এক পায়ে এভারেস্ট জয় থেকে দারিদ্র্যতাকে হারিয়ে দেশের জন্য লড়াই, আন্তর্জাতিক কন্যা সন্তান দিবসে ১০ সাহসী নারীর

First Published 11, Oct 2020, 2:32 AM

প্রতি বছর ১১ অক্টোবর দিনটি বিশ্ব জুড়ে পালিত হয় আন্তর্জাতিক কন্যা সন্তান দিবস। এই দিবসটি মেয়েদের অধিকার, সম্মান দিতে পালিত হয়। শিক্ষা, বিজ্ঞান, সাহিত্য, চিকিত্সা, কলা ও সংস্কৃতিতে সমানভাবে অংশগ্রহণ করেও নারীরা সমাজে পিছিয়ে রয়েছে। সুতরাং, সারা বিশ্বের মেয়েদের অধিকার এবং কণ্ঠস্বর উত্থাপনের জন্য যখন, এই বিশেষ দিবস উদযাপিত হয়। তাই আজ এই বিশেষ দিন উপলক্ষে, এমন কয়েকজন সফল মেয়ের কথা না বললেই নয়। যাঁরা এই পুরুষতন্ত্রের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে লড়াই করে বিভিন্ন ক্ষেত্রে নজির তৈরি করেছেন। আসুন জেনে নেওয়া যাক এমন ১০ সোনার মেয়ে যাণরা তাদের অনন্য কাজের জন্য দেশ ও বিশ্বে নজির সৃষ্টি করেছে-

<p><strong>লক্ষ্মী আগরওয়াল-</strong> একজন অ্যাসিড আক্রমণ থেকে বেঁচে ফেরা এক মেয়ে। লক্ষ্মীর স্বপ্ন ছিল সংগীতশিল্পী হওয়ার। তবে তার সঙ্গে অল্প বয়সেই ঘটে যায় একটি দুর্ঘটনা। তার পুরো জীবনটাই বদলে দেয় সেই ঘটনা। ৩২ বছর বয়সী এক ব্যক্তি লক্ষ্মীকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন, লক্ষ্মীর তখন বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর। ২০০৫ সালে তিনি যখন যুবককে বিয়ে করতে অস্বীকার করেছিলেন, তখন যুবক লক্ষ্মীর উপর অ্যাসিড নিক্ষেপ করেছিল।</p>

<p>এর পর, ২০০৬ সালে লক্ষ্মী একটি পিআইএল দায়ের করেছিলেন এবং সুপ্রিম কোর্টকে অ্যাসিড নিষিদ্ধ করার জন্য লড়াই করেছিলেন। লক্ষ্মী অ্যাসিড আক্রান্তদের অধিকারের পক্ষে কথাও বলেছেন। লক্ষ্মী খোলা বাজারে অ্যাসিডের বিক্রি বন্ধের বিষয়ে সোচ্চার হন। লক্ষ্মী ইউনিসেফের মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রক, পানীয় জল ও স্যানিটেশন মন্ত্রনালয় এবং তাঁর প্রচার স্টপ সেল অ্যাসিডের জন্য 'আন্তর্জাতিক মহিলা ক্ষমতায়ন পুরষ্কার ২০১৯' পেয়েছেন। এ ছাড়াও লক্ষ্মী ২০১৪ সালের ইউএস ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা কর্তৃক ২০১৪ সালের আন্তর্জাতিক মহিলা সম্মানের পুরষ্কারও পেয়েছেন।&nbsp;</p>

লক্ষ্মী আগরওয়াল- একজন অ্যাসিড আক্রমণ থেকে বেঁচে ফেরা এক মেয়ে। লক্ষ্মীর স্বপ্ন ছিল সংগীতশিল্পী হওয়ার। তবে তার সঙ্গে অল্প বয়সেই ঘটে যায় একটি দুর্ঘটনা। তার পুরো জীবনটাই বদলে দেয় সেই ঘটনা। ৩২ বছর বয়সী এক ব্যক্তি লক্ষ্মীকে বিয়ে করতে চেয়েছিলেন, লক্ষ্মীর তখন বয়স ছিল মাত্র ১৫ বছর। ২০০৫ সালে তিনি যখন যুবককে বিয়ে করতে অস্বীকার করেছিলেন, তখন যুবক লক্ষ্মীর উপর অ্যাসিড নিক্ষেপ করেছিল।

