মায়ের মৃত্যুর পর মেধাবী ছাত্রের অধঃপতন, তখন হাল না ছাড়লেও আজ হেরে গেলেন সুশান্ত সিং রাজপুত

First Published 14, Jun 2020, 4:48 PM

বহুদিন ধরে বন্ধু বান্ধবদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন। আচার আচরণও ইন্ট্রোভার্টের মত। ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কখনই মুখ খুলতে চাননি তিনি। তখনই মানসিকভাবে ধীরে ধীরে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়েছিলেন সুশান্ত সিং রাজকুত। সম্ভব ছিল না কারও পক্ষে বোঝা। খুব কম কথার মানুষ ছিল বলেই জানত বন্ধুরা। মানসিক অবসাদ মানুষকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেয়। যারা মানসিক অবসাদে ভোগা মানুষদের পাগল বলে দাবি করে, তারা খুনির মতনই সমান দোষী। ছাত্র হিসেবে বিরল, অভিনেতা হিসেবেও তাই, কীভাবে সুশান্ত ঢোলে পড়লেন মানসিক অবসাদের কোলে।

<p><br />
ছাত্র হিসেবে তাঁর তুলনা হয় না। স্কুল-কলেজে শিক্ষক-শিক্ষিকার বড়ই প্রিয় ছিল সে। পাটনার সেন্ট ক্যারেন স্কুল এবং নয়া দিল্লির কুলচি হংসরাজ মডেল স্কুলে পড়াশুনা করেছিলেন তিনি। </p>


ছাত্র হিসেবে তাঁর তুলনা হয় না। স্কুল-কলেজে শিক্ষক-শিক্ষিকার বড়ই প্রিয় ছিল সে। পাটনার সেন্ট ক্যারেন স্কুল এবং নয়া দিল্লির কুলচি হংসরাজ মডেল স্কুলে পড়াশুনা করেছিলেন তিনি। 

<p>কেবল স্কুলজীবনেই নয় কলেজেও তাঁর পড়াশুনা নিয়ে রীতিমত সুনাম ছিল। পাটনা থেকে দিল্লি আসার সময় তাঁর মা প্রয়াত হন। মায়ের চলে যাওয়া ভিতর থেকে শেষ করে দিয়েছিল তাঁকে।</p>

কেবল স্কুলজীবনেই নয় কলেজেও তাঁর পড়াশুনা নিয়ে রীতিমত সুনাম ছিল। পাটনা থেকে দিল্লি আসার সময় তাঁর মা প্রয়াত হন। মায়ের চলে যাওয়া ভিতর থেকে শেষ করে দিয়েছিল তাঁকে।

<p>তবে হাল ছাড়েননি সুশান্ত। মন দিয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যান তিনি। ফিজিক্সে ন্যাশানাল অলিম্পিয়াডের বিজেতা ছিলেন তিনি। তবে মোটা মোটা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের বইয়ের মাঝে হাতছানি দিয়েছিল থিয়েটারের স্টেজ।</p>

তবে হাল ছাড়েননি সুশান্ত। মন দিয়ে লেখাপড়া চালিয়ে যান তিনি। ফিজিক্সে ন্যাশানাল অলিম্পিয়াডের বিজেতা ছিলেন তিনি। তবে মোটা মোটা ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের বইয়ের মাঝে হাতছানি দিয়েছিল থিয়েটারের স্টেজ।

<p style="text-align: justify;">বইগুলো খোলা রেখেই কখন যে থিয়েটার এবং নাচের জগতে পাড়ি দেন নিজেও বোঝেননি। এদিকে পড়াশুনোয় মারাত্মক ক্ষতি হতে শুরু করল। অবশেষে লেখাপড়াকে একেবারে উপড়ের ট্রাঙ্কে তুলে দিয়ে নতুন পথচলা শুরু।</p>

বইগুলো খোলা রেখেই কখন যে থিয়েটার এবং নাচের জগতে পাড়ি দেন নিজেও বোঝেননি। এদিকে পড়াশুনোয় মারাত্মক ক্ষতি হতে শুরু করল। অবশেষে লেখাপড়াকে একেবারে উপড়ের ট্রাঙ্কে তুলে দিয়ে নতুন পথচলা শুরু।

<p>দিল্লি টেকনলজিকাল বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন শামক দাওয়ারের ডান্স ক্লাসে ভর্তি হন। সেখান থেকে ধীরে ধীরে লাইট ক্যামেরা অ্যাকশনের প্রতি আকর্ষণ বাড়তে লাগল তাঁর।</p>

দিল্লি টেকনলজিকাল বিশ্ববিদ্যালয় থাকাকালীন শামক দাওয়ারের ডান্স ক্লাসে ভর্তি হন। সেখান থেকে ধীরে ধীরে লাইট ক্যামেরা অ্যাকশনের প্রতি আকর্ষণ বাড়তে লাগল তাঁর।

<p>অভিনয়ের প্রতি প্যাশন অনুভব করে তিনি বলেছিলেন, "আমি এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতা খুঁজে পেয়েছিলাম। দর্শকের সঙ্গে অভিনয়ের মাধ্যমে, নাচের মাধ্যমে কথোপকথনে বুঝলাম এটাই করতে চাই আজীবন।"</p>

অভিনয়ের প্রতি প্যাশন অনুভব করে তিনি বলেছিলেন, "আমি এই অভিজ্ঞতার মধ্যে দিয়ে স্বাধীনতা খুঁজে পেয়েছিলাম। দর্শকের সঙ্গে অভিনয়ের মাধ্যমে, নাচের মাধ্যমে কথোপকথনে বুঝলাম এটাই করতে চাই আজীবন।"

