সর্বদল বৈঠক ছাড়াই শুরু বাদল অধিবেশন, ১৮ দিনের কর্মকাণ্ডে বিরোধীদের সামলে ১১টি বিল পাশ করানোই লক্ষ্য মোদীর

First Published 14, Sep 2020, 8:19 AM

এদেশে করোনা যখন মাথা চাড়া দিচ্ছে তখন সংসদে চলছিল বাজেট অধিবেশন। লকডাউনের কারণে গোটা দেশের মত বন্ধ হয়ে যায় সংসদও। দীর্ঘ বিরতির পর করোনার বাড়বাড়ন্তের মধ্যেই সোমবার শুরু হচ্ছে ফের সংসদ।  ১৮ দিনের এই অধিবেশনে যদিও থাকছে না কোনও প্রশ্নোত্তর পর্ব। করোনা সংক্রমণের কারণে কোপ পড়েছে সর্বদলীয় বৈঠকেও।

<p><strong>করোনার জেরেই এবারের বাদল অধিবেশনে বদলাতে হয়েছে  সংসদের একাধিক নিয়ম। এবারে প্রশ্নোত্তর পর্ব বাতিলের পাশাপাশি জিরো আওয়ার-এর জন্য ধার্য সময়েও কাটছাঁট হতে চলেছে। </strong></p>

করোনার জেরেই এবারের বাদল অধিবেশনে বদলাতে হয়েছে  সংসদের একাধিক নিয়ম। এবারে প্রশ্নোত্তর পর্ব বাতিলের পাশাপাশি জিরো আওয়ার-এর জন্য ধার্য সময়েও কাটছাঁট হতে চলেছে। 

<p><strong> প্রশ্নোত্তর পর্বে শাসক এবং বিরোধী দলের সাংসদদের মধ্যে প্রশ্ন-উত্তর চলে। একাধিক বিল ও  দেশের সমস্যাগুলি নিয়েও চলে আলোচনা। জিরো আওয়ারে সাংসদরা জনগণের গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় বিষয়গুলি উত্থাপন করে থাকেন। যদিও এই বছর তা হওয়ার উপায় নেই।</strong></p>

 প্রশ্নোত্তর পর্বে শাসক এবং বিরোধী দলের সাংসদদের মধ্যে প্রশ্ন-উত্তর চলে। একাধিক বিল ও  দেশের সমস্যাগুলি নিয়েও চলে আলোচনা। জিরো আওয়ারে সাংসদরা জনগণের গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় বিষয়গুলি উত্থাপন করে থাকেন। যদিও এই বছর তা হওয়ার উপায় নেই।

<p><strong>যদিও বিরোধীরা চান সাম্প্রতিক একাধিক ইস্যু নিয়ে মোদী সরকারের কাজের হিসেব নিতে। সীমান্ত সমস্যা, করোনা, লকডাউন, দেশের অর্থনীতি, নয়া শিক্ষাব্যবস্থার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি এবং বেশ কয়েকটি বিলের প্রসঙ্গ উত্থাপন করতে চায় প্রধান বিরোধী শিবির কংগ্রেস।</strong></p>

যদিও বিরোধীরা চান সাম্প্রতিক একাধিক ইস্যু নিয়ে মোদী সরকারের কাজের হিসেব নিতে। সীমান্ত সমস্যা, করোনা, লকডাউন, দেশের অর্থনীতি, নয়া শিক্ষাব্যবস্থার মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি এবং বেশ কয়েকটি বিলের প্রসঙ্গ উত্থাপন করতে চায় প্রধান বিরোধী শিবির কংগ্রেস।

<p><br />
<strong>করোনা আবহে সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যবিধির কড়া নজরদারি রাখা হচ্ছে সংসদে। রাখা হচ্ছে সামাজিক দূরত্বও।</strong></p>


করোনা আবহে সুরক্ষা এবং স্বাস্থ্যবিধির কড়া নজরদারি রাখা হচ্ছে সংসদে। রাখা হচ্ছে সামাজিক দূরত্বও।