এর পর, ২০০৬ সালে লক্ষ্মী একটি পিআইএল দায়ের করেছিলেন এবং সুপ্রিম কোর্টকে অ্যাসিড নিষিদ্ধ করার জন্য লড়াই করেছিলেন। লক্ষ্মী অ্যাসিড আক্রান্তদের অধিকারের পক্ষে কথাও বলেছেন। লক্ষ্মী খোলা বাজারে অ্যাসিডের বিক্রি বন্ধের বিষয়ে সোচ্চার হন। লক্ষ্মী ইউনিসেফের মহিলা ও শিশু উন্নয়ন মন্ত্রক, পানীয় জল ও স্যানিটেশন মন্ত্রনালয় এবং তাঁর প্রচার স্টপ সেল অ্যাসিডের জন্য 'আন্তর্জাতিক মহিলা ক্ষমতায়ন পুরষ্কার ২০১৯' পেয়েছেন। এ ছাড়াও লক্ষ্মী ২০১৪ সালের ইউএস ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা কর্তৃক ২০১৪ সালের আন্তর্জাতিক মহিলা সম্মানের পুরষ্কারও পেয়েছেন। 

<p><strong>রানী রামপাল -</strong> ভারতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক রানী রামপাল সম্প্রতি অর্জুন পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন। হরিয়ানার একটি ছোট্ট গ্রামে জন্মগ্রহণকারী, রানী তাঁর শৈশব কুঁড়ে ঘরে কাটিয়েছেন। দারিদ্র্যতার ছাপ যেখানে চারিদিকে। সমাজ ও আত্মীয়-স্বজনরাও প্রতিবাদ করেছেন তার এই খেলার জন্য। তাঁর বাবা বাড়ি চালানোর জন্য ইট বিক্রি করতেন। রানি হকি খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করলে বাবা-মা এবং আত্মীয়স্বজনরা তাতে সহযোগিতা করেননি। স্বজনরাও তাঁর বাবাকে নানান কটূক্তি করতেন এবং বলতেন, 'হকি খেলে সে কী করবে? কেবল একটি শর্ট স্কার্ট পরে দৌড়বে এবং বাড়ির সম্মান নষ্ট করবে ”" তবে আজ যখন সে আজ ভারতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক তখন সেই একই ব্যক্তিরা তাঁর পিঠ চাপড়ে তাকে অভিনন্দন জানান।</p>

রানী রামপাল - ভারতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক রানী রামপাল সম্প্রতি অর্জুন পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন। হরিয়ানার একটি ছোট্ট গ্রামে জন্মগ্রহণকারী, রানী তাঁর শৈশব কুঁড়ে ঘরে কাটিয়েছেন। দারিদ্র্যতার ছাপ যেখানে চারিদিকে। সমাজ ও আত্মীয়-স্বজনরাও প্রতিবাদ করেছেন তার এই খেলার জন্য। তাঁর বাবা বাড়ি চালানোর জন্য ইট বিক্রি করতেন। রানি হকি খেলার ইচ্ছা প্রকাশ করলে বাবা-মা এবং আত্মীয়স্বজনরা তাতে সহযোগিতা করেননি। স্বজনরাও তাঁর বাবাকে নানান কটূক্তি করতেন এবং বলতেন, 'হকি খেলে সে কী করবে? কেবল একটি শর্ট স্কার্ট পরে দৌড়বে এবং বাড়ির সম্মান নষ্ট করবে ”" তবে আজ যখন সে আজ ভারতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক তখন সেই একই ব্যক্তিরা তাঁর পিঠ চাপড়ে তাকে অভিনন্দন জানান।

