গ্রেফতারির পরেই বেরিয়ে এসেছিলেন বাইরে, কেমন অবস্থা ছিল রিয়া-র, দেখুন ৫টি অদেখা ছবি

First Published 8, Sep 2020, 7:30 PM

সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্য়ুর পর কেটে গিয়েছে ৮০ দিন। অবশেষে এই জটিল মৃত্যু রহস্যে গ্রেফতার হলেন অভিনেত্রী রিয়া চক্রবর্তী। সুশান্তের একটা সময়ের লিভ-ইন পার্টনার এবং সূত্রের দাবি অনুযায়ী সুশান্তের সঙ্গে বিয়ে পিড়িতে বসা চলা রিয়ার এহেন পরিণতিতে কেউ-ই অবাক হচ্ছেন না। একটা সময়ে যারা সুশান্তের কাছের মানুষ বলে বিবেচিত হতেন তারা আজ মনে করছেন এটাই হওয়ার ছিল। সুশান্তের সঙ্গে রিয়া-র মেলামেশাটা যে নিছক ভালোবাসা তা এদের কেউ মানতে রাজি নন। আচমকা সুস্থ-সবল ছেলে কীভাবে মানসিক রোগীতে পরিণত হল তার কূল-কিনারা করতে পাচ্ছেন না তাঁরা। এমনকী, মাদকের নেশা কীভাবে সুশান্তকে ছুঁয়ে ফেলেছিল তা নিয়েও আশ্চর্য এই সব মানুষ। রিয়ার গ্রেফতারির এঁদের অনেকেরই উত্তরহীন থাকা প্রশ্নগুলিকে যেন উত্তর খুঁজে দিয়েছে। 

<p>সুশান্তের মৃত্যু তদন্তে মাদক চক্রের যোগ যে বড় হতে চলেছে তা ভালোমতনই নাকি আঁচ করতে পেরেছিলেন রিয়া। আর সেইভাবেই তিনি জাতীয় মাদক প্রতিরোধ দপ্তরের অফিসারদের সঙ্গে কথার ভাঁজে খেলা শুরু করেছিলেন। কিন্তু, ঝানু অফিসারদের জেরার দক্ষতা শেষমেশ রিয়াকে ভেঙে পড়তে বাধ্য করেছিল। যার জেরে সোমবার সন্ধ্যাতেই জানিয়ে দিয়েছিলেন মাদক চক্রের নানা অজানা কথা। কীভাবে বলিউডের মধ্যে মাদক চক্র ঘুরে বেড়াচ্ছে তা নিয়ে বহু গুরুত্বপূর্ণ সূত্র দিয়ে দেন রিয়া। আর এটাও পরিষ্কার করে দেন যে মাদক চক্রের সঙ্গে .তাঁর যোগসূত্রের বিষয়টি।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

সুশান্তের মৃত্যু তদন্তে মাদক চক্রের যোগ যে বড় হতে চলেছে তা ভালোমতনই নাকি আঁচ করতে পেরেছিলেন রিয়া। আর সেইভাবেই তিনি জাতীয় মাদক প্রতিরোধ দপ্তরের অফিসারদের সঙ্গে কথার ভাঁজে খেলা শুরু করেছিলেন। কিন্তু, ঝানু অফিসারদের জেরার দক্ষতা শেষমেশ রিয়াকে ভেঙে পড়তে বাধ্য করেছিল। যার জেরে সোমবার সন্ধ্যাতেই জানিয়ে দিয়েছিলেন মাদক চক্রের নানা অজানা কথা। কীভাবে বলিউডের মধ্যে মাদক চক্র ঘুরে বেড়াচ্ছে তা নিয়ে বহু গুরুত্বপূর্ণ সূত্র দিয়ে দেন রিয়া। আর এটাও পরিষ্কার করে দেন যে মাদক চক্রের সঙ্গে .তাঁর যোগসূত্রের বিষয়টি। 
 

<p>মঙ্গলবার দুপুরে রিয়া-কে গ্রেফতারের পর বাইরে নিয়ে আসা। একটা লম্বা কালো জ্যাকেট- পিছনে আবার নক্সা করা- এটাই ছিল রিয়ার পরণে। এছাড়া ছিল ব্লু জিনসের প্যান্ট। সোমবার আপাদমস্তক ঢাকা গোলাপি রঙের একটি জ্যাকেট পরে এনসিবি-র দপ্তরে এসেছিলেন রিয়া। এদিন মাথা ঢাকেননি। বরং মুখে লাগানো ছিল সাদা রঙের মাস্ক।&nbsp;</p>