<p><strong>সংসদের দুই কক্ষেই স্যানিটাইজেশন এবং সামাজিক দূরত্ব একেবারে বাধ্যতামূলক। সাংসদ, আধিকারিক কিংবা সাংবাদিক যারা সংসদে ঢুকবেন তাঁদের প্রত্যেককেই করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ হতে হবে। </strong></p>

সংসদের দুই কক্ষেই স্যানিটাইজেশন এবং সামাজিক দূরত্ব একেবারে বাধ্যতামূলক। সাংসদ, আধিকারিক কিংবা সাংবাদিক যারা সংসদে ঢুকবেন তাঁদের প্রত্যেককেই করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ হতে হবে। 

<p><strong>লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা বলেছেন, অধিবেশন শুরুর কমপক্ষে ৭২ ঘন্টা আগে সংসদ প্রাঙ্গণে প্রবেশকারী সকলকেই কোভিড পরীক্ষা করাতে হবে।বাদল অধিবেশনের প্রথম দিন লোকসভার অধিবেশন হবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা। অন্য দিনগুলিতে বিকেল ৩টে থেকে সন্ধ্যা ৭টা। </strong></p>

লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লা বলেছেন, অধিবেশন শুরুর কমপক্ষে ৭২ ঘন্টা আগে সংসদ প্রাঙ্গণে প্রবেশকারী সকলকেই কোভিড পরীক্ষা করাতে হবে।বাদল অধিবেশনের প্রথম দিন লোকসভার অধিবেশন হবে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা। অন্য দিনগুলিতে বিকেল ৩টে থেকে সন্ধ্যা ৭টা। 

<p><strong>রাজ্যসভার অধিবেশন প্রথম দিন বিকেল ৩টে থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং পরবর্তী দিনগুলিতে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বসবে।</strong></p>

রাজ্যসভার অধিবেশন প্রথম দিন বিকেল ৩টে থেকে সন্ধ্যা ৭টা এবং পরবর্তী দিনগুলিতে সকাল ৯টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত বসবে।

<p><strong>এ বছর সংসদের বাদল অধিবেশন শুরুর আগে নিয়মমাফিক সর্বদলীয় বৈঠক হল না। কোভিড-১৯-এর প্রকোপ ঠেকাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।</strong></p>

এ বছর সংসদের বাদল অধিবেশন শুরুর আগে নিয়মমাফিক সর্বদলীয় বৈঠক হল না। কোভিড-১৯-এর প্রকোপ ঠেকাতেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

<p><strong>সংসদের কোনও অধিবেশন বসার আগে, সেই অধিবেশনের অ্যাজেন্ডা, আলোচ্য বিষয়, বিল - এ সব নিয়ে সব দলের সঙ্গে আলোচনা করে নিতেই কেন্দ্র সর্বদলীয় বৈঠকের আয়োজন করে। তবে এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে কোনও সর্বদলীয় বৈঠকের আয়োজন করলেন না সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশি। </strong></p>

সংসদের কোনও অধিবেশন বসার আগে, সেই অধিবেশনের অ্যাজেন্ডা, আলোচ্য বিষয়, বিল - এ সব নিয়ে সব দলের সঙ্গে আলোচনা করে নিতেই কেন্দ্র সর্বদলীয় বৈঠকের আয়োজন করে। তবে এ বছর করোনাভাইরাসের কারণে কোনও সর্বদলীয় বৈঠকের আয়োজন করলেন না সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী প্রহ্লাদ যোশি। 

<p><br />
<strong>সর্বদল বৈঠক বাতিল করায় ক্ষুব্ধ বিরোধীরা সরকারের মনোভাব নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন।</strong><br />
 </p>


সর্বদল বৈঠক বাতিল করায় ক্ষুব্ধ বিরোধীরা সরকারের মনোভাব নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন।
 