<p><strong>উম্মুল খের-&nbsp;&nbsp;</strong>দিল্লির স্লাম এলাকা থেকে আইএএস অফিসার হওয়া উম্মুল খের একজন বীর যোদ্ধা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। ২০০১ সালে, উম্মুল ভাড়া বাড়িতে বাচ্চাদের টিউশন পড়ানো শুরু করে। নিজের পড়াশুনার পাশাপাশি পরিবারও খরচও চালাতেন তিনি। উম্মুল খেরের জীবনে সংগ্রাম কেবল এতেই সীমাবদ্ধ নয়। উম্মুল বোন ডিসওর্ডার অর্থাৎ হাড় ক্ষয় রোগ নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। চরম দারিদ্র্যের মধ্যে জীবনযাপন করেছেন। তার ১৬ বাড় হাড় ভেঙ্গে গিয়েছে এবং ৮ বার তার অপারেশন করতে হয়েছিল। দারিদ্রতা ও শারীরিক অক্ষমতার সঙ্গে লড়াই সত্ত্বেও টিউশনির পড়াশোনা করেই দশম ও দ্বাদশ শ্রেণিতে উম্মুল শীর্ষ স্থান অধিকার করেন। এরপরে তিনি জেআরএফ এর পাশাপাশি প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন পাশাপাশি উম্মুল ইউপিএসসির (ইউপিএসসি) প্রস্তুতি এবং প্রথম প্রয়াসে ৪২০ তম র‌্যাঙ্ক নিয়ে ইউপিএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। বর্তমানে সহকারী কমিশনার হয়ে তিনি দেশ ও সমাজের সেবা করছেন।</p>

উম্মুল খের-  দিল্লির স্লাম এলাকা থেকে আইএএস অফিসার হওয়া উম্মুল খের একজন বীর যোদ্ধা হিসেবে খ্যাতি অর্জন করেছেন। ২০০১ সালে, উম্মুল ভাড়া বাড়িতে বাচ্চাদের টিউশন পড়ানো শুরু করে। নিজের পড়াশুনার পাশাপাশি পরিবারও খরচও চালাতেন তিনি। উম্মুল খেরের জীবনে সংগ্রাম কেবল এতেই সীমাবদ্ধ নয়। উম্মুল বোন ডিসওর্ডার অর্থাৎ হাড় ক্ষয় রোগ নিয়ে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। চরম দারিদ্র্যের মধ্যে জীবনযাপন করেছেন। তার ১৬ বাড় হাড় ভেঙ্গে গিয়েছে এবং ৮ বার তার অপারেশন করতে হয়েছিল। দারিদ্রতা ও শারীরিক অক্ষমতার সঙ্গে লড়াই সত্ত্বেও টিউশনির পড়াশোনা করেই দশম ও দ্বাদশ শ্রেণিতে উম্মুল শীর্ষ স্থান অধিকার করেন। এরপরে তিনি জেআরএফ এর পাশাপাশি প্রস্তুতি শুরু করেছিলেন পাশাপাশি উম্মুল ইউপিএসসির (ইউপিএসসি) প্রস্তুতি এবং প্রথম প্রয়াসে ৪২০ তম র‌্যাঙ্ক নিয়ে ইউপিএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। বর্তমানে সহকারী কমিশনার হয়ে তিনি দেশ ও সমাজের সেবা করছেন।

