বাতিল সেক্স পার্টি থেকে চুমুহীন মিলন - করোনাভাইরাস থাবায় কাতর যৌনজীবন

First Published 14, Mar 2020, 11:49 PM IST

করোনাভাইরাস আতঙ্ক গ্রাস করছে পুরো বিশ্ব-কে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আনুষ্ঠানিকভাবে একে বিশ্বব্যপী মহামারী বলে ঘোষণা করেছে। মৃতের সংখ্যা ৫০০০ ঠাড়িয়ে গিয়েছে। বড় বড় আন্তর্জাতিক সভা, বৈঠক, ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বাতিল হচ্ছে। অনেক দেশের সরকারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন স্বাস্থ্যবিধির পরামর্শ জারি করা হচ্ছে। পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে মানুষ নিজেরাই বেশ কিছু বিধিনিষেধে আটকে রাখছে নিজেদের। বহু রাষ্ট্রনেতাকে দেখা যাচ্ছে হাত মেলানো বন্ধ করে দিতে। যেখানে ছোঁয়াছুঁয়ি নিয়ে এত ভয় ভীতি সেখনে শয়নকক্ষে ঠিক কী ঘটছে? করোনাতঙ্ক কী সেখানেও প্রবেশ করেছে?

 

ঘনিষ্ঠতা চলবে না - ১৪৩৯ সালে প্লেগ নিয়ন্ত্রণ করতে ইংল্যান্ডের রাজা ষষ্ঠ হেনরি চুম্বন নিষিদ্ধ করেছিলেন। ছয় শতাব্দী পরে, ইতালির মতো বেশ কয়েকটি দেশের সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আপাতত দৈহিক মিলন বন্ধ রাখার পরামর্শ জারি করেছে।

ঘনিষ্ঠতা চলবে না - ১৪৩৯ সালে প্লেগ নিয়ন্ত্রণ করতে ইংল্যান্ডের রাজা ষষ্ঠ হেনরি চুম্বন নিষিদ্ধ করেছিলেন। ছয় শতাব্দী পরে, ইতালির মতো বেশ কয়েকটি দেশের সরকার করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আপাতত দৈহিক মিলন বন্ধ রাখার পরামর্শ জারি করেছে।

বাতিল সেক্স পার্টি - করোনা আতঙ্কের জেরে শুধু আইপিএল-এর মতো ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বা আন্তর্জাতিক সঙ্গীতানুষ্ঠানই যে বন্ধ হচ্ছে তা নয়, বিশ্বের বহু জায়গাতেই বন্ধ হয়েছে সেক্স পার্টি। যেমন ইংল্যান্ডের বাকিংহামশায়ারে 'চেমসাম ডগিং' সংস্থা ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে আগে থেকেই ডগিং পার্টির জন্য টাকা নিয়ে রেখেছিল। কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবে সবার টাকা ফিরিয়ে দিতে হয়েছে। আবার হংকংয়-এ বহুগামীরা একটি গ্রুপ করে মাসে দুইবার মিলিত হন। পানাহারের সঙ্গে সঙ্গে চলে যৌনজীবন নিয়ে আলোচনা। কখনও কখনও বিষয় আরও দূরে এগোয়। ১০০ জনেরও বেশি সদস্য এই ক্লাবের। গত মাসে তা নেমে এসেছিল ৪০ জনে।  আর এখন কেউ আসছেন না বললেই চলে।

বাতিল সেক্স পার্টি - করোনা আতঙ্কের জেরে শুধু আইপিএল-এর মতো ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বা আন্তর্জাতিক সঙ্গীতানুষ্ঠানই যে বন্ধ হচ্ছে তা নয়, বিশ্বের বহু জায়গাতেই বন্ধ হয়েছে সেক্স পার্টি। যেমন ইংল্যান্ডের বাকিংহামশায়ারে 'চেমসাম ডগিং' সংস্থা ক্লায়েন্টদের কাছ থেকে আগে থেকেই ডগিং পার্টির জন্য টাকা নিয়ে রেখেছিল। কোভিড-১৯ প্রাদুর্ভাবে সবার টাকা ফিরিয়ে দিতে হয়েছে। আবার হংকংয়-এ বহুগামীরা একটি গ্রুপ করে মাসে দুইবার মিলিত হন। পানাহারের সঙ্গে সঙ্গে চলে যৌনজীবন নিয়ে আলোচনা। কখনও কখনও বিষয় আরও দূরে এগোয়। ১০০ জনেরও বেশি সদস্য এই ক্লাবের। গত মাসে তা নেমে এসেছিল ৪০ জনে। আর এখন কেউ আসছেন না বললেই চলে।

