দশ কোটির লোভ সামলাতে পারেননি ঐশ্বর্য, গোপনে বচ্চন বধূর কাণ্ড ঘিরে বি-টাউনে জল্পনা তুঙ্গে

First Published 30, Mar 2020, 12:12 PM

বচ্চন বধূকে ঘিরে একাধিক জল্পনা বিটাউনে। কখনও সামনে উঠে এসেছে সম্পর্ক ঘিরে একাধিক মতামত, কখনও আবার সামনে উঠে আসছে দেখা গিয়েছে ছবির অভিনয় ঘিরে জল্পনা। তবে কেবল পর্দার সামনে কিংবা পেছনে নয়। গোপনেও অনেক কাণ্ড ঘটিয়েছেন এই তারকা। 

বলিউডে একাধিক তারকাদের সঙ্গে নাম জড়িয়েছে বচ্চন বধূর। প্রথম থেকেই তাঁর সৌন্দর্যের প্রশংসা করেছেন সকলেই।

বলিউডে একাধিক তারকাদের সঙ্গে নাম জড়িয়েছে বচ্চন বধূর। প্রথম থেকেই তাঁর সৌন্দর্যের প্রশংসা করেছেন সকলেই।

ফলে একের পর এক তারকার নজর পড়েছে তাঁর ওপর। বেশ কিছু সম্পর্কের জেড়েই কেরিয়ার শেষ হয়ে গিয়েছে ঐশ্বর্যর।

ফলে একের পর এক তারকার নজর পড়েছে তাঁর ওপর। বেশ কিছু সম্পর্কের জেড়েই কেরিয়ার শেষ হয়ে গিয়েছে ঐশ্বর্যর।

এর মধ্যে সব থেকে বেশি নজর কেড়েছিল সলমন খানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক। বিচ্ছেদের পর ঐশ্বর্য আজও তা নিয়ে আক্ষেপ করেন। এই সম্পর্কই তাঁর জীবনের সব থেকে বড় ভুল।

এর মধ্যে সব থেকে বেশি নজর কেড়েছিল সলমন খানের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক। বিচ্ছেদের পর ঐশ্বর্য আজও তা নিয়ে আক্ষেপ করেন। এই সম্পর্কই তাঁর জীবনের সব থেকে বড় ভুল।

তবুও একাধিক ঝড় বয়ে গিয়েছে ঐশ্বর্য ওপর থেকে। একাধিকবার কাঠো গোড়ায় উঠেছে অভিষেকের সঙ্গে সম্পর্ক।

তবুও একাধিক ঝড় বয়ে গিয়েছে ঐশ্বর্য ওপর থেকে। একাধিকবার কাঠো গোড়ায় উঠেছে অভিষেকের সঙ্গে সম্পর্ক।

তবে অভিনেত্রীর একাধিক কাণ্ড বারে বারে উঠে এসেছে খবরের শিরোনামে। তবে কখনও তা রটনা, কখনও তা আবার সত্য হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

তবে অভিনেত্রীর একাধিক কাণ্ড বারে বারে উঠে এসেছে খবরের শিরোনামে। তবে কখনও তা রটনা, কখনও তা আবার সত্য হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে।

Raavanan is a Tamil movie based on the plot of the Hindi movie Raavan.

Raavanan is a Tamil movie based on the plot of the Hindi movie Raavan.

রণবীরের সঙ্গে বোল্ড দৃশ্যে অভিনয় করা নিয়েও আপত্তি তুলেছিল ঐশ্বর্যর পরিবার। ডিভোর্সও দিতে চেয়েছিলেন অভিষেক। পরবর্তীতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

রণবীরের সঙ্গে বোল্ড দৃশ্যে অভিনয় করা নিয়েও আপত্তি তুলেছিল ঐশ্বর্যর পরিবার। ডিভোর্সও দিতে চেয়েছিলেন অভিষেক। পরবর্তীতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

তবে বি-টাউনে শোনা যায় একবার দশ কোটি টাকার লোভে রাতারাতি পাকিস্তানে পাড়ি দিয়েছিলেন ঐশ্বর্য রায়। এমনই দাবী করেছিলেন সাংবাদিক শাহিদ মাসুদি।

তবে বি-টাউনে শোনা যায় একবার দশ কোটি টাকার লোভে রাতারাতি পাকিস্তানে পাড়ি দিয়েছিলেন ঐশ্বর্য রায়। এমনই দাবী করেছিলেন সাংবাদিক শাহিদ মাসুদি।

তাঁর দাবি ছিল ঐশ্বর্যকে ডেকে পাঠানো হয় রাষ্ট্রপতী ভাবন থেকে। টাকার অঙ্কটা বেশ বেশি থাকার ফলে প্রস্তাব গ্রহণ করেন ঐশ্বর্য।

তাঁর দাবি ছিল ঐশ্বর্যকে ডেকে পাঠানো হয় রাষ্ট্রপতী ভাবন থেকে। টাকার অঙ্কটা বেশ বেশি থাকার ফলে প্রস্তাব গ্রহণ করেন ঐশ্বর্য।

এই খবর সামনে আসতেই বি-টাউউনে সকলের নজরে আসেন ঐশ্বর্য। তাঁকে ধিৎক্কারও জানানো হয়। যদিও এই বিষয় কোনও প্রমাণই দিতে পারেননি ওই সাংবাদিক।

এই খবর সামনে আসতেই বি-টাউউনে সকলের নজরে আসেন ঐশ্বর্য। তাঁকে ধিৎক্কারও জানানো হয়। যদিও এই বিষয় কোনও প্রমাণই দিতে পারেননি ওই সাংবাদিক।

loader