<p><strong>সীমা সমৃদ্ধি কুশওয়াহা-</strong> নির্ভয়া কাণ্ডে &nbsp;ন্যায়বিচার পেল, সীমা কুশওয়াহাকে এই খ্যাতনামা মহিলা আইনজীবীর হাত ধরে। এই জয়কে আইনের বড় অংশ হিসাবে স্মরণ করা করবে ইতিহাস। ইউপির ইটওয়াহার উগরপুর গ্রামের বাসিন্দা সীমার বাবা কৃষক ছিলেন। তিনি অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত স্কুলে গিয়েছিলেন। আরও পড়াশোনা নিষিদ্ধ ছিল। তখন মেয়েদের বেশি কিছু শেখানো ঠিক নয় বলে মনে করা হত না। পঞ্চায়েত অনুরোধ করে বাবা মেয়েকে পড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। স্নাতক শেষের সময় সীমার বাবা মারা যান। কলেজ ফি দেওয়ার জন্য সেই সময় সিমার কাছে টাকা ছিল না। তিনি কোনওভাবে বাচ্চাদের টিউশন পড়িয়ে স্নাতক হন। বর্তমানে সীমা একজন শক্তিশালী মহিলা এবং তিনি মহিলাদের পক্ষে হওয়া অন্যায়ের প্রতিবাদে দৃঢ় ভাবে কাজ করছেন।</p>

সীমা সমৃদ্ধি কুশওয়াহা- নির্ভয়া কাণ্ডে  ন্যায়বিচার পেল, সীমা কুশওয়াহাকে এই খ্যাতনামা মহিলা আইনজীবীর হাত ধরে। এই জয়কে আইনের বড় অংশ হিসাবে স্মরণ করা করবে ইতিহাস। ইউপির ইটওয়াহার উগরপুর গ্রামের বাসিন্দা সীমার বাবা কৃষক ছিলেন। তিনি অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত স্কুলে গিয়েছিলেন। আরও পড়াশোনা নিষিদ্ধ ছিল। তখন মেয়েদের বেশি কিছু শেখানো ঠিক নয় বলে মনে করা হত না। পঞ্চায়েত অনুরোধ করে বাবা মেয়েকে পড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন। স্নাতক শেষের সময় সীমার বাবা মারা যান। কলেজ ফি দেওয়ার জন্য সেই সময় সিমার কাছে টাকা ছিল না। তিনি কোনওভাবে বাচ্চাদের টিউশন পড়িয়ে স্নাতক হন। বর্তমানে সীমা একজন শক্তিশালী মহিলা এবং তিনি মহিলাদের পক্ষে হওয়া অন্যায়ের প্রতিবাদে দৃঢ় ভাবে কাজ করছেন।

<p style="text-align: justify;"><strong>মেরি কম-</strong> মেরি কম যিনি ১০ টি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক স্তরে স্বর্ণপদক জিতেছেন। দেশ এবং সমস্ত ভারতীয়দের গর্বকে প্রশস্ত করে তোলে এই নাম। মেরি কম ১৮ বছর বয়সে বক্সিংয়ের জগতে আসেন। বক্সিং ক্যারিয়ারে মেরি কম অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিলেন এবং তিনিও পরিবারের বিরুদ্ধেও গিয়েছিলেন। মেরি কমের বাবা একজন কৃষক ছিলেন, তাই তিনি চাষের কাজেও বাবাকে সাহায্য করতেন। মেরি দারিদ্রতার কারণে ক্ষুধার্ত পেটে অনুশীলন করতেন। ২০০০ সালে, মেরি কম মহিলা বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে একটি দুর্দান্ত খেলা দেখান। তারপরে তিনি ২০০১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত মহিলা বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপ এআইবিএতে রৌপ্য পদক জিতেছিলেন। মেরি কমের জীবন নিয়ে একটি চলচ্চিত্রও তৈরি করা হয়েছে।&nbsp;</p>

মেরি কম- মেরি কম যিনি ১০ টি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক স্তরে স্বর্ণপদক জিতেছেন। দেশ এবং সমস্ত ভারতীয়দের গর্বকে প্রশস্ত করে তোলে এই নাম। মেরি কম ১৮ বছর বয়সে বক্সিংয়ের জগতে আসেন। বক্সিং ক্যারিয়ারে মেরি কম অনেক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছিলেন এবং তিনিও পরিবারের বিরুদ্ধেও গিয়েছিলেন। মেরি কমের বাবা একজন কৃষক ছিলেন, তাই তিনি চাষের কাজেও বাবাকে সাহায্য করতেন। মেরি দারিদ্রতার কারণে ক্ষুধার্ত পেটে অনুশীলন করতেন। ২০০০ সালে, মেরি কম মহিলা বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপে একটি দুর্দান্ত খেলা দেখান। তারপরে তিনি ২০০১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনুষ্ঠিত মহিলা বক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপ এআইবিএতে রৌপ্য পদক জিতেছিলেন। মেরি কমের জীবন নিয়ে একটি চলচ্চিত্রও তৈরি করা হয়েছে। 

