এই ৬ ভ্যাকসিন, যা করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই মুহূর্তে আশার আলো

First Published 12, May 2020, 5:34 PM

ইতিমধ্যেই বিশ্বের প্রায় সবকটি দেশেই চিকিৎসা ব্যবস্থার উপর আরও জোর দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রতিটি দেশ তাদের বর্ডার সিল করেছে এই মহামারির হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য। এই মারণ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে সংক্রমণের শিকার প্রায় ৪২ লক্ষ মানুষ, ভারতে আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ হাজারেরও বেশি। একই সময়ে, বিশ্বজুড়ে বিজ্ঞানী এবং গবেষকরা করোনাভাইরাস জন্য উপযুক্ত ভ্যাকসিন তৈরিতে দিনরাত এক করছেন। এখন অবধি, প্রায় ১০০ টির মত দল এই বিষয়ে গবেষণা করছেন, এবং এর প্রতিষেধক তৈরির জন্য চব্বিশ ঘন্টা কাজ করছেন।

<p>মানুষের জন্য উপযুক্ত করোনার এই ভ্যকসিন তৈরি হতে প্রায় ১ বছর সময় লাগতে পারে। কারণ এটি পর পর গবেষণার মাধ্যমে নির্নয় করা হয় এটি মানুষের জন্য সুরক্ষিত ও উপযুক্ত কি না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ক্লিনিকাল মূল্যায়নে কোভিড ১৯ এর সম্ভাব্য ভ্যাকসিনগুলি সনাক্ত করছে। চারটি সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিন যা ইতিমধ্যেই কার্যকর বলে মনে করা হচ্ছে।</p>

মানুষের জন্য উপযুক্ত করোনার এই ভ্যকসিন তৈরি হতে প্রায় ১ বছর সময় লাগতে পারে। কারণ এটি পর পর গবেষণার মাধ্যমে নির্নয় করা হয় এটি মানুষের জন্য সুরক্ষিত ও উপযুক্ত কি না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ক্লিনিকাল মূল্যায়নে কোভিড ১৯ এর সম্ভাব্য ভ্যাকসিনগুলি সনাক্ত করছে। চারটি সম্ভাব্য এই ভ্যাকসিন যা ইতিমধ্যেই কার্যকর বলে মনে করা হচ্ছে।

<p>ম্যাসাচুসেটস ভিত্তিক মোদোর্না টিকা</p>

<p>মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, ম্যাসাচুসেটস-ভিত্তিক বায়োটেক সংস্থা মোডার্না ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ অ্যালার্জি এবং সংক্রামক রোগের (এনআইএআইডি) সহযোগিতায় একটি আরএনএ ভিত্তিক ভ্যাকসিন তৈরি করছে। এই প্রতিষেধক মেসেঞ্জার আরএনএ (জেনেটিক উপাদান) ভাইরাল প্রোটিন বা অ্যান্টিজেন তৈরি করে। ভ্যাকসিনটি এমআরএনএ -১২৭৩ ইতিমধ্যে প্রথম পর্বের ট্রায়ালে রয়েছে। এই অ্যান্টিজেন প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে বাড়িয়ে তোলে এবং শরীরকে করোনা ভাইরাসের-এর বিরুদ্ধে রক্ষাকবচ গড়ে তুলতে সাহায্য করে। ভ্যাকসিনটি এমআরএনএ -১২৭৩ ইতিমধ্যে প্রথম পর্বের ট্রায়াল পরিচালনা করেছে এবং দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু করতে প্রস্তুত করা রয়েছে।</p>

ম্যাসাচুসেটস ভিত্তিক মোদোর্না টিকা

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে, ম্যাসাচুসেটস-ভিত্তিক বায়োটেক সংস্থা মোডার্না ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ অ্যালার্জি এবং সংক্রামক রোগের (এনআইএআইডি) সহযোগিতায় একটি আরএনএ ভিত্তিক ভ্যাকসিন তৈরি করছে। এই প্রতিষেধক মেসেঞ্জার আরএনএ (জেনেটিক উপাদান) ভাইরাল প্রোটিন বা অ্যান্টিজেন তৈরি করে। ভ্যাকসিনটি এমআরএনএ -১২৭৩ ইতিমধ্যে প্রথম পর্বের ট্রায়ালে রয়েছে। এই অ্যান্টিজেন প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে বাড়িয়ে তোলে এবং শরীরকে করোনা ভাইরাসের-এর বিরুদ্ধে রক্ষাকবচ গড়ে তুলতে সাহায্য করে। ভ্যাকসিনটি এমআরএনএ -১২৭৩ ইতিমধ্যে প্রথম পর্বের ট্রায়াল পরিচালনা করেছে এবং দ্বিতীয় ধাপের পরীক্ষা শুরু করতে প্রস্তুত করা রয়েছে।

