দ্বিতীয় দফায় ভাগ্য পরীক্ষা তিন তারকা প্রার্থীর, বিহার বিধানসভা ভোটে না থেকেও আছেন কানহাইয়া কুমার

First Published 2, Nov 2020, 11:19 AM

বিহার নির্বাচনের দ্বিতীয় দফায় নির্বাচন মঙ্গলবার । ১৭টি জেলার ৯৪টি কেন্দ্রে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।  তারমধ্যে ভাগ্য পরীক্ষা হবে বিহারের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লালু প্রসাদ যাদবের দুই পুত্রের। তেজস্ব ও তেজপ্রতাপের দিকে তাকিয়ে রয়েছে বিরোধী শিবির। পরীক্ষা হবে শত্রুঘ্ন সিনহার পুত্র লভ সিনহারও। অন্যদিকে বিধানসভা নির্বাচনে প্রার্থী হননি জেএনএই-র প্রাক্তন ছাত্র নেতা। বিধানসভা ভোটে না দাঁড়ালেও লড়াইয়ের ময়দানে রয়েছেন কানহাইয়া কুমার। তাঁর জয় বা পরাজয় জাতীয় রাজনীতির পাশাপাশি তাঁর ভবিষ্যৎ রাজনীতির ওপর প্রভাব ফেলবে বলে মমে করছেন বিশেষজ্ঞরা। 

<p><strong><u>রাঘোপুর কেন্দ্র</u><br />
রাষ্ট্রীয় জনতা দলের নেতা তথা বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী তেজস্বী যাদব রাঘোপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এই কেন্দ্রের তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপির শতীশ কুমার। দীর্ঘ দিন ধরেই এই কেন্দ্রটি লালুপ্রাসাদ যাদবের পরিবারের গড় হিসেবে পরিচিত। এই কেন্দ্র থেকেই ২০১৫ সালে জয়ী হয়েছিলেন তেজস্বী। তার আগে তাঁর মা রাবড়ি দেবীও এই কেন্দ্রের প্রার্থী ছিলেন।&nbsp;</strong></p>

রাঘোপুর কেন্দ্র
রাষ্ট্রীয় জনতা দলের নেতা তথা বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী তেজস্বী যাদব রাঘোপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এই কেন্দ্রের তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ বিজেপির শতীশ কুমার। দীর্ঘ দিন ধরেই এই কেন্দ্রটি লালুপ্রাসাদ যাদবের পরিবারের গড় হিসেবে পরিচিত। এই কেন্দ্র থেকেই ২০১৫ সালে জয়ী হয়েছিলেন তেজস্বী। তার আগে তাঁর মা রাবড়ি দেবীও এই কেন্দ্রের প্রার্থী ছিলেন। 

<p><strong><u>&nbsp;হাসানপুর&nbsp;</u><br />
তেজস্বী যাদবের দাদা তথা লালুপ্রসাদ যাদবের বড় ছেলে &nbsp;তেজ প্রতাপ যাদব হাসানপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এখানে তাঁর প্রাধান প্রতিপক্ষ জনতাদল ইউনাইটেডের রাজকুমার রাই। আগের নির্বাচনে মহুয়া কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন তেজপ্রতাপ। কিন্তু বিহার রাজনীতিতে গুঞ্জন ছিল মহুয়া কেন্দ্রের প্রার্থী হতে পারেন ঐশ্বর্য রাই। তাই তিনি ওই কেন্দ্র ত্যাগ করেছেন। কারণ দাম্পত্য কহলের আঁচ তিনি তাঁর রাজনৈতিক জীবনে পড়তে দিতে চান না। এখনও দেখার বিশষ হানাসপুর তেজপ্রতাপকে বিধানসভায় পাঠাতে কতটা সাহায্য করে।&nbsp;</strong></p>

