কেন আলাদা ভারত ও পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস, জানুন এদেশে ১৫ আগস্টকে বেছে নেওয়ার আসল কারণ

First Published 14, Aug 2020, 3:42 PM

দুইশ’ বছরের ব্রিটিশ শাসন থেকে ভারতীয় উপমহাদেশের মুক্তি মিলে ১৯৪৭ সালে। ওই বছর ব্রিটেনের কাছে থেকে স্বাধীনতা লাভ করে ভারত ভাগের মাধ্যমে ভারত এবং পাকিস্তান নামে দুটি দেশের জন্ম হয়। তখন থেকে ১৫ আগস্টকে ভারতের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে উদযাপন করা হয়। স্বাধীনতা সংগ্রামীদের আত্মত্যাগ ও প্রাণদানের দীর্ঘ লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে এই স্বাধীনতা অর্জন করেছে দেশ। সেই ইতিহাসকে জানতে বসলেই যে প্রশ্ন সবার আগে উঠে আসে, তা হলো ভারতের স্বাধীনতা দিবস কেন ১৫ আগস্ট পালন করা হয়? কেন এই দিনটিকেই বেছে নেওয়া হলো? আসন জেনে নেওয়া যাক সেই ইতিহাস।

<p><strong>ভারতে ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস পালিত হলেও পাকিস্তানে ১৪ আগস্ট পালিত হয় স্বাধীনতা দিবস। অথচ স্বাধীনতা আইন অনুযায়ী একটিই দিন থাকার কথা ছিল। কেন ১৫ আগস্টই ভারতের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালিত হয়? দিনটি নির্বাচনে আছে নানা গল্প। আর সেই সব গল্পের অন্যতম নায়ক ব্রিটিশ ভারতের শেষ বড়লাট লর্ড মাউন্টব্যাটেন।</strong></p>

<p>&nbsp;</p>

ভারতে ১৫ আগস্ট স্বাধীনতা দিবস পালিত হলেও পাকিস্তানে ১৪ আগস্ট পালিত হয় স্বাধীনতা দিবস। অথচ স্বাধীনতা আইন অনুযায়ী একটিই দিন থাকার কথা ছিল। কেন ১৫ আগস্টই ভারতের স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালিত হয়? দিনটি নির্বাচনে আছে নানা গল্প। আর সেই সব গল্পের অন্যতম নায়ক ব্রিটিশ ভারতের শেষ বড়লাট লর্ড মাউন্টব্যাটেন।

 

<p><strong>ভারতের শেষ ভাইসরয় লর্ড মাউন্টব্যাটেনকে ১৯৪৭ সালের ৩০ জুন ক্ষমতা হস্তান্তরের আদেশ দেয় ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। কিন্তু সেই ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আগস্ট মাস পর্যন্ত লেগে যায়।</strong></p>

ভারতের শেষ ভাইসরয় লর্ড মাউন্টব্যাটেনকে ১৯৪৭ সালের ৩০ জুন ক্ষমতা হস্তান্তরের আদেশ দেয় ব্রিটিশ পার্লামেন্ট। কিন্তু সেই ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে আগস্ট মাস পর্যন্ত লেগে যায়।

<p><strong>তৎকালীন ভারতীয় রাজনীতিবিদ সি রাজাগোপালাচারি বলেন, যদিও ১৯৪৮ সালের জুন মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করার কোন অর্থ নেই। এই চাপে লর্ড মাউন্টব্যাটেন স্বাধীনতার সময়কে এগিয়ে নিয়ে আসেন ১৯৪৭ সালের আগস্টে।</strong><br />
&nbsp;</p>

তৎকালীন ভারতীয় রাজনীতিবিদ সি রাজাগোপালাচারি বলেন, যদিও ১৯৪৮ সালের জুন মাস পর্যন্ত অপেক্ষা করার কোন অর্থ নেই। এই চাপে লর্ড মাউন্টব্যাটেন স্বাধীনতার সময়কে এগিয়ে নিয়ে আসেন ১৯৪৭ সালের আগস্টে।
 

<p><strong>সময়টা এগিয়ে আনার ক্ষেত্রে মাউন্টব্যাটেনের যুক্তি ছিল তিনি দাঙ্গা বা রক্তপাত চান না। অবশেষে দু’সপ্তাহের মধ্যে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭ পাস হয়। ওই আইনে ১৫ আগস্টকে ধরা হয় ব্রিটিশ ভারতের শেষ দিন।</strong><br />
&nbsp;</p>

সময়টা এগিয়ে আনার ক্ষেত্রে মাউন্টব্যাটেনের যুক্তি ছিল তিনি দাঙ্গা বা রক্তপাত চান না। অবশেষে দু’সপ্তাহের মধ্যে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে ভারতীয় স্বাধীনতা আইন ১৯৪৭ পাস হয়। ওই আইনে ১৫ আগস্টকে ধরা হয় ব্রিটিশ ভারতের শেষ দিন।
 

<p><strong>ল্যারি কলিন্স ও ডমিনিক লা পিয়েরের লেখা ‘ফ্রিডম অ্যাট মিডনাইটে’ বলা হয়েছে, মাউন্টব্যাটেন নিজেই স্বাধীনতার তারিখ নির্ধারণ করেছিলেন। তবে তাকে এই তারিখের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে, সেভাবে কোনো সুস্পষ্ট জবাব দেননি।</strong></p>