<p><strong>অরুনিমা সিনহা- </strong>দুর্ঘটনার শিকার অরুনিমা সিনহা প্রথম ভারতীয় প্রতিবন্ধী মহিলা যিনি মাউন্ট এভারেস্ট জয় করেছেন। শৈশব থেকেই খেলাধুলায় আগ্রহী অরুণিমাও উত্তরপ্রদেশের সুলতানপুরে জাতীয় ভলিবল খেলোয়াড় ছিলেন। একটি দুর্ঘটনা অরুনিমার জীবনের ইতিহাস বদলে দেয়। তিনি ২০১১ সালে লখনৌ থেকে দিল্লি যাচ্ছিলেন, সেই সময় কিছু দুষ্কৃতী তাঁকে চলন্ত ট্রেন থেকে ধাক্কা মারে। সারা রাত ট্র্যাকের মাঝখানে পড়ে থাকার কারণে তাঁর বাম পা কেটে ফেলা হয়েছিল। তিনি হাসপাতালে জীবনের জন্য লড়াই চালিয়ে যান চার মাস। বাম পায়ে কৃত্রিম একটি পা যুক্ত হয়েছিল। তখন অরুণিমা তাঁর সাহসে কোনও ভাবে দমতে দেয়নি। তিনি নিয়েছিলেন এভারেস্টে আরোহণের শপথ।&nbsp;</p>

<p><br />
এভারেস্ট জয়ের পরে তিনি বিশ্বের সাতটি মহাদেশের সর্বোচ্চ শিখরকে অতিক্রম করার লক্ষ্য স্থির করেছিলেন। এই ধারাবাহিকতায় তিনি এখনও অবধি কিলিমঞ্জারো: আফ্রিকার ছাদে এবং ইউরোপের মাউন্ট এলব্রাসে জাতীয় পতাকা উড়িয়েছেন।</p>

অরুনিমা সিনহা- দুর্ঘটনার শিকার অরুনিমা সিনহা প্রথম ভারতীয় প্রতিবন্ধী মহিলা যিনি মাউন্ট এভারেস্ট জয় করেছেন। শৈশব থেকেই খেলাধুলায় আগ্রহী অরুণিমাও উত্তরপ্রদেশের সুলতানপুরে জাতীয় ভলিবল খেলোয়াড় ছিলেন। একটি দুর্ঘটনা অরুনিমার জীবনের ইতিহাস বদলে দেয়। তিনি ২০১১ সালে লখনৌ থেকে দিল্লি যাচ্ছিলেন, সেই সময় কিছু দুষ্কৃতী তাঁকে চলন্ত ট্রেন থেকে ধাক্কা মারে। সারা রাত ট্র্যাকের মাঝখানে পড়ে থাকার কারণে তাঁর বাম পা কেটে ফেলা হয়েছিল। তিনি হাসপাতালে জীবনের জন্য লড়াই চালিয়ে যান চার মাস। বাম পায়ে কৃত্রিম একটি পা যুক্ত হয়েছিল। তখন অরুণিমা তাঁর সাহসে কোনও ভাবে দমতে দেয়নি। তিনি নিয়েছিলেন এভারেস্টে আরোহণের শপথ। 


এভারেস্ট জয়ের পরে তিনি বিশ্বের সাতটি মহাদেশের সর্বোচ্চ শিখরকে অতিক্রম করার লক্ষ্য স্থির করেছিলেন। এই ধারাবাহিকতায় তিনি এখনও অবধি কিলিমঞ্জারো: আফ্রিকার ছাদে এবং ইউরোপের মাউন্ট এলব্রাসে জাতীয় পতাকা উড়িয়েছেন।

