রাফালে সজ্জিত বিমান বাহিনীর একসময় ‘মেরুদণ্ড’ ছিল এই যুদ্ধবিমান, পাকিস্তানও এর ভয়েই গুটিয়ে থাকতো

First Published 29, Aug 2020, 12:40 PM

আগামী ১০ সেপ্টেম্বর ভারতীয় বিমান বাহিনীর অংশ হতে চলেছে ফরাসি যুদ্ধবিমান রাফাল। রাফালের অন্তর্ভুক্তিতে এক নতুন সীমা ছুঁতে চলেছে এয়ার ফোর্স, তাতে কোনও সন্দেহ নেই। কিন্তু  দীর্ঘ ৫ দশক ধরে ভারতীয় বিমানবাহিনীতে সার্ভিস দিয়ে এসেছে মিগ ২১ । শুধু ভারতীয় বিমানবাহিনী বললে ভুল বলা হবে, ৫০ র অধিক দেশ এই বিমান ব্যবহার করছে। বর্তমানে ভারত, ক্রোয়েশিয়া এবং রোমানিয়ার বিমান বাহিনীতে এই বিমান দেখা যায়। মিগ-২১ ওরফে বালালাইকা খুব সম্ভবত মিগ সিরিজের সবচেয়ে বিখ্যাত নাম। ৬২ বছর আগে অর্থাত্‍ ১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৬ সালে এটিকে প্রথমবার আকাশে দেখা যায়। ১৯৫৯ সালে এটি সার্ভিসে আসে। বিশ্বে মিগ-২১ এর চেয়ে বেশি সুপারসনিক বিমান আর বানানো হয়নি। ৬০টিরও বেশি দেশ এখনওপর্যন্ত প্রায় সাড়ে এগারো হাজার মিগ-২১ যুদ্ধবিমান ব্যবহার করেছে। তার মধ্যে ভারতের কাছেই ছিল ৮৪০ টি।

<p><strong>মিগ-২১ ডেল্টা উইং বিশিষ্ট যুদ্ধবিমান। ২৩ এমএম জিএসএইচ মেশিনগানের পাশাপাশি এটি ৪টি কখনোবা ২টি মিসাইল ব্যবহার করার ক্ষমতা রাখে। দীর্ঘদিন বিমানবাহিনীতে থাকার কারণে প্রয়োজন অনুসারে নানা সময়ে মিগ-২১ এ বিভিন্ন রকমের পরিবর্তন আনা হয়েছে।&nbsp;</strong></p>

মিগ-২১ ডেল্টা উইং বিশিষ্ট যুদ্ধবিমান। ২৩ এমএম জিএসএইচ মেশিনগানের পাশাপাশি এটি ৪টি কখনোবা ২টি মিসাইল ব্যবহার করার ক্ষমতা রাখে। দীর্ঘদিন বিমানবাহিনীতে থাকার কারণে প্রয়োজন অনুসারে নানা সময়ে মিগ-২১ এ বিভিন্ন রকমের পরিবর্তন আনা হয়েছে। 

<p><strong>৪৮ ফুট লম্বা, ম্যাক ১ অর্থাত্‍ সি লেভেলে এর গতি ১৩০০ কিমি প্রতিঘণ্টা হলেও এর সর্বাধিক গতি ২২০০ কিমি প্রতি ঘণ্টা।</strong></p>

৪৮ ফুট লম্বা, ম্যাক ১ অর্থাত্‍ সি লেভেলে এর গতি ১৩০০ কিমি প্রতিঘণ্টা হলেও এর সর্বাধিক গতি ২২০০ কিমি প্রতি ঘণ্টা।

<p><strong>বিমানটি আকাশে খুব বেশিক্ষণ থাকতে পারে না, যুদ্ধক্ষেত্রে এটাই ছিল এর বড় দুর্বলতা। তবে এসব সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মিগ-২১ আকাশযুদ্ধে অসাধারণ সাফল্য দেখিয়েছে।</strong></p>

বিমানটি আকাশে খুব বেশিক্ষণ থাকতে পারে না, যুদ্ধক্ষেত্রে এটাই ছিল এর বড় দুর্বলতা। তবে এসব সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও মিগ-২১ আকাশযুদ্ধে অসাধারণ সাফল্য দেখিয়েছে।

<p><strong>ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় বহু বোয়িং বি-৫২, এফ-১০৫ এবং এফ-৪ ফ্যান্টম যুদ্ধবিমান কে ধ্বংস করে। ১৯৬৬ থেকে ১৯৭২ সালের মধ্যেই ৫৬টি মার্কিন বিমান মিগ-২১ এর শিকার হয়। এই সংখ্যা আরো বেশিও হতে পারে।&nbsp;</strong></p>

ভিয়েতনাম যুদ্ধের সময় বহু বোয়িং বি-৫২, এফ-১০৫ এবং এফ-৪ ফ্যান্টম যুদ্ধবিমান কে ধ্বংস করে। ১৯৬৬ থেকে ১৯৭২ সালের মধ্যেই ৫৬টি মার্কিন বিমান মিগ-২১ এর শিকার হয়। এই সংখ্যা আরো বেশিও হতে পারে। 

