মায়ের কথায় কি স্টেরয়েড নিয়ে তড়িঘড়ি যৌবনে পা দিয়েছিলেন হনসিকা, রহস্যময় 'হর্মোন্যাল গ্রোথ'

First Published 28, Sep 2020, 10:53 PM

বিনোদন জগতে এমন নানা গসিপ রয়েছে যা কেবল নায়ক-নায়িকার প্রেম, বিচ্ছেদ, হিরোইনদের মধ্যে ক্যাটফাইট এতেই সীমিত নয়। কিছু সময় বিতর্কের কারণ হয়ে দাঁড়ায় অন্য কিছু। যার কোনও সঠিক ব্যাখাও মেলে না। যেমন হনসিকা মোতওয়ানির হঠাৎ করেই যৌবন যেন ঝড়ে পড়তে শুরু করে। মাত্র চার বছরের মধ্যে কীভাবে একটি বাচ্চা মেয়ে এমন বড় হয়ে গেল হঠাৎ। হনসিকার এই হর্মোন্যাল গ্রোথ নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে ওঠে। এই নিয়ে তাঁকে প্রশ্ন করা হলেও তিনি সরাসরি এই বিষয় কথা বলতে বারণ করে দেন। 

<p>বিনোদন জগতে অত্যন্ত ছোট বয়স থেকেই কাজ করছেন হনসিকা। একতা কাপুরের বিভিন্ন ধারাবাহিকে দেখা গিয়েছিল তাঁকে।&nbsp;</p>

বিনোদন জগতে অত্যন্ত ছোট বয়স থেকেই কাজ করছেন হনসিকা। একতা কাপুরের বিভিন্ন ধারাবাহিকে দেখা গিয়েছিল তাঁকে। 

<p>কিঁউকি সাস ভি কভি বহু থি ধারাবাহিকে শিশুশিল্পী হিসাবে দেখা যায় তাঁকে। বেশ জনপ্রিয়তাও লাভ করেছিলেন হনসিকা।&nbsp;</p>

কিঁউকি সাস ভি কভি বহু থি ধারাবাহিকে শিশুশিল্পী হিসাবে দেখা যায় তাঁকে। বেশ জনপ্রিয়তাও লাভ করেছিলেন হনসিকা। 

<p>এছাড়া ছোটদের ধারাবাহিক শাকা লাকা বুম বুম-এও তিনি ছিলেন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে।&nbsp;</p>

এছাড়া ছোটদের ধারাবাহিক শাকা লাকা বুম বুম-এও তিনি ছিলেন গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে। 

<p>যার পরই বলিউডে কাজ করার প্রস্তাব পান হনসিকা। বিভিন্ন ছবিতেও অভিনয়ও করেন তিনি।&nbsp;</p>

যার পরই বলিউডে কাজ করার প্রস্তাব পান হনসিকা। বিভিন্ন ছবিতেও অভিনয়ও করেন তিনি। 

<p>২০০৩ সালে কোই মিল গায়া ছবিতে হৃত্বিক রোশনের বন্ধুর চরিত্রে অভিনয় করেন।&nbsp;</p>

২০০৩ সালে কোই মিল গায়া ছবিতে হৃত্বিক রোশনের বন্ধুর চরিত্রে অভিনয় করেন। 

<p>সেই ছবিই ছিল হনসিকার টার্নিং পয়েন্ট। এই ছবির পরই তাঁকে নিয়ে বিতর্ক ওঠে তুঙ্গে।&nbsp;</p>

সেই ছবিই ছিল হনসিকার টার্নিং পয়েন্ট। এই ছবির পরই তাঁকে নিয়ে বিতর্ক ওঠে তুঙ্গে। 

<p>২০০৭ সালে হিমেশ রেশামিয়ার বিপরীতে আপ কা সুরুর ছবিতে নায়িকা হিসাবে এলেন হনসিকা।&nbsp;</p>

২০০৭ সালে হিমেশ রেশামিয়ার বিপরীতে আপ কা সুরুর ছবিতে নায়িকা হিসাবে এলেন হনসিকা। 

<p><br />
মাত্র চার বছরে একটি ১২ বছর বয়সী মেয়ের এমন হর্মোন্যাল গ্রোথ হল কীকরে। রহস্য দানা বাঁধতে শুরু করে সকলের মনে।&nbsp;</p>


মাত্র চার বছরে একটি ১২ বছর বয়সী মেয়ের এমন হর্মোন্যাল গ্রোথ হল কীকরে। রহস্য দানা বাঁধতে শুরু করে সকলের মনে। 

<p>গুজবে কান দিলে, হনসিকার মা স্কিন স্পেশ্যালিস্ট। মায়েরই কথায়, তিনি স্টেরয়েড নিতে শুরু করেন।&nbsp;</p>

গুজবে কান দিলে, হনসিকার মা স্কিন স্পেশ্যালিস্ট। মায়েরই কথায়, তিনি স্টেরয়েড নিতে শুরু করেন। 

<p>যার ফলাফল চমকে দেয় সকলকে। আজও যেকোনও মানুষের কাছেই হনসিকার হঠাৎ করে বড় যাওয়া রহস্যের চেয়ে কম নয়।&nbsp;</p>

<p><br />
&nbsp;</p>

যার ফলাফল চমকে দেয় সকলকে। আজও যেকোনও মানুষের কাছেই হনসিকার হঠাৎ করে বড় যাওয়া রহস্যের চেয়ে কম নয়। 


 

loader