চিনকে কোনঠাসা করতে ভারতকে বড় প্রস্তাব দিল জাপান, আগামী সপ্তাহেই ত্রিপাক্ষিক বৈঠক

First Published 19, Aug 2020, 11:17 PM

বেজিংয়ের আগ্রাসী রাজনৈতিক ও সামরিক পদক্ষেপের শিকার হয়েছে তিনটি দেশই। টিনের সবচেয়ে বড় সুবিধা এখনও তিন দেশ বহু ক্ষেত্রেই সাপ্লাই চেইন বা সরবরাহ শৃঙ্খলার বিষয়ে চিনের উপর নির্ভরশীল। এই অতি চিন-নির্ভরতা কাটাতে এশিয়-প্রশান্তমহাসাগরী এলাকায় বিকল্প ত্রিপাক্ষিক সাপ্লাই চেইন চালু করার বিষয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে। এই তিন পক্ষ হল ভারত, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়া।

 

<p>জানা গিয়েছে এই প্রস্তাবটি প্রথম এসেছে জাপানের তরফ থেকে। জাপানের অর্থনীতি, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রক ভারতকে জানায় টোকিও নভেম্বরের মধ্যেই এই বিকল্প সরবরাহ চেইন চালু করতে চায়।</p>

<p>&nbsp;</p>

জানা গিয়েছে এই প্রস্তাবটি প্রথম এসেছে জাপানের তরফ থেকে। জাপানের অর্থনীতি, বাণিজ্য ও শিল্প মন্ত্রক ভারতকে জানায় টোকিও নভেম্বরের মধ্যেই এই বিকল্প সরবরাহ চেইন চালু করতে চায়।

 

<p>এই সরবরাহ শৃঙ্খলাকে বলা হচ্ছে, সাপ্লাই চেইন রেসিলিয়েন্স ইনিশিয়েটিভ বা এসসিআরআই। আগামী সপ্তাহেই তিন দেশের শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রীরা এই বিষয়ে প্রথম ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হতে পারেন।</p>

<p>&nbsp;</p>

এই সরবরাহ শৃঙ্খলাকে বলা হচ্ছে, সাপ্লাই চেইন রেসিলিয়েন্স ইনিশিয়েটিভ বা এসসিআরআই। আগামী সপ্তাহেই তিন দেশের শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রীরা এই বিষয়ে প্রথম ত্রিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হতে পারেন।

 

<p>লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চিনের আগ্রাসী পদক্ষেপের প্রেক্ষিতে, জাপানের এই প্রস্তাব যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করছে নরেন্দ্র মোদী সরকার, এমনটাই জানা গিয়েছে। এর আগে এই ধরণের চিন-বিরোধী জোটের প্রস্তাবে রাজি হয়নি নয়াদিল্লি।</p>

<p>&nbsp;</p>

লাদাখের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় চিনের আগ্রাসী পদক্ষেপের প্রেক্ষিতে, জাপানের এই প্রস্তাব যথেষ্ট গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করছে নরেন্দ্র মোদী সরকার, এমনটাই জানা গিয়েছে। এর আগে এই ধরণের চিন-বিরোধী জোটের প্রস্তাবে রাজি হয়নি নয়াদিল্লি।

 

<p>কিন্তু ভারত এখন বিশ্বব্যাপী সরবরাহ শৃঙ্খলার অংশ হয়ে উঠতে চাইছে। প্রধানমন্ত্রী মোদির স্বাধীনতা দিবসের ভাষণেও এই বিষয়টি উল্লেখ করেছিলেন। ভারত-জাপান-অস্ট্রেলিয়ার সমঝোতা দিয়ে শুরু করে পরে এই শৃঙ্খলায় আসিয়ান দেশগুলিকেও জুড়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হবে।</p>

<p>&nbsp;</p>

কিন্তু ভারত এখন বিশ্বব্যাপী সরবরাহ শৃঙ্খলার অংশ হয়ে উঠতে চাইছে। প্রধানমন্ত্রী মোদির স্বাধীনতা দিবসের ভাষণেও এই বিষয়টি উল্লেখ করেছিলেন। ভারত-জাপান-অস্ট্রেলিয়ার সমঝোতা দিয়ে শুরু করে পরে এই শৃঙ্খলায় আসিয়ান দেশগুলিকেও জুড়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হবে।

 

<p>জাপানি প্রস্তাবে একইসঙ্গে ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা একটি 'অর্থনৈতিক শক্তিঘর'এ পরিণত হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে অংশীদার দেশগুলির মধ্যে পারস্পরিক পরিপূরক সম্পর্ক গড়ে উঠলে বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগও বেশি টানা যাবে।</p>

<p>&nbsp;</p>

জাপানি প্রস্তাবে একইসঙ্গে ইন্দো-প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা একটি 'অর্থনৈতিক শক্তিঘর'এ পরিণত হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে। একই সঙ্গে অংশীদার দেশগুলির মধ্যে পারস্পরিক পরিপূরক সম্পর্ক গড়ে উঠলে বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগও বেশি টানা যাবে।

 

<p>কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে জাপানি প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে জাপানি সংস্থাগুলিকে চিন থেকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ইতিমধ্যে ২ বিলিয়ন ডলারের একটি তহবিল চালু করেছেন।</p>

<p>&nbsp;</p>

কোভিড-১৯ মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে জাপানি প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে জাপানি সংস্থাগুলিকে চিন থেকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ইতিমধ্যে ২ বিলিয়ন ডলারের একটি তহবিল চালু করেছেন।

 

<p>অন্যদিকে ক্রমবর্ধমান নিরাপত্তা এবং স্বচ্ছতার উদ্বেগের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রেয়ার আর্থ মেটিরিয়াল-এর বিষয়ে একটি 'চিন মুক্ত' সরবরাহ চেন তৈরির জন্য ইতিমধ্যেই একটি চুক্তি করেছে। সব মিলিয়ে কোনঠাসা হচ্ছে বেজিং।</p>

<p>&nbsp;</p>

অন্যদিকে ক্রমবর্ধমান নিরাপত্তা এবং স্বচ্ছতার উদ্বেগের মধ্যে অস্ট্রেলিয়া এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র রেয়ার আর্থ মেটিরিয়াল-এর বিষয়ে একটি 'চিন মুক্ত' সরবরাহ চেন তৈরির জন্য ইতিমধ্যেই একটি চুক্তি করেছে। সব মিলিয়ে কোনঠাসা হচ্ছে বেজিং।

 

loader