111

মিগ-২১ ডেল্টা উইং বিশিষ্ট যুদ্ধবিমান। ২৩ এমএম জিএসএইচ মেশিনগানের পাশাপাশি এটি ৪টি কখনোবা ২টি মিসাইল ব্যবহার করার ক্ষমতা রাখে। দীর্ঘদিন বিমানবাহিনীতে থাকার কারণে প্রয়োজন অনুসারে নানা সময়ে মিগ-২১ এ বিভিন্ন রকমের পরিবর্তন আনা হয়েছে। 

Subscribe to get breaking news alerts

211

৪৮ ফুট লম্বা, ম্যাক ১ অর্থাত্‍ সি লেভেলে এর গতি ১৩০০ কিমি প্রতিঘণ্টা হলেও এর সর্বাধিক গতি ২২০০ কিমি প্রতি ঘণ্টা।

311

বিমানটি আকাশে খুব বেশিক্ষণ থাকতে পারে না, যুদ্ধক্ষেত্রে এটাই ছিল এর বড় দুর্বলতা। তবে এসব সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মিগ-২১ আকাশযুদ্ধে অসাধারণ সাফল্য দেখিয়েছে।

411

ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় বহু বোয়িং বি-৫২, এফ-১০৫ এবং এফ-৪ ফ্যান্টম যুদ্ধবিমান কে ধ্বংস করে। ১৯৬৬ থেকে ১৯৭২ সালের মধ্যেই ৫৬টি মার্কিন বিমান মিগ-২১ এর শিকার হয়। এই সংখ্যা আরো বেশিও হতে পারে। 

511


১৯৭১ এ মিগ-২১ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় বাহিনীর হয়ে অনেকগুলি পাকিস্তানি বিমানকে ধ্বংস করেছিল।

611

ভারতীয় পাইলটরা খুব সহজেই পাকিস্তানি এফ-৮৬ স্যাবর জেট ও এফ-১০৪ এর ওপর হামলা চালাতে সক্ষম হয়েছিল। তবে মিগ-২১ চালাতে হলে খুবই দক্ষ পাইলট হওয়া প্রয়োজন।

711

তবে যান্ত্রিক গোলযোগ মিগ-২১এর বড় সমস্যা। এর সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী ভারত। পুরনো বিমানগুলিকে চালু রাখতে প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। 
 

811

 ভারতীয় বিমান বাহিনীর ‘মেরুদণ্ড’ বলা হত  মিগ-২১ যুদ্ধবিমানকে। তবে সম্প্রতি বির্তকের জালে আটকে গেছে ভারতীয় মিগ। আর বেশির ভাগ মিগ-২১ বিমানই কারিগরি ত্রুটির জন্য দুর্ঘটনা পড়েছে, মানবিক ভুলের জন্য নয়।

911

১৯৭৩-৭৪ সাল নাগাদ ভারতীয় বিমান বাহিনীতে নাম লিখিয়েছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের মিগ-২১। তার পর থেকে গত ৪৫ বছর ধরে উড়ে চলেছে ওই রুশ যুদ্ধ বিমান। একাধিক বার দুর্ঘটনায় পড়ে বিমান চালকের মৃত্যুও ঘটেছে, যার জেরে মিগ-২১-এর নামই হয়ে যায় ‘উড়ন্ত কফিন’।

1011

 বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের পর দিনই নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাক এফ-১৬ বিমানের সঙ্গে ডগ ফাইটে অংশগ্রহণ করে মিগ-২১ বাইসন। ওই যুদ্ধ বিমানটি চালাচ্ছিলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। কিন্তু, উন্নত এফ-১৬-এর হামলায় ধ্বংস হয়ে যায় অভিনন্দনের যুদ্ধ বিমান। 

1111

সম্প্রতি যে পরিসংখ্যান উঠে এসেছে তা চমকে দেওয়ার মতো। জানা গিয়েছে, ভারতের ৮৭২টি মিগ-২১ বিমানের অর্ধেকের বেশি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে দুর্ঘটনার জেরে।