<p>বেইজিং ভিত্তিক সিনোভেক বায়োটেক</p>

<p>চিনের এই বায়োফর্মাসিউটিক্যাল সংস্থাটি এই প্রতিষেধক তৈরির ক্ষেত্রে অনেকটাই আশাবাদী। কারণ, এর আগে ২০০৩ সালে সার্স ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিষেধক তৈরি করেছিল এই সংস্থা। চিন বিজ্ঞানীরা কোরোনাভাইরাস প্রতিষেধক হিসেবে সফলভাবে একটি ভ্যাকসিন বানরের শরীরে পরীক্ষা করেছেন বলে দাবি করা হয়েছে। এই পরীক্ষাটি চালানোর জন্য, গবেষকরা বানরের উপর প্রয়োগ করে যা একটি চিন বায়োফর্মাসিউটিক্যাল সংস্থা সিনোভাক বায়োটেক তৈরি করেছে।&nbsp;</p>

বেইজিং ভিত্তিক সিনোভেক বায়োটেক

চিনের এই বায়োফর্মাসিউটিক্যাল সংস্থাটি এই প্রতিষেধক তৈরির ক্ষেত্রে অনেকটাই আশাবাদী। কারণ, এর আগে ২০০৩ সালে সার্স ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিষেধক তৈরি করেছিল এই সংস্থা। চিন বিজ্ঞানীরা কোরোনাভাইরাস প্রতিষেধক হিসেবে সফলভাবে একটি ভ্যাকসিন বানরের শরীরে পরীক্ষা করেছেন বলে দাবি করা হয়েছে। এই পরীক্ষাটি চালানোর জন্য, গবেষকরা বানরের উপর প্রয়োগ করে যা একটি চিন বায়োফর্মাসিউটিক্যাল সংস্থা সিনোভাক বায়োটেক তৈরি করেছে। 

<p>করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত বানরগুলিকে এই সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের একটি ডোজ ইনজেকশনের মাধ্যমে দেওয়া হয়েছিল। পরে দেখা গিয়েছে এই টেস্টে করোনা ভাইরাস থেকে অনেকাংশে সুরক্ষিত ছিল বানরগুলি। এই ভ্যাকসিনটি বর্তমানে মানুষের উপর পরীক্ষার জন্য ক্লিনিকাল ট্রায়ালে রয়েছে। নিজেদের তৈরি করোনা প্রতিষেধকের চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য এই সংস্থা ইতিমধ্যেই আলোচনা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-এর সঙ্গে।</p>

করোনাভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত বানরগুলিকে এই সম্ভাব্য ভ্যাকসিনের একটি ডোজ ইনজেকশনের মাধ্যমে দেওয়া হয়েছিল। পরে দেখা গিয়েছে এই টেস্টে করোনা ভাইরাস থেকে অনেকাংশে সুরক্ষিত ছিল বানরগুলি। এই ভ্যাকসিনটি বর্তমানে মানুষের উপর পরীক্ষার জন্য ক্লিনিকাল ট্রায়ালে রয়েছে। নিজেদের তৈরি করোনা প্রতিষেধকের চূড়ান্ত পর্যায়ের পরীক্ষামূলক প্রয়োগের জন্য এই সংস্থা ইতিমধ্যেই আলোচনা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা-এর সঙ্গে।