<p><strong>কারগিল গার্ল &nbsp;গুঞ্জন সাক্সেনা-</strong> আন্তর্জাতিক কন্যা সন্তান দিবস &nbsp;ভারতের বিমান বাহিনীর প্রথম মহিলা পাইলটের সম্পর্কে কথা না বললেই নয়। কারগিল গার্ল নামে পরিচিত ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট গুঞ্জন সাক্সেনা ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রথম মহিলা কর্মকর্তা। যিনি প্রথমবারের মতো যুদ্ধে নামেন। যুদ্ধকালীন সময়ে মহিলাদের যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়ার এবং ফ্লাইয়ার প্লেনটি উড়ানোর অনুমতি ছিল না। ১৯৯৪ সালে ভারতীয় বিমান বাহিনীতে ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট গুঞ্জন সাক্সেনা এবং আরও ২৫ জন মহিলা প্রশিক্ষণার্থী পাইলট সহ নির্বাচিত হন। এটি ছিল মহিলা আইএএফ প্রশিক্ষণার্থী পাইলটদের প্রথম ব্যাচ।</p>

<p>গুঞ্জন ১৯৯৯ সালের কারগিল যুদ্ধের সময় এই ইতিহাসটি তৈরি করেছিলেন। সেই সময় তিনি ভারতীয় বিমানবাহিনীতে অফিসার হয়েছিলেন। এই সময় তিনি কম্ব্যাট জোনে চিতা হেলিকপ্টারটি উড়িয়েছিলেন এবং বহু ভারতীয় সেনার জীবন বাঁচিয়েছিলেন। এই সময়ে, তিনি ইতিহাস তৈরি করেছিলেন এবং ভবিষ্যতের প্রজন্মের জন্য একটি উদাহরণ স্থাপন করেছেন।</p>

কারগিল গার্ল  গুঞ্জন সাক্সেনা- আন্তর্জাতিক কন্যা সন্তান দিবস  ভারতের বিমান বাহিনীর প্রথম মহিলা পাইলটের সম্পর্কে কথা না বললেই নয়। কারগিল গার্ল নামে পরিচিত ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট গুঞ্জন সাক্সেনা ভারতীয় বিমান বাহিনীর প্রথম মহিলা কর্মকর্তা। যিনি প্রথমবারের মতো যুদ্ধে নামেন। যুদ্ধকালীন সময়ে মহিলাদের যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়ার এবং ফ্লাইয়ার প্লেনটি উড়ানোর অনুমতি ছিল না। ১৯৯৪ সালে ভারতীয় বিমান বাহিনীতে ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট গুঞ্জন সাক্সেনা এবং আরও ২৫ জন মহিলা প্রশিক্ষণার্থী পাইলট সহ নির্বাচিত হন। এটি ছিল মহিলা আইএএফ প্রশিক্ষণার্থী পাইলটদের প্রথম ব্যাচ।

গুঞ্জন ১৯৯৯ সালের কারগিল যুদ্ধের সময় এই ইতিহাসটি তৈরি করেছিলেন। সেই সময় তিনি ভারতীয় বিমানবাহিনীতে অফিসার হয়েছিলেন। এই সময় তিনি কম্ব্যাট জোনে চিতা হেলিকপ্টারটি উড়িয়েছিলেন এবং বহু ভারতীয় সেনার জীবন বাঁচিয়েছিলেন। এই সময়ে, তিনি ইতিহাস তৈরি করেছিলেন এবং ভবিষ্যতের প্রজন্মের জন্য একটি উদাহরণ স্থাপন করেছেন।

