সময় থাকতে হার্টের যত্ন নিন, এই দশ টিপসেই আপনার হার্ট থাকবে ফিট ও ফাইন

First Published Jan 11, 2021, 11:18 AM IST

হার্ট সুস্থ থাকাটা একান্ত জরুরী। কিন্তু আমরা অনেকেই এ ব্যাপারে উদাসীন। এমন কিছু অভ্যাস আছে যেগুলো আমাদের অজান্তেই হৃদপিণ্ডকে ধ্বংস করছে। কিন্তু একটু সচেতন হলেই ও কিছু বাজে অভ্যাসগুলো এড়িয়ে চলা সম্ভব হলে সহজেই বিপদ মুক্ত থাকা যায়।।

<p>বেশিরভাগই ভিন্ন ধরনের চর্বির পার্থক্য সম্পর্কে জানেন না। সবচেয়ে খারাপ চর্বি হলো ট্রান্স ফ্যাট। এজাঙ্কফুড, প্যাকেটজাত ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, কুইক স্ন্যাকস এবং বেকারি আইটেম থেকে দূরে থাকুন।&nbsp;</p>

বেশিরভাগই ভিন্ন ধরনের চর্বির পার্থক্য সম্পর্কে জানেন না। সবচেয়ে খারাপ চর্বি হলো ট্রান্স ফ্যাট। এজাঙ্কফুড, প্যাকেটজাত ও প্রক্রিয়াজাত খাদ্য, কুইক স্ন্যাকস এবং বেকারি আইটেম থেকে দূরে থাকুন। 

<p>খুব বেশি দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকাটা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। কারণ এক গবেষণায় দেখা গেছে, এতে হৃদরোগের ঝুঁকি ১৪৭ গুণ বেড়ে যায়। আর হৃদরোগে মৃত্যুর ঝুঁকিও বেড়ে যায় ৯০%।</p>

খুব বেশি দীর্ঘ সময় ধরে বসে থাকাটা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। কারণ এক গবেষণায় দেখা গেছে, এতে হৃদরোগের ঝুঁকি ১৪৭ গুণ বেড়ে যায়। আর হৃদরোগে মৃত্যুর ঝুঁকিও বেড়ে যায় ৯০%।

<p>নিজে ধূমপান না করলেও আপনার আশে-পাশের লোকজন যদি ধূমপান করেন এবং তাদের ফোকা সিগারেটের ধোঁয়া আপনার দেহে প্রবেশ করে তাহলে আপনার হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩০% বেড়ে যায়।</p>

নিজে ধূমপান না করলেও আপনার আশে-পাশের লোকজন যদি ধূমপান করেন এবং তাদের ফোকা সিগারেটের ধোঁয়া আপনার দেহে প্রবেশ করে তাহলে আপনার হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩০% বেড়ে যায়।

<p>দাঁত রোগমুক্ত থাকলে হৃদপিণ্ডও রোগমুক্ত থাকে। কারণ মাড়ির রোগে আক্রান্ত হলে যে ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয় তা দেহের রক্তপ্রবাহের মধ্য দিয়ে চলাচল করে রক্তে সি-রিয়েকটিভ প্রোটিন এর মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। এতেই বিপদ বাড়ে।&nbsp;</p>

দাঁত রোগমুক্ত থাকলে হৃদপিণ্ডও রোগমুক্ত থাকে। কারণ মাড়ির রোগে আক্রান্ত হলে যে ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয় তা দেহের রক্তপ্রবাহের মধ্য দিয়ে চলাচল করে রক্তে সি-রিয়েকটিভ প্রোটিন এর মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। এতেই বিপদ বাড়ে। 

<p>গবেষণায় দেখা গেছে, যারা ছয় ঘণ্টার কম ঘুমান তাদের নানা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি দ্বিগুণ বেড়ে যায়; যার মধ্যে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকও রয়েছে।&nbsp;</p>

গবেষণায় দেখা গেছে, যারা ছয় ঘণ্টার কম ঘুমান তাদের নানা হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি দ্বিগুণ বেড়ে যায়; যার মধ্যে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকও রয়েছে। 

<p>যারা উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত তাদের অর্ধেকই নিজেদের রোগ সম্পর্কে জানেন না। এ থেকেই বোঝা যায় বিষয়টি নিয়ে সচেতনতা তৈরি করা কতটা জরুরি।</p>

যারা উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্ত তাদের অর্ধেকই নিজেদের রোগ সম্পর্কে জানেন না। এ থেকেই বোঝা যায় বিষয়টি নিয়ে সচেতনতা তৈরি করা কতটা জরুরি।

<p>উচ্চ আওয়াজও হৃদপিণ্ডের অবস্থা খারাপ করে দিতে পারে! গবেষণায় দেখা গেছে, রাস্তার গাড়ির আওয়াজ এবং উচ্চ স্বরের সঙ্গীতও হার্টবিট বাড়িয়ে দিতে পারে।&nbsp;</p>

উচ্চ আওয়াজও হৃদপিণ্ডের অবস্থা খারাপ করে দিতে পারে! গবেষণায় দেখা গেছে, রাস্তার গাড়ির আওয়াজ এবং উচ্চ স্বরের সঙ্গীতও হার্টবিট বাড়িয়ে দিতে পারে। 

<p>&nbsp;একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর&nbsp;আর কোনও গ্যাজেট বা যন্ত্র ব্যবহার করার অভ্যাস বাদ দিন। এসব যন্ত্র থেকে নির্গত নীল আলো ক্যানসার, ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়।</p>

 একটা নির্দিষ্ট সময়ের পর আর কোনও গ্যাজেট বা যন্ত্র ব্যবহার করার অভ্যাস বাদ দিন। এসব যন্ত্র থেকে নির্গত নীল আলো ক্যানসার, ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়।

<p>প্রতিদিন পাঁচবার তাজা ফল, সবজি, শুকনো ফল, বাদাম এবং বীজজাতীয় খাবার খান। সকল প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন, কুকি, পরিশোধিত ময়দায় তৈরি পাউরুটি এবং পাস্তা খাওয়া বাদ দিন।&nbsp;</p>

প্রতিদিন পাঁচবার তাজা ফল, সবজি, শুকনো ফল, বাদাম এবং বীজজাতীয় খাবার খান। সকল প্রক্রিয়াজাত খাবার যেমন, কুকি, পরিশোধিত ময়দায় তৈরি পাউরুটি এবং পাস্তা খাওয়া বাদ দিন। 

<p>হৃদরোগ থেকে বাঁচতে চাইলে আপনাকে প্রতিদিনই নড়াচড়া করতে হবে। হোক তা যোগ ব্যায়াম, নাচ, সাঁতার, হাঁটাহাঁটি বা সাইকেল চালানোর মাধ্যমে।</p>

হৃদরোগ থেকে বাঁচতে চাইলে আপনাকে প্রতিদিনই নড়াচড়া করতে হবে। হোক তা যোগ ব্যায়াম, নাচ, সাঁতার, হাঁটাহাঁটি বা সাইকেল চালানোর মাধ্যমে।

Today's Poll

একসঙ্গে কতজন প্লেয়ারের সঙ্গে খেলতে পছন্দ করেন