<p><strong>লোকসভার বিষয় পরামর্শদাতা কমিটির বৈঠকে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে এক দিন ছুটি ঘোষণার দাবি করে কংগ্রেস ও তৃণমূল। তবে শাসক শিবির জানিয়ে দিয়েছে, সময় কম থাকায় এক দিন সাংসদ বন্ধ রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তবে প্রণববাবু ও অন্য যে সাংসদরা গত ছ’মাসের মধ্যে মারা গিয়েছেন, তাঁদের স্মৃতিতে সোমবার এক ঘণ্টার জন্য সংসদ বন্ধ থাকবে।</strong></p>

লোকসভার বিষয় পরামর্শদাতা কমিটির বৈঠকে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে এক দিন ছুটি ঘোষণার দাবি করে কংগ্রেস ও তৃণমূল। তবে শাসক শিবির জানিয়ে দিয়েছে, সময় কম থাকায় এক দিন সাংসদ বন্ধ রাখা সম্ভব হচ্ছে না। তবে প্রণববাবু ও অন্য যে সাংসদরা গত ছ’মাসের মধ্যে মারা গিয়েছেন, তাঁদের স্মৃতিতে সোমবার এক ঘণ্টার জন্য সংসদ বন্ধ থাকবে।

<p><strong>এ বারের অধিবেশনে আসতে চলা বিলগুলির মধ্যে ১১টি বিলে ইতিমধ্যেই অধ্যাদেশ জারি করেছে মোদী সরকার। তাই সেগুলি এ বারে পাশ করাতে মরিয়া তারা।</strong></p>

এ বারের অধিবেশনে আসতে চলা বিলগুলির মধ্যে ১১টি বিলে ইতিমধ্যেই অধ্যাদেশ জারি করেছে মোদী সরকার। তাই সেগুলি এ বারে পাশ করাতে মরিয়া তারা।

<p><strong>এবারের সংসদীয় অধিবেশনে কৃষি-বিপণন সংক্রান্ত তিনটি বিল যেগুলি নিয়ে ইতিমধ্যেই অধ্যাদেশ জারি করেছে কেন্দ্র-সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিল পাশের লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। এর মধ্যে কৃষি-বিপণন সংক্রান্ত বিলগুলি নিয়ে উত্তপ্ত হতে পারে সংসদের অধিবেশন। চলতি অধিবেশনেই সেগুলি পাশ করাতে মরিয়া মোদী সরকারকে রাজ্যসভায় ঠেকাতে পাল্টা সক্রিয় হয়েছে বিরোধীরা।  </strong></p>

এবারের সংসদীয় অধিবেশনে কৃষি-বিপণন সংক্রান্ত তিনটি বিল যেগুলি নিয়ে ইতিমধ্যেই অধ্যাদেশ জারি করেছে কেন্দ্র-সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ বিল পাশের লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছে নরেন্দ্র মোদী সরকার। এর মধ্যে কৃষি-বিপণন সংক্রান্ত বিলগুলি নিয়ে উত্তপ্ত হতে পারে সংসদের অধিবেশন। চলতি অধিবেশনেই সেগুলি পাশ করাতে মরিয়া মোদী সরকারকে রাজ্যসভায় ঠেকাতে পাল্টা সক্রিয় হয়েছে বিরোধীরা।  

<p><strong>অধ্যাদেশ জারি হয়েছিল হোমিয়োপ্যাথি সেন্ট্রাল কাউন্সিল (সংশোধনী) বিল, ২০২০ ও ‘দ্য ইন্ডিয়ান মেডিসিন সেন্ট্রাল কাউন্সিল’ (সংশোধনী), ২০২০। সোমবারই  তা লোকসভায় পাশ করানোর পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।</strong><br />
 </p>

অধ্যাদেশ জারি হয়েছিল হোমিয়োপ্যাথি সেন্ট্রাল কাউন্সিল (সংশোধনী) বিল, ২০২০ ও ‘দ্য ইন্ডিয়ান মেডিসিন সেন্ট্রাল কাউন্সিল’ (সংশোধনী), ২০২০। সোমবারই  তা লোকসভায় পাশ করানোর পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার।
 

loader