কনকনে ঠান্ডায় কীভাবে শীতের পোশাক যত্নে রাখবেন, জেনে নিন তার টোটকা

First Published 5, Jan 2020, 6:12 PM

 কনকনে ঠাণ্ডায় এ বছর কাবু কলকাতা সহ সারা রাজ্যেই। তার উপর শীতে অকাল বৃষ্টি নামায় ঠান্ডা আরও বেড়েছে। তাপমাত্রা বেশিরভাগ সময় স্বাভাবিকের নীচে থাকছে।  তাই অন্যান্য বছর শুধুই দার্জিলিং আর সিমলা যাওয়ার জন্য যে গরম পোশাক তোলা থাকে আলমারিতে,  সেগুলিও সবাই এবার পরা শুরু করেছে। কিন্তু শীতের পোশাক আলমারি থেকে বের করেই গায়ে দেওয়া উচিৎ নয়। এর থেকে কিন্তু অ্যালার্জি, র‍্যাশ, শ্বাসকষ্ট হতে পারে।  তাই শীতের পোশাক ব্য়বহারের আগে জেনে নিন ভালো করে তাকে যত্নে রাখার প্রয়োজনীয় সহজ উপায় গুলি।
 

শীতের কাপড় বলতে তো সোয়েটার, জ্যাকেট, মোজা, টুপি, কাঁথা, কম্বল, লেপ সবই। এইসব গরম কাপড়গুলো ব্যবহারের করার আগে রোদে দিন।

শীতের কাপড় বলতে তো সোয়েটার, জ্যাকেট, মোজা, টুপি, কাঁথা, কম্বল, লেপ সবই। এইসব গরম কাপড়গুলো ব্যবহারের করার আগে রোদে দিন।

টানা ২ থেকে ৩ দিন কড়া রোদ লাগিয়ে ঝেড়ে পরিষ্কার করুন। আর যেগুলো ধোয়ার উপযোগী সেগুলো ধুয়ে ব্যবহার করুন।

টানা ২ থেকে ৩ দিন কড়া রোদ লাগিয়ে ঝেড়ে পরিষ্কার করুন। আর যেগুলো ধোয়ার উপযোগী সেগুলো ধুয়ে ব্যবহার করুন।

সোয়েটার মূলত উলের বা পশমের হয়ে থাকে। তাই সোয়েটার ব্যবহারের আগে ধুয়ে নেয়া ভালো।

সোয়েটার মূলত উলের বা পশমের হয়ে থাকে। তাই সোয়েটার ব্যবহারের আগে ধুয়ে নেয়া ভালো।

সোয়েটার  ধুতে সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার না করে ঠাণ্ডা জলে শ্যাম্পু মিশিয়ে ধোয়া উচিত। তাতে সোয়েটার মোলায়েম থাকে। রোয়া কম উঠবে।

সোয়েটার ধুতে সাবান বা ডিটারজেন্ট ব্যবহার না করে ঠাণ্ডা জলে শ্যাম্পু মিশিয়ে ধোয়া উচিত। তাতে সোয়েটার মোলায়েম থাকে। রোয়া কম উঠবে।

শীতের পোশাককে অল্প পরিমাণ ভিনেগার মিশিয়ে নিলে কাপড়টা আরো ঝকঝকে থাকবে।

শীতের পোশাককে অল্প পরিমাণ ভিনেগার মিশিয়ে নিলে কাপড়টা আরো ঝকঝকে থাকবে।

তবে বেশি ময়লা হলে হালকা গরম জল মিশিয়ে নিয়ে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে সামান্য কচলে নিলেই ময়লা উঠে যাবে।

তবে বেশি ময়লা হলে হালকা গরম জল মিশিয়ে নিয়ে কিছুক্ষণ ভিজিয়ে রেখে সামান্য কচলে নিলেই ময়লা উঠে যাবে।

কোট আর লেদারের কাপড় ঘরে না ধুয়ে লন্ড্রিতে ড্রাই ক্লিন করিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। এতে কোট আর লেদারের আয়ু বাড়বে।

কোট আর লেদারের কাপড় ঘরে না ধুয়ে লন্ড্রিতে ড্রাই ক্লিন করিয়ে পরিষ্কার করতে হবে। এতে কোট আর লেদারের আয়ু বাড়বে।

শীতের কাপড় ব্যবহারের সময় যতটা যত্নশীল হতে হয় তেমনি ব্যবহারের পর হালকাভাবে নরম ব্রাশ দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করে হ্যাংগারে ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

শীতের কাপড় ব্যবহারের সময় যতটা যত্নশীল হতে হয় তেমনি ব্যবহারের পর হালকাভাবে নরম ব্রাশ দিয়ে ঘষে পরিষ্কার করে হ্যাংগারে ঝুলিয়ে রাখতে হবে।