 হাসানপুর 
তেজস্বী যাদবের দাদা তথা লালুপ্রসাদ যাদবের বড় ছেলে  তেজ প্রতাপ যাদব হাসানপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এখানে তাঁর প্রাধান প্রতিপক্ষ জনতাদল ইউনাইটেডের রাজকুমার রাই। আগের নির্বাচনে মহুয়া কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন তেজপ্রতাপ। কিন্তু বিহার রাজনীতিতে গুঞ্জন ছিল মহুয়া কেন্দ্রের প্রার্থী হতে পারেন ঐশ্বর্য রাই। তাই তিনি ওই কেন্দ্র ত্যাগ করেছেন। কারণ দাম্পত্য কহলের আঁচ তিনি তাঁর রাজনৈতিক জীবনে পড়তে দিতে চান না। এখনও দেখার বিশষ হানাসপুর তেজপ্রতাপকে বিধানসভায় পাঠাতে কতটা সাহায্য করে। 

<p><strong><u>বাঁকিপুর&nbsp;</u><br />
লোকসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসের খাতায় নাম লিখিয়ে ছিলেন শত্রুঘ্ন সিনহা। কিন্তু কংগ্রেসের টিকিটে তিনি সংসদে যেতে পারেননি। এবার দেখার বিষয় কংগ্রেসের টিকিটে তাঁর ছেলে লভ সিনহা বিহার বিধানসভায় যেতে পারেন কিনা। লভ সিনহা বাঁকিপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এই কেন্দ্রের তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ নীতিন নবীর। গত তিন বছর এই কেন্দ্র থেকেই নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন নীতিন। বিহারে বিজেপি যুব মোর্চার প্রধানও তিনি।&nbsp;</strong></p>

বাঁকিপুর 
লোকসভা নির্বাচনের আগেই বিজেপি ছেড়ে কংগ্রেসের খাতায় নাম লিখিয়ে ছিলেন শত্রুঘ্ন সিনহা। কিন্তু কংগ্রেসের টিকিটে তিনি সংসদে যেতে পারেননি। এবার দেখার বিষয় কংগ্রেসের টিকিটে তাঁর ছেলে লভ সিনহা বিহার বিধানসভায় যেতে পারেন কিনা। লভ সিনহা বাঁকিপুর কেন্দ্রের প্রার্থী। এই কেন্দ্রের তাঁর প্রধান প্রতিপক্ষ নীতিন নবীর। গত তিন বছর এই কেন্দ্র থেকেই নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন নীতিন। বিহারে বিজেপি যুব মোর্চার প্রধানও তিনি। 

<p><strong><u>জাহানপুর</u><br />
মধুবনি জেলার জাহানপুর কেন্দ্রে মূল লড়াই হবে আরজেডি প্রার্থী গুলাব যাদবের সঙ্গে বিজেপি প্রার্থী নীতিশ মিশ্রর। নীতিশ মিশ্র বিজেপি প্রার্থী। তাঁর বাবা জগন্নাথ মিশ্র বিহারের তিন বারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। কাকা ললিত নারায়ণ মিশ্রও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। ২০১৫ সালে এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন নীতিশ মিশ্র।&nbsp;</strong></p>

জাহানপুর
মধুবনি জেলার জাহানপুর কেন্দ্রে মূল লড়াই হবে আরজেডি প্রার্থী গুলাব যাদবের সঙ্গে বিজেপি প্রার্থী নীতিশ মিশ্রর। নীতিশ মিশ্র বিজেপি প্রার্থী। তাঁর বাবা জগন্নাথ মিশ্র বিহারের তিন বারের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। কাকা ললিত নারায়ণ মিশ্রও রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। ২০১৫ সালে এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন নীতিশ মিশ্র। 