মঙ্গলবার দুপুরে রিয়া-কে গ্রেফতারের পর বাইরে নিয়ে আসা। একটা লম্বা কালো জ্যাকেট- পিছনে আবার নক্সা করা- এটাই ছিল রিয়ার পরণে। এছাড়া ছিল ব্লু জিনসের প্যান্ট। সোমবার আপাদমস্তক ঢাকা গোলাপি রঙের একটি জ্যাকেট পরে এনসিবি-র দপ্তরে এসেছিলেন রিয়া। এদিন মাথা ঢাকেননি। বরং মুখে লাগানো ছিল সাদা রঙের মাস্ক। 

<p>বাইরে বেরিয়ে আসতেই দেখা যায় রিয়া-র দুটি এক্কেবারের বুকের কাছে ধরে রাখা। চোখে-মুখে একটা চিন্তার ভাব। মাথাটা অবনত। চোখ জুড়ে শুধুই যেন শূন্যতা। বছরের শুরুতে তাঁকে এবং সুশান্তকে নিয়ে সমানে চর্চা করে গিয়েছিল মিডিয়া। তাঁদের প্রেমকাহিনি থাকত পেজ থ্রি-র এক্কেবারে উপরের পাতায়। লেগে থাকত পাপারাৎজি-দের দল। কিন্তু আজ তাঁরা কোথায়? মনে মনে রিয়া যেন সেই উত্তরই খুঁজে চলেছেন।&nbsp;</p>

বাইরে বেরিয়ে আসতেই দেখা যায় রিয়া-র দুটি এক্কেবারের বুকের কাছে ধরে রাখা। চোখে-মুখে একটা চিন্তার ভাব। মাথাটা অবনত। চোখ জুড়ে শুধুই যেন শূন্যতা। বছরের শুরুতে তাঁকে এবং সুশান্তকে নিয়ে সমানে চর্চা করে গিয়েছিল মিডিয়া। তাঁদের প্রেমকাহিনি থাকত পেজ থ্রি-র এক্কেবারে উপরের পাতায়। লেগে থাকত পাপারাৎজি-দের দল। কিন্তু আজ তাঁরা কোথায়? মনে মনে রিয়া যেন সেই উত্তরই খুঁজে চলেছেন। 

<p>এদিন এনসিবি দপ্তরে দীপেশ সাওয়ন্তকেও আনা হয়েছিল। রিয়া-র সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকেও জেরা করা হয়েছিল। দীপেশ-ই জানিয়েছিল সুশান্ত নিয়মিত মাদকের নেশা করতে সাহায্য করতেন রিয়া। শুধুমাত্র রিয়াকেই দেখেছেন সুশান্তকে মাদক সেবন করাতে।&nbsp;</p>

এদিন এনসিবি দপ্তরে দীপেশ সাওয়ন্তকেও আনা হয়েছিল। রিয়া-র সঙ্গে মুখোমুখি বসিয়ে তাঁকেও জেরা করা হয়েছিল। দীপেশ-ই জানিয়েছিল সুশান্ত নিয়মিত মাদকের নেশা করতে সাহায্য করতেন রিয়া। শুধুমাত্র রিয়াকেই দেখেছেন সুশান্তকে মাদক সেবন করাতে। 

<p>সুশান্ত মৃত্যুর তদন্তে মাদক যে একটা বড় যোগ তাতে কোনও সন্দেহ নেই। এখনও পর্যন্ত সুশান্তকে খুনের অভিযোগ করা হলেও, তার সপক্ষে কোনও অকাঠ্য প্রমাণ মেলেনি। সেদিক দিয়ে দেখতে গেলে এই মুহূর্তে তদন্তকারী সরকারি তিন সংস্থার মধ্যে এনসিবি-র নজরে রয়েছে এই মাদককাণ্ড। যার সূত্র ধরেই এনসিবি জালে তুলে নিল রিয়া চক্রবর্তী-সহ চার জনকে। &nbsp;</p>

সুশান্ত মৃত্যুর তদন্তে মাদক যে একটা বড় যোগ তাতে কোনও সন্দেহ নেই। এখনও পর্যন্ত সুশান্তকে খুনের অভিযোগ করা হলেও, তার সপক্ষে কোনও অকাঠ্য প্রমাণ মেলেনি। সেদিক দিয়ে দেখতে গেলে এই মুহূর্তে তদন্তকারী সরকারি তিন সংস্থার মধ্যে এনসিবি-র নজরে রয়েছে এই মাদককাণ্ড। যার সূত্র ধরেই এনসিবি জালে তুলে নিল রিয়া চক্রবর্তী-সহ চার জনকে।  

loader