বাতিল ডেটিং - প্রভাব পড়েছে ডেটিং-এর ক্ষেত্রেও। অনলাইন ডেটিং অ্যাপে ইতালি বা বা ইরানে মাস তিনেক আগেও কেউ গিয়েছিলেন শুনলে আর দেখা করতে চাইছে না কেউ। বস্তুত, এই মুহূর্তে অনেকেই ডেটিং অ্যাপ থেকে বিদায় নিচ্ছেন। কারণ যার সঙ্গে দেখা করতে যাবেন, তিনি সম্প্রতি কার সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন বা কোথায় ছিলেন সেসব জানা নেই। কাজেই এই মুহূর্তে বিষয়টা ঝুঁকির হয়ে যাবে।

বাতিল ডেটিং - প্রভাব পড়েছে ডেটিং-এর ক্ষেত্রেও। অনলাইন ডেটিং অ্যাপে ইতালি বা বা ইরানে মাস তিনেক আগেও কেউ গিয়েছিলেন শুনলে আর দেখা করতে চাইছে না কেউ। বস্তুত, এই মুহূর্তে অনেকেই ডেটিং অ্যাপ থেকে বিদায় নিচ্ছেন। কারণ যার সঙ্গে দেখা করতে যাবেন, তিনি সম্প্রতি কার সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন বা কোথায় ছিলেন সেসব জানা নেই। কাজেই এই মুহূর্তে বিষয়টা ঝুঁকির হয়ে যাবে।

সম্পর্কে ইতি - করোনভাইরাসে শুধু যে ডেটিং বাতিল হচ্ছে তাই নয়, অনেক ক্ষেত্রে সম্পর্কও ভেঙে যাচ্ছে। দীর্ঘদিনের প্রেমিক-প্রেমিকা। ভারতেরই দুই শহরে থাকেন। দুজনেই কাজ থেকে ছুটি নিয়ে পালা করে একে অপরের শহরে গিয়ে কয়েকদিন করে থাকতেন। মাঝেমধ্যে একসঙ্গে বেড়াতেও যেতেন। সম্পর্ক একেবারে মসৃণ ছিল ছিল তা নয়। কিন্তু, সম্প্রতি একেবারে ভেঙে গিয়েছে। কারণ সেই করোনাভাইরাস। প্রেমিক যে শহরে থাকে সেই শহরেই বেশ কয়েকজন কোভিড-১৯'এ আক্রান্ত হয়েছেন। তাই আগে থেকে বেড়াতে যাওয়া ঠিক থাকলেও প্রেমিকা আসতে রাজি হয়নি। তার মা একেবারে বেঁকে বসেন। সেই থেকে ঝগরা হতে হতে সম্পর্কে ইতি।

সম্পর্কে ইতি - করোনভাইরাসে শুধু যে ডেটিং বাতিল হচ্ছে তাই নয়, অনেক ক্ষেত্রে সম্পর্কও ভেঙে যাচ্ছে। দীর্ঘদিনের প্রেমিক-প্রেমিকা। ভারতেরই দুই শহরে থাকেন। দুজনেই কাজ থেকে ছুটি নিয়ে পালা করে একে অপরের শহরে গিয়ে কয়েকদিন করে থাকতেন। মাঝেমধ্যে একসঙ্গে বেড়াতেও যেতেন। সম্পর্ক একেবারে মসৃণ ছিল ছিল তা নয়। কিন্তু, সম্প্রতি একেবারে ভেঙে গিয়েছে। কারণ সেই করোনাভাইরাস। প্রেমিক যে শহরে থাকে সেই শহরেই বেশ কয়েকজন কোভিড-১৯'এ আক্রান্ত হয়েছেন। তাই আগে থেকে বেড়াতে যাওয়া ঠিক থাকলেও প্রেমিকা আসতে রাজি হয়নি। তার মা একেবারে বেঁকে বসেন। সেই থেকে ঝগরা হতে হতে সম্পর্কে ইতি।

যৌনতায় সংক্রমণের ভয় - এখনও কোভিড-১৯ রোগ সম্পর্কে গবেষকরা যা জানিয়েছেন, তাতে এটা পরিষ্কার যে এই রোগ ছড়ায় কাশি বা হাঁচির সময় বা কথা বলার সময় যে লালা ছিটকে আসে তার মাধ্যমে। এর সঙ্গে যৌন মিলনের কোনও সম্পর্ক নেই। তা সত্ত্বেও অনেকেই এই সময়ে যৌনতার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। অনেকেই ভয় পাচ্ছেন যদি সঙ্গমের ফলেও...

যৌনতায় সংক্রমণের ভয় - এখনও কোভিড-১৯ রোগ সম্পর্কে গবেষকরা যা জানিয়েছেন, তাতে এটা পরিষ্কার যে এই রোগ ছড়ায় কাশি বা হাঁচির সময় বা কথা বলার সময় যে লালা ছিটকে আসে তার মাধ্যমে। এর সঙ্গে যৌন মিলনের কোনও সম্পর্ক নেই। তা সত্ত্বেও অনেকেই এই সময়ে যৌনতার ঝুঁকি নিতে চাইছেন না। অনেকেই ভয় পাচ্ছেন যদি সঙ্গমের ফলেও...