<p><strong>গীতা এবং ববিতা ফোগত-</strong> &nbsp;এই দুটি নামই প্রতিটি ভারতীয়ের মনে রয়েছে। &nbsp;এই দুই কুস্তিগীর বোনের ক্ষমতা অবাক করার মতো। মহাভীর ফোগাতের এই দুই কন্যা কুস্তিতে ভারত-কে বিশ্বে বিখ্যাত করে তুলেছিল। এরা দুজনেই 'দাঙ্গাল গার্ল' নামে পরিচিত। দেশে হয়ে পদক আনতে, এই বোনরা পুরুষদের সঙ্গে কুস্তি করে এই জায়গায় পৌঁছেছেন। কারণ গ্রামে মহিলা কুস্তিগীর অভাব। তাই আন্তর্জাতিক গেমসের জন্য প্রস্তুতি নিতে এই পদ্ধতি। হরিয়ানায় এই চার বোন গীতা, ববিতা, ইতু এবং সংগীতা সকলেই কুস্তিবীর এবং তাদের ভাই দুশায়ন্ত ফোগাতও কুস্তিতে এসেছেন।&nbsp;</p>

গীতা এবং ববিতা ফোগত-  এই দুটি নামই প্রতিটি ভারতীয়ের মনে রয়েছে।  এই দুই কুস্তিগীর বোনের ক্ষমতা অবাক করার মতো। মহাভীর ফোগাতের এই দুই কন্যা কুস্তিতে ভারত-কে বিশ্বে বিখ্যাত করে তুলেছিল। এরা দুজনেই 'দাঙ্গাল গার্ল' নামে পরিচিত। দেশে হয়ে পদক আনতে, এই বোনরা পুরুষদের সঙ্গে কুস্তি করে এই জায়গায় পৌঁছেছেন। কারণ গ্রামে মহিলা কুস্তিগীর অভাব। তাই আন্তর্জাতিক গেমসের জন্য প্রস্তুতি নিতে এই পদ্ধতি। হরিয়ানায় এই চার বোন গীতা, ববিতা, ইতু এবং সংগীতা সকলেই কুস্তিবীর এবং তাদের ভাই দুশায়ন্ত ফোগাতও কুস্তিতে এসেছেন। 

<p><strong>মালালা- </strong>সারা বিশ্বে শান্তির দূত হয়ে উঠেছিল মালালা। পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার বাসিন্দা মালালা ১১ বছর বয়সে গুল মাকাই নামে বিবিসি উর্দুর জন্য একটি ডায়েরি লিখতে শুরু করেছিলেন। মালালা সোয়াত এলাকায় বসবাসরত বাচ্চাদের যন্ত্রণার কথা তার লেখনীর মধ্যে দিয়ে ফুটিয়ে তোলেন। তিনি তালিবান সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এবং মহিলাদের শিক্ষার জন্য সোচ্চার হয়েছিলেন। তাঁর এই বীরত্বের জন্য মালালা জাতীয় পুরষ্কার পেয়েছিলেন। এর পরে মালালাকে তালিবানরা আক্রমণ করে ও মাথায় গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করে। বিশ্বজুড়ে মানুষ এই আক্রমণের বিরুদ্ধে মালালার পক্ষে থেকে তাঁকে সমর্থন করেছিল। এর পরে আর ফিরে তাকাতে হয়নি মালালাকে। তালিবানদের আক্রমণকে পরাজিত করে বিশ্বের সামনে নারীদের কণ্ঠস্বর তুলতে তিনি আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। ২০১৪ সালে, মালালা শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন।</p>