<p>ফাইজার এবং বায়োনেটেক ভ্যাকসিন</p>

<p>জার্মান অংশীদার বায়োএনটেক এবং ফাইজার চারটি প্রতিষেধকের উপর পরীক্ষা চালাচ্ছে। তাদের ভ্যাকসিনের বিশেষভাবে মোদার্না ভ্যাকসিনের অনুরূপ এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে এবং এই ভ্যাকসিন পরীক্ষার জন্য ট্রায়ালগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং তারা সম্ভাব্য ভ্যাকসিনটি ৩৬০ জন সুস্থ স্বেচ্ছাসেবীর উপর পরীক্ষার পরিকল্পনা করছেন। সংস্থার দাবি এই পরীক্ষা যদি সফল হয়, তবে তারা এফডিএ-র থেকে অক্টোবরের প্রথম দিকেই জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োগের অনুমোদন চাইবে। এই সংস্থাটির দাবি, ২০২০ সালের মধ্যে ২০ মিলিয়ন (২ কোটি) ডোজ বাজারে ছাড়তে পারবে।&nbsp;</p>

ফাইজার এবং বায়োনেটেক ভ্যাকসিন

জার্মান অংশীদার বায়োএনটেক এবং ফাইজার চারটি প্রতিষেধকের উপর পরীক্ষা চালাচ্ছে। তাদের ভ্যাকসিনের বিশেষভাবে মোদার্না ভ্যাকসিনের অনুরূপ এর উপর ভিত্তি করে তৈরি করা হয়েছে এবং এই ভ্যাকসিন পরীক্ষার জন্য ট্রায়ালগুলি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত হচ্ছে এবং তারা সম্ভাব্য ভ্যাকসিনটি ৩৬০ জন সুস্থ স্বেচ্ছাসেবীর উপর পরীক্ষার পরিকল্পনা করছেন। সংস্থার দাবি এই পরীক্ষা যদি সফল হয়, তবে তারা এফডিএ-র থেকে অক্টোবরের প্রথম দিকেই জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োগের অনুমোদন চাইবে। এই সংস্থাটির দাবি, ২০২০ সালের মধ্যে ২০ মিলিয়ন (২ কোটি) ডোজ বাজারে ছাড়তে পারবে। 

<p>দ্য অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি</p>

<p>অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি তিন মাসের মধ্যে 'ChAdOx1 nCoV-19' নামে একটি ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট তৈরি করেছে। এটি সাধারণ কোল্ড ভাইরাস (অ্যাডেনোভাইরাস) এর একটি দুর্বল স্ট্রেন হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে এবং সার্স কভ ২ এর জিনগত উপাদানগুলির সঙ্গে একত্রিত করা হয়েছে। অ্যারফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট নিবিড় ভাবে এই প্রতিষেধক তৈরির কাজ করে চলেছে।&nbsp;</p>

দ্য অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি তিন মাসের মধ্যে 'ChAdOx1 nCoV-19' নামে একটি ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট তৈরি করেছে। এটি সাধারণ কোল্ড ভাইরাস (অ্যাডেনোভাইরাস) এর একটি দুর্বল স্ট্রেন হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে এবং সার্স কভ ২ এর জিনগত উপাদানগুলির সঙ্গে একত্রিত করা হয়েছে। অ্যারফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট নিবিড় ভাবে এই প্রতিষেধক তৈরির কাজ করে চলেছে। 

<p><br />
এটি দেহে করোনভাইরাস উপন্যাসের স্পাইক প্রোটিন সনাক্ত করতে সক্ষম করবে। এই ভ্যাকসিনটি এখন ক্লিনিকাল ট্রায়াল ফেজ -১ এ আছে এবং এর সুরক্ষা এবং দক্ষতা যাচাই করার জন্য ইতিমধ্যেই স্বেচ্ছাসেবীরা ইনজেকশনের ব্যবস্থাও করেছে।</p>


এটি দেহে করোনভাইরাস উপন্যাসের স্পাইক প্রোটিন সনাক্ত করতে সক্ষম করবে। এই ভ্যাকসিনটি এখন ক্লিনিকাল ট্রায়াল ফেজ -১ এ আছে এবং এর সুরক্ষা এবং দক্ষতা যাচাই করার জন্য ইতিমধ্যেই স্বেচ্ছাসেবীরা ইনজেকশনের ব্যবস্থাও করেছে।

<p>ভারতে কোভিড১৯ ভ্যাকসিন</p>

<p>সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুসারে, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর) ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের (বিবিআইএল) সঙ্গে কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছে। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে ভ্যাকসিনটি পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি (এনআইভি) এর বিচ্ছিন্ন ভাইরাসের স্ট্রেন ব্যবহার করবে। স্ট্রেনটি সফলভাবে এনআইভি থেকে বিবিআইএলে পরিবর্তিত করা হয়েছে।</p>