<p>আজীবন আর হল কই। কীসের কারণ এত তাড়াতাড়ি হাল ছেড়ে দিলেন সুশান্ত। শেষ ছবি 'ছিছোড়ে' আত্মহত্যা, মানসিক অবসাদ নিয়ে গল্প বুনেছিল।</p>

আজীবন আর হল কই। কীসের কারণ এত তাড়াতাড়ি হাল ছেড়ে দিলেন সুশান্ত। শেষ ছবি 'ছিছোড়ে' আত্মহত্যা, মানসিক অবসাদ নিয়ে গল্প বুনেছিল।

<p>সেই ছবির হিরোরই ঝুলন্ত দেহ এই ভাবে বান্দ্রার বাড়িতে পাওয়া যাবে কেউ ভাবেনি। শামাকের ডান্স ট্রুপে নাচ করার সুযোগ হতেই ৫১ তম ফিল্মফেয়ারে ব্যাকআপ ডান্সার হিসেবে বলিউডের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে পারফর্ম করেন। </p>

সেই ছবির হিরোরই ঝুলন্ত দেহ এই ভাবে বান্দ্রার বাড়িতে পাওয়া যাবে কেউ ভাবেনি। শামাকের ডান্স ট্রুপে নাচ করার সুযোগ হতেই ৫১ তম ফিল্মফেয়ারে ব্যাকআপ ডান্সার হিসেবে বলিউডের অভিনেতা-অভিনেত্রীদের সঙ্গে পারফর্ম করেন। 

<p>বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার পর নাদিরা বব্বরের একজুতে থিয়েটার গ্রুপে জয়েন করেন। ২০০৮ সালে সুশান্তের অভিনয় দক্ষতা মুগ্ধ করে বালাজি টেলিফিল্মসকে। </p>

বিভিন্ন অনুষ্ঠানে পারফর্ম করার পর নাদিরা বব্বরের একজুতে থিয়েটার গ্রুপে জয়েন করেন। ২০০৮ সালে সুশান্তের অভিনয় দক্ষতা মুগ্ধ করে বালাজি টেলিফিল্মসকে। 

<p>কিস দেশ ম্যয় হ্যয় মেরা দিল ধারাবাহিকে তাঁকে প্রথম চেলিভিশন স্ক্রিনে দেখা যায়। সেখানে তাঁর চার্মে দর্শকরা হতবাক হয়েছিলেন। বছর ঘুরতে না ঘুরতে পবিত্র রিশতায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার প্রস্তাব আসে তাঁর কাছে। </p>

কিস দেশ ম্যয় হ্যয় মেরা দিল ধারাবাহিকে তাঁকে প্রথম চেলিভিশন স্ক্রিনে দেখা যায়। সেখানে তাঁর চার্মে দর্শকরা হতবাক হয়েছিলেন। বছর ঘুরতে না ঘুরতে পবিত্র রিশতায় প্রধান চরিত্রে অভিনয় করার প্রস্তাব আসে তাঁর কাছে। 

<p>রাতারাতি জনপ্রিয়তার শীর্ষে। দীর্ঘ কয়েক বছর টিআপপি রেটিংয়ে শীর্ষে ছিল পবিত্র রিশতা। এই ধারাবাহিকে কাজ করতে করতেই বলিউডে সুযোগ খুঁজতে শুরু করে বিহার থেকে আসা ছেলেটি।</p>

রাতারাতি জনপ্রিয়তার শীর্ষে। দীর্ঘ কয়েক বছর টিআপপি রেটিংয়ে শীর্ষে ছিল পবিত্র রিশতা। এই ধারাবাহিকে কাজ করতে করতেই বলিউডে সুযোগ খুঁজতে শুরু করে বিহার থেকে আসা ছেলেটি।

<p>অভিষেক কাপুরের কাই পো ছে ফিল্মের হাত ধরে বলিউডে পদার্পণ সুশান্তের। রাজকুমার রাও এবং অমিত সাধের অভিনয়কে ছাপিয়ে গেল সুশান্তের প্রতিভা। </p>

অভিষেক কাপুরের কাই পো ছে ফিল্মের হাত ধরে বলিউডে পদার্পণ সুশান্তের। রাজকুমার রাও এবং অমিত সাধের অভিনয়কে ছাপিয়ে গেল সুশান্তের প্রতিভা। 

<p>একের পর এক বড়ো ব্যানারের ছবির প্রস্তাব আসতে শুরু করল তাঁর কাছে। সুদ্ধ দেশি রোমান্স, পিকে, ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী, এমএস ধোনি, রাবতা। </p>

একের পর এক বড়ো ব্যানারের ছবির প্রস্তাব আসতে শুরু করল তাঁর কাছে। সুদ্ধ দেশি রোমান্স, পিকে, ডিটেক্টিভ ব্যোমকেশ বক্সী, এমএস ধোনি, রাবতা। 

<p>তবে অধিকাংশ ছবিই বক্স অফিসে তেমন কামাল দেখাতে পারল না। সেই কারণেই কি মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন অভিনেতা। নাকি তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে টানাপোড়েনেই তাঁকে ঠেলে দিল মৃত্যুর দিকে। স্যুইসাইড নোট ছিল না ঘরে। তাই কারণটা বোধহয় রহস্যেই মাঝেই চাপা পড়ে গেল।</p>

তবে অধিকাংশ ছবিই বক্স অফিসে তেমন কামাল দেখাতে পারল না। সেই কারণেই কি মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন অভিনেতা। নাকি তাঁর ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে টানাপোড়েনেই তাঁকে ঠেলে দিল মৃত্যুর দিকে। স্যুইসাইড নোট ছিল না ঘরে। তাই কারণটা বোধহয় রহস্যেই মাঝেই চাপা পড়ে গেল।

loader