<p><strong><u>&nbsp;মানার&nbsp;</u><br />
এই কেন্দ্রের প্রার্থী নীখিল আনন্দ। তিনি বিহার বিজেপির মুখপাত্র তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিত্যানন্দ রায়ের ঘনিষ্ঠ। নিখিলেন প্রধান প্রতিপক্ষ আরজেডির দুবারের বিধায়ক ভাই বীরেন্দ্র। আগে পেশায় সাংবাদিক ছিলেন নিখিল।বর্তমানে তিনি সর্বক্ষণের রাজনৈতিক কর্মী। &nbsp;</strong></p>

 মানার 
এই কেন্দ্রের প্রার্থী নীখিল আনন্দ। তিনি বিহার বিজেপির মুখপাত্র তথা কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিত্যানন্দ রায়ের ঘনিষ্ঠ। নিখিলেন প্রধান প্রতিপক্ষ আরজেডির দুবারের বিধায়ক ভাই বীরেন্দ্র। আগে পেশায় সাংবাদিক ছিলেন নিখিল।বর্তমানে তিনি সর্বক্ষণের রাজনৈতিক কর্মী।  

<p><strong><u>&nbsp;বেগুসরাই&nbsp;</u><br />
একটা সময় বিহারে লেনিনগ্রাদ হিসেবে পরিচিত ছিল বেগুসরাই। লোকসভা নির্বাচনে ঝড় তুললেও শেষ রক্ষা করতে পারেননি বাম প্রার্থী তথা প্রাক্তন জেএনইউর ছাত্র কানহাইয়া কুমার। এবার তাঁর নেতৃত্বে এই কেন্দ্রের নির্বাচনী ট্যাটেজি তৈরি করেছে বামেরা। আর এবারও জাতীয় স্তরে এই কেন্দ্রের দিকে নজর রয়েছে। এখানে বাম প্রার্থী অমিত ভূষণের সঙ্গে লড়াই হবে বিজেপি প্রার্থী কুন্দন সিংএর। এবার দেখার বিষয় বিজেপি প্রার্থীকে কী জেতাতে পারবেন এই কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ গিরিরাজ সিংহ।&nbsp;</strong><br />
&nbsp;</p>

 বেগুসরাই 
একটা সময় বিহারে লেনিনগ্রাদ হিসেবে পরিচিত ছিল বেগুসরাই। লোকসভা নির্বাচনে ঝড় তুললেও শেষ রক্ষা করতে পারেননি বাম প্রার্থী তথা প্রাক্তন জেএনইউর ছাত্র কানহাইয়া কুমার। এবার তাঁর নেতৃত্বে এই কেন্দ্রের নির্বাচনী ট্যাটেজি তৈরি করেছে বামেরা। আর এবারও জাতীয় স্তরে এই কেন্দ্রের দিকে নজর রয়েছে। এখানে বাম প্রার্থী অমিত ভূষণের সঙ্গে লড়াই হবে বিজেপি প্রার্থী কুন্দন সিংএর। এবার দেখার বিষয় বিজেপি প্রার্থীকে কী জেতাতে পারবেন এই কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ গিরিরাজ সিংহ। 

 

<p><strong><u>গোবিন্দগঞ্জ</u><br />
গোবিন্দগঞ্জ কেন্দ্রে এবার ত্রিমুখী লড়াই। বর্তমান বিধায়ক &nbsp;লোকজনশক্তি পার্টির রাজু তিওয়ারির সঙ্গে লড়াই হবে কংগ্রেসের ব্রিজেশ কুমার ও বিজেপির সুনীলমণী তিওয়ারির। গত ১০ বছর আগে এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী।&nbsp;</strong><br />
&nbsp;</p>

গোবিন্দগঞ্জ
গোবিন্দগঞ্জ কেন্দ্রে এবার ত্রিমুখী লড়াই। বর্তমান বিধায়ক  লোকজনশক্তি পার্টির রাজু তিওয়ারির সঙ্গে লড়াই হবে কংগ্রেসের ব্রিজেশ কুমার ও বিজেপির সুনীলমণী তিওয়ারির। গত ১০ বছর আগে এই কেন্দ্র থেকে জয়ী হয়েছিলেন বিজেপি প্রার্থী।