ভারতে কোভিড১৯ ভ্যাকসিন

সাম্প্রতিক প্রতিবেদন অনুসারে, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ (আইসিএমআর) ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের (বিবিআইএল) সঙ্গে কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছে। এটি গুরুত্বপূর্ণ যে ভ্যাকসিনটি পুনের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি (এনআইভি) এর বিচ্ছিন্ন ভাইরাসের স্ট্রেন ব্যবহার করবে। স্ট্রেনটি সফলভাবে এনআইভি থেকে বিবিআইএলে পরিবর্তিত করা হয়েছে।

<p>&nbsp;ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট (এসআইআই), যা আয়তনের ভিত্তিতে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগ্যে&nbsp;করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিন&nbsp;উত্পাদনের কাজ করছে।</p>

 ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট (এসআইআই), যা আয়তনের ভিত্তিতে বিশ্বের বৃহত্তম ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী, অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগ্যে করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য ভ্যাকসিন উত্পাদনের কাজ করছে।

<p>ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালস দ্বারা ডিএনএ বেসড টিকা</p>

<p>ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালস নামে একটি জৈবপ্রযুক্তি সংস্থা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরির জন্য ৫ মিলিয়ন ডলার সাহায্য পেয়েছিল। পেনসিলভেনিয়ার প্লাইমাথ সভাতে অবস্থিত, ফার্মাসিউটিক্যালসগুলি তার সান দিয়েগো ল্যাবটিতে একটি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরি করেছে এবং পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম পর্বের বিচার শুরু করতে প্রস্তুত রয়েছে। এই ভ্যাকসিনটির নাম রাখা হয়েছে আইএনও৪৮০০। এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা এবং সুরক্ষা পরীক্ষা করার জন্য প্রতিটি স্বেচ্ছাসেবীকে চার সপ্তাহ অন্তর দুটি ডোজ দেওয়া হবে।&nbsp;</p>

ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালস দ্বারা ডিএনএ বেসড টিকা

ইনোভিও ফার্মাসিউটিক্যালস নামে একটি জৈবপ্রযুক্তি সংস্থা করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরির জন্য ৫ মিলিয়ন ডলার সাহায্য পেয়েছিল। পেনসিলভেনিয়ার প্লাইমাথ সভাতে অবস্থিত, ফার্মাসিউটিক্যালসগুলি তার সান দিয়েগো ল্যাবটিতে একটি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন তৈরি করেছে এবং পেনসিলভেনিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম পর্বের বিচার শুরু করতে প্রস্তুত রয়েছে। এই ভ্যাকসিনটির নাম রাখা হয়েছে আইএনও৪৮০০। এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা এবং সুরক্ষা পরীক্ষা করার জন্য প্রতিটি স্বেচ্ছাসেবীকে চার সপ্তাহ অন্তর দুটি ডোজ দেওয়া হবে। 

<p>বিসিজি ভ্যাকসিন</p>

<p>ব্যাসিলাস ক্যালমেট-গেরিন (বিসিজি) লাইভ-অ্যাটেনিউটেড ভ্যাকসিন আপাতত দ্বিতীয় শেষে তৃতীয় ধাপে রয়েছে। এই ভ্যাকসিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য যক্ষার বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হয়। কোভিড১৯ এর বিরুদ্ধে আক্রান্তদের সুরক্ষায় এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা এবং সুরক্ষা পরীক্ষা করার জন্য ক্লিনিকাল ট্রায়ালে রয়েছে।<br />
&nbsp;</p>

বিসিজি ভ্যাকসিন

ব্যাসিলাস ক্যালমেট-গেরিন (বিসিজি) লাইভ-অ্যাটেনিউটেড ভ্যাকসিন আপাতত দ্বিতীয় শেষে তৃতীয় ধাপে রয়েছে। এই ভ্যাকসিন রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর জন্য যক্ষার বিরুদ্ধে ব্যবহৃত হয়। কোভিড১৯ এর বিরুদ্ধে আক্রান্তদের সুরক্ষায় এই ভ্যাকসিনের কার্যকারিতা এবং সুরক্ষা পরীক্ষা করার জন্য ক্লিনিকাল ট্রায়ালে রয়েছে।
 

loader