শুধু লাদাখ সীমান্তেই নয়, মহাকাশেও ভারতের উপর হামলা চালিয়েছিল চিন, কী বলছে ইসরো

First Published 23, Sep 2020, 8:52 PM

শুধু স্থলে ও সমুদ্র নয়, চিনের সম্প্রসারণবাদী পরিকল্পনাগুলি মহাকাশেও পৌঁছে গিয়েছে। সম্প্রতি, মার্কিন এক থিঙ্কট্যাঙ্ক তাদের প্রতিবেদনে এমনই দাবি করেছে। এমনকী, এরমধ্যে ভারতের বেশ কয়েকটি কৃত্রিম উপগ্রহেও একাধিকবার সাইবার হামলা চালিয়েছে বেজিং। ইসরো সাইবার হামলার বিষয়টি স্বীকার করলেও দাবি করেছে, তাদের কোনও ক্ষতি কখনও হয়নি।

 

<p>চায়না অ্যারোস্পেস স্টাডিজ ইনস্টিটিউট বা সিএএসআই নামে ওই মার্কিন থিঙ্কট্যাঙ্ক সম্প্রতি এই বিষয়ে একটি ১৪২ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে তারা দাবি করেছে, ২০১২ সালে জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরি বা জেপিএল-এ চিনা নেটওয়ার্কের আওতায় থাকা একটি কম্পিউটার থেকে সাইবার আক্রমণ চালিয়েছিল।</p>

চায়না অ্যারোস্পেস স্টাডিজ ইনস্টিটিউট বা সিএএসআই নামে ওই মার্কিন থিঙ্কট্যাঙ্ক সম্প্রতি এই বিষয়ে একটি ১৪২ পৃষ্ঠার প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। তাতে তারা দাবি করেছে, ২০১২ সালে জেট প্রপালশন ল্যাবরেটরি বা জেপিএল-এ চিনা নেটওয়ার্কের আওতায় থাকা একটি কম্পিউটার থেকে সাইবার আক্রমণ চালিয়েছিল।

<p>এছাড়া ২০১২ সাল থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে বেজিং-এর পক্ষ থেকে ভারতীয় যোগাযোগ উপগ্রহগুলির বিরুদ্ধেও সাইবার হামলা চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ওই থিঙ্কট্যাঙ্ক।</p>

এছাড়া ২০১২ সাল থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে বেজিং-এর পক্ষ থেকে ভারতীয় যোগাযোগ উপগ্রহগুলির বিরুদ্ধেও সাইবার হামলা চালানো হয়েছে বলে দাবি করেছে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে যুক্ত ওই থিঙ্কট্যাঙ্ক।

<p>ইসরো সূত্রে খবর, বেশ কয়েকবারি সাইবার হুমকির মুখে পড়েছে তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা। তবে হামলার পিছনে কে বা কারা রয়েছে - সেই সাইবার-আক্রমণের উত্স নিশ্চিতভাবে চিহ্নিত করা যায়নি। তবে সতর্ক ব্যবস্থা থাকায় কোনওদিন ইসরোকে সেইসব হামলায় কোনও আপস করতে হয়নি বলেই খবর। চিনারা ক্ষতি করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে বলেই জানিয়েছেন ইসরোর পদস্থ বিজ্ঞানীরা।</p>

ইসরো সূত্রে খবর, বেশ কয়েকবারি সাইবার হুমকির মুখে পড়েছে তাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা। তবে হামলার পিছনে কে বা কারা রয়েছে - সেই সাইবার-আক্রমণের উত্স নিশ্চিতভাবে চিহ্নিত করা যায়নি। তবে সতর্ক ব্যবস্থা থাকায় কোনওদিন ইসরোকে সেইসব হামলায় কোনও আপস করতে হয়নি বলেই খবর। চিনারা ক্ষতি করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে বলেই জানিয়েছেন ইসরোর পদস্থ বিজ্ঞানীরা।

<p>মহাকাশে এই ধরণের হামলার বিরুদ্ধে প্রতিরোধের ক্ষমতা হিসাবে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে ভারত অ্যান্টি-স্যাটেলাইট (এ-স্যাট) ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তির সফল পরীক্ষা করেছিল। অর্থাৎ শত্রু উপগ্রহ ধ্বংস করার জন্য 'কাইনেটিক কিল' প্রযুক্তিতে সজ্জিত ভারত।</p>

মহাকাশে এই ধরণের হামলার বিরুদ্ধে প্রতিরোধের ক্ষমতা হিসাবে ২০১৯ সালের মার্চ মাসে ভারত অ্যান্টি-স্যাটেলাইট (এ-স্যাট) ক্ষেপণাস্ত্র প্রযুক্তির সফল পরীক্ষা করেছিল। অর্থাৎ শত্রু উপগ্রহ ধ্বংস করার জন্য 'কাইনেটিক কিল' প্রযুক্তিতে সজ্জিত ভারত।

<p>তবে সমস্যা হল, ২০০৭ সালেই চিনের হাতে এসে গিয়েছিল এ-স্যাট ইন্টারসেপ্টর। এছাড়া গ্রাউন্ড স্টেশনগুলিতেই অত্যাধুনিক সাইবার-আক্রমণ চালিয়ে মহাকাশযান বা কৃত্রিম উপগ্রহের সিস্টেমগুলি হাইজ্যাক করার ক্ষমতা রাখে তারা। স্থল ও বায়ুর পাশাপাশি মহাকাশেও রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি জ্যাম করার মতো জ্যামার সিস্টেম রয়েছে তাদের হাতে।</p>

তবে সমস্যা হল, ২০০৭ সালেই চিনের হাতে এসে গিয়েছিল এ-স্যাট ইন্টারসেপ্টর। এছাড়া গ্রাউন্ড স্টেশনগুলিতেই অত্যাধুনিক সাইবার-আক্রমণ চালিয়ে মহাকাশযান বা কৃত্রিম উপগ্রহের সিস্টেমগুলি হাইজ্যাক করার ক্ষমতা রাখে তারা। স্থল ও বায়ুর পাশাপাশি মহাকাশেও রেডিও ফ্রিকোয়েন্সি জ্যাম করার মতো জ্যামার সিস্টেম রয়েছে তাদের হাতে।

loader