লেপ ব্যবহারের আগে কড়া রোদ লাগিয়ে কভারে ভরে গায়ে দিতে হবে। তাতে রোগ জীবানুও বিদায় নেবে, সঙ্গে লেপও ভাল থাকবে।

লেপ ব্যবহারের আগে কড়া রোদ লাগিয়ে কভারে ভরে গায়ে দিতে হবে। তাতে রোগ জীবানুও বিদায় নেবে, সঙ্গে লেপও ভাল থাকবে।

শীতে সোয়েটার, চাদরের চেয়ে বেশি ময়লা হয় মোজা, টুপি ও মাফলার। তাই খেয়াল রাখুন ওগুলির প্রতি।

শীতে সোয়েটার, চাদরের চেয়ে বেশি ময়লা হয় মোজা, টুপি ও মাফলার। তাই খেয়াল রাখুন ওগুলির প্রতি।

কয়েকদিন পরপর  শীতের পোশাক সাবান অথবা ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার রাখতে হবে।

কয়েকদিন পরপর শীতের পোশাক সাবান অথবা ডিটারজেন্ট দিয়ে ভালো করে ধুয়ে পরিষ্কার রাখতে হবে।

আপনার বাড়ির, সাদা কাপড়ের বেলায় জলে ভিনিগার না মিশানোই ভালো।

আপনার বাড়ির, সাদা কাপড়ের বেলায় জলে ভিনিগার না মিশানোই ভালো।

শীতের চাদরের ক্ষেত্রেও সাবান আর ডিটারজেন্ট দিয়ে না ধুয়ে শ্যাম্পু দিয়ে ধুলে কাপড়ের উজ্জ্বলতা ঠিক থাকে

শীতের চাদরের ক্ষেত্রেও সাবান আর ডিটারজেন্ট দিয়ে না ধুয়ে শ্যাম্পু দিয়ে ধুলে কাপড়ের উজ্জ্বলতা ঠিক থাকে

একটু যত্ন করলেই ভালো থাকবে আপনার শীতের পোশাক। তাই ব্য়বহার করার পর যেখানে সেখানে ফেলে রাখবেন না।

একটু যত্ন করলেই ভালো থাকবে আপনার শীতের পোশাক। তাই ব্য়বহার করার পর যেখানে সেখানে ফেলে রাখবেন না।

কম্বল ব্যবহারের আগে ড্রাই ক্লিন করিয়ে নিলে ভালো। তাতে কম্বল দীর্ঘদিন অবধি নতুনের মত থাকে।

কম্বল ব্যবহারের আগে ড্রাই ক্লিন করিয়ে নিলে ভালো। তাতে কম্বল দীর্ঘদিন অবধি নতুনের মত থাকে।

সপ্তাহে একবার   শীতের পোশাক দুটোই রোদ লাগিয়ে ঝেড়ে রাখতে হবে।

সপ্তাহে একবার শীতের পোশাক দুটোই রোদ লাগিয়ে ঝেড়ে রাখতে হবে।

শীতের পোশাকের ধোয়ার ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক উপায় ব্য়বহার করলে আরও ভালও হয়। তাই  লেবুর রস মিশিয়ে নিলে উপকার পাওয়া যায়।

শীতের পোশাকের ধোয়ার ক্ষেত্রে প্রাকৃতিক উপায় ব্য়বহার করলে আরও ভালও হয়। তাই লেবুর রস মিশিয়ে নিলে উপকার পাওয়া যায়।

শীতের পোশাক আলমারি থেকে বের করেই গায়ে দেওয়া উচিৎ নয়। এর থেকে কিন্তু অ্যালার্জি, র‍্যাশ, শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

শীতের পোশাক আলমারি থেকে বের করেই গায়ে দেওয়া উচিৎ নয়। এর থেকে কিন্তু অ্যালার্জি, র‍্যাশ, শ্বাসকষ্ট হতে পারে।

আপনার বাড়ির শীতের যে কোনও পোশাক  ঘণ্টাখানেক ভিজিয়ে রেখে একটু কচলে নিন। দেখবেন ময়লা পরিষ্কার হয়ে গেছে।

আপনার বাড়ির শীতের যে কোনও পোশাক ঘণ্টাখানেক ভিজিয়ে রেখে একটু কচলে নিন। দেখবেন ময়লা পরিষ্কার হয়ে গেছে।

আশা করা যায়, আপনি এই পদ্ধতি গুলি অবলম্বন করলে, শীতের পোশাক পরে আরও আরাম পাবেন। নিজেকে এবং সঙ্গে আপনার শীতের পোশাকগুলিকে আরও বেশী যত্নে রাখতে পারবেন।

আশা করা যায়, আপনি এই পদ্ধতি গুলি অবলম্বন করলে, শীতের পোশাক পরে আরও আরাম পাবেন। নিজেকে এবং সঙ্গে আপনার শীতের পোশাকগুলিকে আরও বেশী যত্নে রাখতে পারবেন।

loader