112

সীতাভোগ

সীতাভোগ বাংলার বর্ধমান এলাকার একটি জনপ্রিয় খাবার। সীতাভোগ একটি খুব সুস্বাদু এবং দেখতে খুব আকর্ষণীয় মিষ্টি। এটি দেখতে পোলাওয়ের মতো তবে এর স্বাদ মিষ্টি। 

Subscribe to get breaking news alerts

212

জয়নগরের মোয়া

শীতকাল মানেই জয়নগরের মোয়া। ঘরে ঘরে এর প্যাকেট থাকবেই।  কনকচূড় ধানের খই, খেজুর গুড় ও গাওয়া ঘিয়ের তৈরী একটি অতি জনপ্রিয় মিষ্টি এটি। রাজ্যের দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার জয়নগর শহর এই মিষ্টির জন্য খুব বিখ্যাত। 

312

পাটিসাপটা

সেরা বাঙালি মিষ্টির মধ্যে পাটিসাপটা অন্যতম। এটি ময়দা, চালের গুড়ো, চিনি, দুধ, ক্ষীর, নারকেল ইত্যাদি দিয়ে তৈরী করা হয়। পাটিসাপটার পুর হিসেবে নারকেল এবং ক্ষীর - দুইই ব্যবহার করা হয়। নারকেল, এলাচ, গুড়, খোয়া এবং শুকনো ফলের মিশ্রণে এর স্বাদ জীবনে ভোলার নয়। 

412

পান্তুয়া

আরেকটি বাঙালি মিষ্টি, চিনির রসে ডুবে থাকা পান্তুয়ার প্রেমে যে কেউ পড়ে যেতে পারে। পান্তুয়া দুধ, সুজি, ঘি, খোয়া এবং চিনির সুস্বাদু সংমিশ্রণে তৈরি করা হয়। গুলাব জামুনের মতোই, এই পান্তুয়া বাঙালির বড় প্রাণের ও আদরের মিষ্টি। 

512

সন্দেশ

তুলনামূলকভাবে শুষ্ক মিষ্টি। সন্দেশ অনেক রকমের হতে পারে। কনডেন্সড মিল্ক সুগার এবং/অথবা গুড় দিয়ে তৈরি এই ডেজার্টটি বিভিন্ন আকার এবং ডিজাইনে তৈরি করা যেতে পারে। শীতকাল যখন পাতে নলেন গুড়ের সন্দেশ পড়াই ভালো। এছাড়াও চেখে দেখতে পারেন জলভরা সন্দেশ বা হাল আমলের চকলেট সন্দেশও। 

612

সরভাজা

এই সুস্বাদু মিষ্টিটি গভীর-ভাজা দুধের ক্রিম দিয়ে তৈরি। রেসিপিটি তৈরি করতে কিছুটা সময় লাগে তবে সরভাজা খেতে বেশি সময় লাগে না কিন্তু। ভাজা বা বেকড টুকরোগুলি শেষ পর্যন্ত একটি চিনির সিরাপে ভিজিয়ে রাখা হয়। 

712

লবঙ্গ লতিকা

লবঙ্গ লতিকা হল একটি ঐতিহ্যবাহী মিষ্টি যা বিশেষ অনুষ্ঠানে প্রস্তুত করা হয়। ময়দা দিয়ে তৈরি মিষ্টি খোয়া এবং একটি খসখসে পেস্ট্রি আচ্ছাদন যা লবঙ্গের টুকরো দিয়ে বন্ধ করা হয়। তারপর মিষ্টি ভাজা হয় এবং চিনির সিরাপের বাটিতে ঠান্ডা করার জন্য রেখে দেওয়া হয়। 

812

লেডিকেনি

লেডিকেনি বা লেডি কেনি ব্রিটিশ শাসন থেকেই একটি জনপ্রিয় বাঙালি খাবার। উনিশ শতকে ভারতের গভর্নর জেনারেল চার্লস ক্যানিংয়ের স্ত্রী লেডি ক্যানিংয়ের নামে এই খাবারটির নামকরণ করা হয়েছে। এই মিষ্টি ছানা দিয়ে তৈরি একটি হালকা বাদামী মিষ্টি বল যা ভাজা হয় এবং তারপর চিনির সিরাপে ভিজিয়ে রাখা হয়। 

912

ল্যাংচা

পূর্ব ভারতের অনেক অঞ্চলের জনপ্রিয় একটি খাবার, ল্যাংচা ময়দা এবং খোয়া দিয়ে তৈরি হয়। চিনির সিরাপে ডুবানোর আগে এটি ভাজা হয়। এই বিখ্যাত বাঙালি মিষ্টি উৎসব এবং বিশেষ অনুষ্ঠানে প্রস্তুত করা হয়। অন্যান্য বাঙালি মিষ্টির মতোই, এটিও আপনাকে এক কামড়ের পরেই এর প্রেমিক বানিয়ে তুলবে। 

1012

ক্ষীর কদম

একটি সন্দেশে মোড়ানো একটি ছোট রসগোল্লা খাওয়ার কল্পনা করুন। তাহলেই জিভে জল আসবে, আর তা সামলে নিয়ে মুখে পুরে ফেলুন ক্ষীর কদম। এটি খোয়া এবং গুঁড়ো চিনির মধ্যে ছোট ছোট ছেনা গোলক দিয়ে তৈরি। এই মিষ্টি রস কদম নামেও পরিচিত। 

1112

ছানার জিলিপি

সাধারণ জিলিপির ভক্তরা ছানার জিলিপিকে বিশেষ ভালবাসেন। কারণ এর স্বাদ অনন্য। ছানা, খোয়া এবং ময়দা দিয়ে তৈরি, এটি একটি জিলিপির মতোই দেখতে মিষ্টি, তবে একটু মোটা আকারের। 

1212

রসগোল্লা

মিষ্টির দোকানে গেলেই যে মিষ্টির দিকে সবার আগে নজর যায়, তা হল রসগোল্লা। বাঙালির সিগনেচার মিষ্টি। বাড়িতে এলে টপটপ মুখে দেন, কোথাও বেড়াতে গেলে উপহার হিসেবে হাঁড়ি ভর্তি করে দেন। আপনি যদি বাঙালি হয়ে থাকেন, তাহলে রসগোল্লার প্রেমী হবেন না এমনটা হতেই পারে না। কারণ এটি এমন একটি খাবার, যার নাম শুনলেই জিভে জল আসে। এরই ভাই হল রাজভোগ-যার কেন্দ্রে একটি সুস্বাদু স্টাফিং থাকে। সেখানে শুকনো ফল, জাফরান, এলাচ এবং আরও অনেক কিছু দিয়ে চমক দেওয়া যেতে পারে।