ্ধাচারণের কারণে নানান অসুবিধার সৃষ্টি হতে পারে। বাবা ও স্ত্রীর স্বাস্থ্য নিয়ে চিন্তার কারণ না থাকলেও মা ও ভাই-বোনদের স্বাস্থ্য মাঝে মধ্যে খারাপ হতে পারে। প্রতিকার: আবেগ সংবরণ করে বাস্তবতাকে মেনে পদক্ষেপ করতে হবে। সেই সঙ্গে দক্ষিণকালী এবং ধূমাবতী কবচ ধারণে অশুভ দিকগুলি অনেকাংশে কম হবে।

loader