চুমুহীন, ছোঁয়াহীন যৌনতা -  কলকাতারই এক তরুণী জানিয়েছেন, সঙ্গমের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রামিত হবে, এই ভয় তিনি পাননি। তাঁর অভিজ্ঞতা আরও খারাপ। তিনি জানিয়েছেন, প্রথমত চুম্বনহীন যৌনতা ভীষণ যান্ত্রিক। আর তাছাড়া এখন সবসময় মাথায় ঘুরছে উত্তেজনায় যদি চুমু খেয়ে ফেলি। যদি নিজের বা সঙ্গীর মুখে হাত দিয়ে দিই? এইসব ভাবনায় আর উপভোগ হচ্ছে না।

চুমুহীন, ছোঁয়াহীন যৌনতা - কলকাতারই এক তরুণী জানিয়েছেন, সঙ্গমের মাধ্যমে করোনাভাইরাস সংক্রামিত হবে, এই ভয় তিনি পাননি। তাঁর অভিজ্ঞতা আরও খারাপ। তিনি জানিয়েছেন, প্রথমত চুম্বনহীন যৌনতা ভীষণ যান্ত্রিক। আর তাছাড়া এখন সবসময় মাথায় ঘুরছে উত্তেজনায় যদি চুমু খেয়ে ফেলি। যদি নিজের বা সঙ্গীর মুখে হাত দিয়ে দিই? এইসব ভাবনায় আর উপভোগ হচ্ছে না।

'করোনাভাইরাস পর্ন' -   অনেকে 'করোনাভাইরাস পর্ন'-কে বিকল্প করে নিচ্ছেন। আজ্ঞে হ্যাঁ, পর্নোগ্রাফি ইন্ডাস্ট্রি সুযোগ বুঝে বাজারে এনে দিয়েছে 'করোনাভাইরাস পর্ন'। বিভিন্ন প্রাপ্ত বয়স্ক ওয়েবসাইট এখন বিচ্ছিন্নতা ওয়ার্ডে বা বাড়িতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যৌনমিলনের ভিডিওয় ভরে গিয়েছে। লকডাউনে থাকা ইতালির ফাঁকা রাস্তায় উদ্দাম যৌনতার ভিডিও-ও রয়েছে। আর আছে করোনা আক্রান্তের সঙ্গে ডাক্তার বা নার্সের যৌনতা, বা কোয়ারেন্টাইন থেকে পলাতকদের সঙ্গে পুলিশের যৌনতার ভিডিও। এই ভিডিওগুলির মধ্য দিয়ে যৌনতার ফাঁকে ফাঁকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে সচেতনতার বার্তাও দেওয়া হচ্ছে।

'করোনাভাইরাস পর্ন' - অনেকে 'করোনাভাইরাস পর্ন'-কে বিকল্প করে নিচ্ছেন। আজ্ঞে হ্যাঁ, পর্নোগ্রাফি ইন্ডাস্ট্রি সুযোগ বুঝে বাজারে এনে দিয়েছে 'করোনাভাইরাস পর্ন'। বিভিন্ন প্রাপ্ত বয়স্ক ওয়েবসাইট এখন বিচ্ছিন্নতা ওয়ার্ডে বা বাড়িতে বিচ্ছিন্ন হয়ে যৌনমিলনের ভিডিওয় ভরে গিয়েছে। লকডাউনে থাকা ইতালির ফাঁকা রাস্তায় উদ্দাম যৌনতার ভিডিও-ও রয়েছে। আর আছে করোনা আক্রান্তের সঙ্গে ডাক্তার বা নার্সের যৌনতা, বা কোয়ারেন্টাইন থেকে পলাতকদের সঙ্গে পুলিশের যৌনতার ভিডিও। এই ভিডিওগুলির মধ্য দিয়ে যৌনতার ফাঁকে ফাঁকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে সচেতনতার বার্তাও দেওয়া হচ্ছে।

মরলে আনন্দে মরব -  আবার এই আতঙ্ক, খুঁতখুতানি, অতৃপ্তির মধ্যে একদল বলছেন, অত ভেবে লাভ নেই। যদি মরতে হয় উপভোগ করে, আনন্দ করে মরব। আক্রান্ত হব ভেবে যৌনতা বন্ধ করে তারপর সত্যি সত্যি আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে আক্ষেপ থেকে যাবে। তার চেয়ে...

মরলে আনন্দে মরব - আবার এই আতঙ্ক, খুঁতখুতানি, অতৃপ্তির মধ্যে একদল বলছেন, অত ভেবে লাভ নেই। যদি মরতে হয় উপভোগ করে, আনন্দ করে মরব। আক্রান্ত হব ভেবে যৌনতা বন্ধ করে তারপর সত্যি সত্যি আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হলে আক্ষেপ থেকে যাবে। তার চেয়ে...

loader