মালালা- সারা বিশ্বে শান্তির দূত হয়ে উঠেছিল মালালা। পাকিস্তানের সোয়াত উপত্যকার বাসিন্দা মালালা ১১ বছর বয়সে গুল মাকাই নামে বিবিসি উর্দুর জন্য একটি ডায়েরি লিখতে শুরু করেছিলেন। মালালা সোয়াত এলাকায় বসবাসরত বাচ্চাদের যন্ত্রণার কথা তার লেখনীর মধ্যে দিয়ে ফুটিয়ে তোলেন। তিনি তালিবান সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে এবং মহিলাদের শিক্ষার জন্য সোচ্চার হয়েছিলেন। তাঁর এই বীরত্বের জন্য মালালা জাতীয় পুরষ্কার পেয়েছিলেন। এর পরে মালালাকে তালিবানরা আক্রমণ করে ও মাথায় গুলি করে হত্যা করার চেষ্টা করে। বিশ্বজুড়ে মানুষ এই আক্রমণের বিরুদ্ধে মালালার পক্ষে থেকে তাঁকে সমর্থন করেছিল। এর পরে আর ফিরে তাকাতে হয়নি মালালাকে। তালিবানদের আক্রমণকে পরাজিত করে বিশ্বের সামনে নারীদের কণ্ঠস্বর তুলতে তিনি আত্মপ্রকাশ করেছিলেন। ২০১৪ সালে, মালালা শান্তিতে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছিলেন।

<p><strong>শ্যুটার দাদি- </strong>উত্তর প্রদেশের বাগপাট জেলার জোহরি গ্রামের দুই মহিলা চন্দরো এবং প্রকাশি যাঁরা 'শ্যুটার দাদি' নামে পরিচিত। এই দুই মহিলা ৬০ বছর বয়সে স্থানীয় রাইফেল ক্লাবে শ্যুটিং শিখে একটি রেকর্ড তৈরি করেছেন। ৮৬ বছর বয়সী নানী প্রকাশো এবং চন্দ্রোর জীবনে এই শ্যুটিংয়ে খ্যাতি এনে দিয়েছে। গ্রামে ডাঃ রাজপালের শুটিং রেঞ্জের শ্যুটিং শিখতে তাদের নাতনীদের সঙ্গে গিয়েছিলেন এই দুই জা। একদিন যখন ঠাকুরমা লক্ষ্য করে, কোচ তার প্রশংসা করেছিলেন। চন্দ্রোর পরে, প্রকাশী কোচের নির্দেশে সুনির্দিষ্টভাবে লক্ষ্য করেছিলেন। তখন থেকেই দুজনের শুটিংয়ের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৯ এবং ২০১৬ এর মধ্যে, দাদি ২৫ টি জাতীয় শ্যুটিং চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে। শুধু তাই নয়, একটি শ্যুটিং প্রতিযোগিতায় প্রকাশী দিল্লির ডিআইজিকে হারিয়ে স্বর্ণপদকও জিতেছিলেন।</p>

শ্যুটার দাদি- উত্তর প্রদেশের বাগপাট জেলার জোহরি গ্রামের দুই মহিলা চন্দরো এবং প্রকাশি যাঁরা 'শ্যুটার দাদি' নামে পরিচিত। এই দুই মহিলা ৬০ বছর বয়সে স্থানীয় রাইফেল ক্লাবে শ্যুটিং শিখে একটি রেকর্ড তৈরি করেছেন। ৮৬ বছর বয়সী নানী প্রকাশো এবং চন্দ্রোর জীবনে এই শ্যুটিংয়ে খ্যাতি এনে দিয়েছে। গ্রামে ডাঃ রাজপালের শুটিং রেঞ্জের শ্যুটিং শিখতে তাদের নাতনীদের সঙ্গে গিয়েছিলেন এই দুই জা। একদিন যখন ঠাকুরমা লক্ষ্য করে, কোচ তার প্রশংসা করেছিলেন। চন্দ্রোর পরে, প্রকাশী কোচের নির্দেশে সুনির্দিষ্টভাবে লক্ষ্য করেছিলেন। তখন থেকেই দুজনের শুটিংয়ের যাত্রা শুরু হয়। ১৯৯ এবং ২০১৬ এর মধ্যে, দাদি ২৫ টি জাতীয় শ্যুটিং চ্যাম্পিয়নশিপ জিতেছে। শুধু তাই নয়, একটি শ্যুটিং প্রতিযোগিতায় প্রকাশী দিল্লির ডিআইজিকে হারিয়ে স্বর্ণপদকও জিতেছিলেন।

loader