ল্যারি কলিন্স ও ডমিনিক লা পিয়েরের লেখা ‘ফ্রিডম অ্যাট মিডনাইটে’ বলা হয়েছে, মাউন্টব্যাটেন নিজেই স্বাধীনতার তারিখ নির্ধারণ করেছিলেন। তবে তাকে এই তারিখের ব্যাপারে জিজ্ঞাসা করা হলে, সেভাবে কোনো সুস্পষ্ট জবাব দেননি।

<p><strong>মাউন্টব্যাটেন বলেছিলেন, আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই তারিখ ঘোষণা করা হবে। তাহলে ১৫ আগস্ট কেন বেছে নিয়েছিলেন তিনি? জবাবে বলেছিলেন, ১৫ আগস্ট বেছে নেয়ার কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সেদিন জাপানের আত্মসমর্পণের দ্বিতীয় বার্ষিকী।</strong></p>

মাউন্টব্যাটেন বলেছিলেন, আগস্ট থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে এই তারিখ ঘোষণা করা হবে। তাহলে ১৫ আগস্ট কেন বেছে নিয়েছিলেন তিনি? জবাবে বলেছিলেন, ১৫ আগস্ট বেছে নেয়ার কারণ দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে সেদিন জাপানের আত্মসমর্পণের দ্বিতীয় বার্ষিকী।

<p><strong>১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়। অক্ষশক্তির কাছে আত্মসমর্পণ করে জাপান। ওই বছর জাপানের সম্রাট হিরোহিতো এক ভাষণে মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণের কথা জানান। মাউন্টব্যাটেন ছিলেন তখন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের প্রধান সেনাপতি। তিনি তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলের সঙ্গে বসে শুনেছিলেন ওই ঘোষণা। সেদিন ছিল ১৫ আগস্ট!</strong></p>

১৯৪৫ সালে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ শেষ হয়। অক্ষশক্তির কাছে আত্মসমর্পণ করে জাপান। ওই বছর জাপানের সম্রাট হিরোহিতো এক ভাষণে মিত্রবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণের কথা জানান। মাউন্টব্যাটেন ছিলেন তখন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের প্রধান সেনাপতি। তিনি তৎকালীন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী উইনস্টন চার্চিলের সঙ্গে বসে শুনেছিলেন ওই ঘোষণা। সেদিন ছিল ১৫ আগস্ট!

<p><strong>এদিকে ১৯২৯ সালের দিকে কংগ্রেসের সভাপতি থাকার সময় 'পূর্ণ স্বরাজে'র ডাক দিয়েছিলেন জওহরলাল নেহরু। তখন ২৬ জানুয়ারিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পছন্দ করা হয়। ১৯৩০ থেকে ১৯৪৬ পর্যন্ত কংগ্রেস দিনটিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করে। তবে তা ভারতে বর্তমানে প্রজাতন্ত্র দিবস হিসেবে পালিত হয়। ১৯৫০ সালের ওই দিনে স্বাধীন ভারতের প্রথম সংবিধান কার্যকর হয়।</strong></p>

এদিকে ১৯২৯ সালের দিকে কংগ্রেসের সভাপতি থাকার সময় 'পূর্ণ স্বরাজে'র ডাক দিয়েছিলেন জওহরলাল নেহরু। তখন ২৬ জানুয়ারিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পছন্দ করা হয়। ১৯৩০ থেকে ১৯৪৬ পর্যন্ত কংগ্রেস দিনটিকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করে। তবে তা ভারতে বর্তমানে প্রজাতন্ত্র দিবস হিসেবে পালিত হয়। ১৯৫০ সালের ওই দিনে স্বাধীন ভারতের প্রথম সংবিধান কার্যকর হয়।

<p><strong>পাকিস্তানে প্রথম স্মারক ডাকটিকেটে কিন্তু বলা আছে ১৫ আগস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীন পাকিস্তানে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে দেশটির প্রথম গভর্নর জেনারেল মহম্মদ আলি জিন্না বলেন, '১৫ আগস্ট স্বাধীন এবং সার্বভৌম পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস।'</strong><br />
&nbsp;</p>

পাকিস্তানে প্রথম স্মারক ডাকটিকেটে কিন্তু বলা আছে ১৫ আগস্ট পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস। স্বাধীন পাকিস্তানে জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণে দেশটির প্রথম গভর্নর জেনারেল মহম্মদ আলি জিন্না বলেন, '১৫ আগস্ট স্বাধীন এবং সার্বভৌম পাকিস্তানের স্বাধীনতা দিবস।'
 

<p><strong>১৯৪৮ সাল থেকে পাকিস্তান ১৪ আগস্টকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করতে থাকে। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট রাতটি ছিল রমজান মাসের ২৭ তারিখ। সালটি ছিল ১৩৬৬ হিজরি। ২৭ রমজানের রাতটিকে মুসলমানরা পবিত্র রজনী হিসেবে বিবেচনা করেন। সেই কারণেই সেখানে ১৪ অগস্ট পালিত হয় স্বাধীনতা দিবস।</strong></p>

১৯৪৮ সাল থেকে পাকিস্তান ১৪ আগস্টকে স্বাধীনতা দিবস হিসেবে পালন করতে থাকে। ১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট রাতটি ছিল রমজান মাসের ২৭ তারিখ। সালটি ছিল ১৩৬৬ হিজরি। ২৭ রমজানের রাতটিকে মুসলমানরা পবিত্র রজনী হিসেবে বিবেচনা করেন। সেই কারণেই সেখানে ১৪ অগস্ট পালিত হয় স্বাধীনতা দিবস।

loader