<p><br />
<strong>১৯৭১ এ মিগ-২১ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় বাহিনীর হয়ে অনেকগুলি পাকিস্তানি বিমানকে ধ্বংস করেছিল।</strong></p>


১৯৭১ এ মিগ-২১ বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারতীয় বাহিনীর হয়ে অনেকগুলি পাকিস্তানি বিমানকে ধ্বংস করেছিল।

<p><strong>ভারতীয় পাইলটরা খুব সহজেই পাকিস্তানি এফ-৮৬ স্যাবর জেট ও এফ-১০৪ এর ওপর হামলা চালাতে সক্ষম হয়েছিল। তবে মিগ-২১ চালাতে হলে খুবই দক্ষ পাইলট হওয়া প্রয়োজন।</strong></p>

ভারতীয় পাইলটরা খুব সহজেই পাকিস্তানি এফ-৮৬ স্যাবর জেট ও এফ-১০৪ এর ওপর হামলা চালাতে সক্ষম হয়েছিল। তবে মিগ-২১ চালাতে হলে খুবই দক্ষ পাইলট হওয়া প্রয়োজন।

<p><strong>তবে যান্ত্রিক গোলযোগ মিগ-২১এর বড় সমস্যা। এর সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী ভারত। পুরনো বিমানগুলিকে চালু রাখতে প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়।&nbsp;</strong><br />
&nbsp;</p>

তবে যান্ত্রিক গোলযোগ মিগ-২১এর বড় সমস্যা। এর সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী ভারত। পুরনো বিমানগুলিকে চালু রাখতে প্রচুর সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। 
 

<p><strong>&nbsp;ভারতীয় বিমান বাহিনীর ‘মেরুদণ্ড’ বলা হত &nbsp;মিগ-২১ যুদ্ধবিমানকে। তবে সম্প্রতি বির্তকের জালে আটকে গেছে ভারতীয় মিগ। আর বেশির ভাগ মিগ-২১ বিমানই কারিগরি ত্রুটির জন্য দুর্ঘটনা পড়েছে, মানবিক ভুলের জন্য নয়।</strong></p>

 ভারতীয় বিমান বাহিনীর ‘মেরুদণ্ড’ বলা হত  মিগ-২১ যুদ্ধবিমানকে। তবে সম্প্রতি বির্তকের জালে আটকে গেছে ভারতীয় মিগ। আর বেশির ভাগ মিগ-২১ বিমানই কারিগরি ত্রুটির জন্য দুর্ঘটনা পড়েছে, মানবিক ভুলের জন্য নয়।

<p><strong>১৯৭৩-৭৪ সাল নাগাদ ভারতীয় বিমান বাহিনীতে নাম লিখিয়েছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের মিগ-২১। তার পর থেকে গত ৪৫ বছর ধরে উড়ে চলেছে ওই রুশ যুদ্ধ বিমান। একাধিক বার দুর্ঘটনায় পড়ে বিমান চালকের মৃত্যুও ঘটেছে, যার জেরে মিগ-২১-এর নামই হয়ে যায় ‘উড়ন্ত কফিন’।</strong></p>

১৯৭৩-৭৪ সাল নাগাদ ভারতীয় বিমান বাহিনীতে নাম লিখিয়েছিল তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের মিগ-২১। তার পর থেকে গত ৪৫ বছর ধরে উড়ে চলেছে ওই রুশ যুদ্ধ বিমান। একাধিক বার দুর্ঘটনায় পড়ে বিমান চালকের মৃত্যুও ঘটেছে, যার জেরে মিগ-২১-এর নামই হয়ে যায় ‘উড়ন্ত কফিন’।

<p><strong>&nbsp;বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের পর দিনই নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাক এফ-১৬ বিমানের সঙ্গে ডগ ফাইটে অংশগ্রহণ করে মিগ-২১ বাইসন। ওই যুদ্ধ বিমানটি চালাচ্ছিলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। কিন্তু, উন্নত এফ-১৬-এর হামলায় ধ্বংস হয়ে যায় অভিনন্দনের যুদ্ধ বিমান।&nbsp;</strong></p>

 বালাকোটে এয়ারস্ট্রাইকের পর দিনই নিয়ন্ত্রণ রেখায় পাক এফ-১৬ বিমানের সঙ্গে ডগ ফাইটে অংশগ্রহণ করে মিগ-২১ বাইসন। ওই যুদ্ধ বিমানটি চালাচ্ছিলেন উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। কিন্তু, উন্নত এফ-১৬-এর হামলায় ধ্বংস হয়ে যায় অভিনন্দনের যুদ্ধ বিমান। 

<p><strong>সম্প্রতি যে পরিসংখ্যান উঠে এসেছে তা চমকে দেওয়ার মতো। জানা গিয়েছে, ভারতের ৮৭২টি মিগ-২১ বিমানের অর্ধেকের বেশি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে দুর্ঘটনার জেরে।&nbsp;</strong></p>

সম্প্রতি যে পরিসংখ্যান উঠে এসেছে তা চমকে দেওয়ার মতো। জানা গিয়েছে, ভারতের ৮৭২টি মিগ-২১ বিমানের অর্ধেকের বেশি ধ্বংস হয়ে গিয়েছে দুর্ঘটনার জেরে। 

loader