Asianet News BanglaAsianet News Bangla

পিঠ ও কোমরে অসহ্য যন্ত্রণা হচ্ছে, দেখে নিন ব্যথা উপশম করতে কী কী মেনে চলবেন

স্বাভাবিক জীবনধারায় মেরুদণ্ডের ডিস্ক ও পিছনের পেশীগুলিতে খুব বেশি চাপ পড়ে, যা দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার কারণ তৈরি হয়। বিশ্ব মেরুদণ্ড দিবসে মেরুগণ্ডের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে ও পিঠের ব্যথা প্রতিরোধ করার জন্য কয়েকটি জরুরি টিপস দেওয়া রইল

pain in back and waist here are some ways to relieve the pain bmm
Author
Kolkata, First Published Oct 17, 2021, 7:30 AM IST
  • Facebook
  • Twitter
  • Whatsapp

পিঠে অসহ্য় ব্যথা, ভারতের অন্যতম দীর্ঘস্থায়ী একটি রোগ। এই রোগ শুধু বয়স্কদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ নয়, বরং তরুণ-তরুণীদেরও মধ্যে বাড়ছে এই রোগের প্রবণতা। যাঁরা দিনের বেশিরভাগ সময় ল্যাপটপ, কম্পিউটার বা ডেস্কে পড়াশোনা করেন বা কাজ করেন, তাঁরা সবচেয়ে বেশি পিঠের ব্যথায় ভোগেন। স্বাভাবিক জীবনধারায় মেরুদণ্ডের ডিস্ক ও পিছনের পেশীগুলিতে খুব বেশি চাপ পড়ে, যা দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার কারণ তৈরি হয়। বিশ্ব মেরুদণ্ড দিবসে মেরুগণ্ডের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে ও পিঠের ব্যথা প্রতিরোধ করার জন্য কয়েকটি জরুরি টিপস দেওয়া রইল…

বসার ভাল কৌশল
যাঁরা কম্পিউটার বা ল্যাপটপে দীর্ঘক্ষণ ধরে কাজ করেন, তাঁরা সাধারণত ঘাড়, পিঠের পেশী ও মেরুদণ্ডের ব্যথায় ভোগেন। যাঁরা মোবাইল ব্যবহার বেশি করেন, তাঁরা প্রায়শই পেটের উপর চাপ দিয়ে দেখেন। এছাড়া ঘাড়ের উপরিভাগে ও মেরুদণ্ডের উপর চাপ পড়ে। সঠিক ডেস্কটর মনিটর বা ল্যাপটপের লেবেল ঠিক রাখা, যে চেয়ারে বসে কাজ করবেন, সেটি যেন আপনার পিঠকে ঠিক করে সাপোর্ট দিতে পারে, এইসব মাথায় রাখা প্রয়োজন।

বিরতি নিন

ঘনঘন বিরতি নেওয়া কাজের ক্ষেত্রে সঠিক নয়। তবে এই ব্রেক নেওয়ার ফলে শুধু মানসিক চাপকেই নয়. মেরুদণ্ডের উপরও চাপ প্রয়োগ করে। মেরুদণ্ড ও পিঠের পেশীগুলির জন্য ব্রেক নেওয়া ভাল, কারণ পেশী ও স্নায়ুকে শক্তিশালী করে তুলতে সাহায্য করে। ঘণ্টার পর ঘণ্টা একই জায়গায় বসে থাকলে তা অস্বাস্থ্যকর ও পিঠের ব্যথাও বাড়তে থাকে।

অনুশীলন ও যোগাসন

ব্যায়াম আমাদের পেশী, জয়েন্ট, মেরুদণ্ডের ডিস্কের আর্দ্রতা পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করে ও ব্যথা উপশম করে। আংশিক ক্রাঞ্চ, ব্রিজ, হ্যামস্ট্রিং, স্ট্রেচ, ক্যাট স্ট্রেচ, কাঁধ ও ঘাড় স্বাভাবিক রাখার সহদ ও কার্যকর ব্যায়ামগুলি করতেই পারা যায়। স্বনাসন, সালভাসন, মার্জারিয়াসন ও ত্রিকোণাসনের মতো যোগাসনগুলিও পিঠের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

নিয়মিত হাঁটুন

নিয়মিত ও দ্রুত হাঁটাহাণটি করলে পিঠের ব্যথা ও মেরুদণ্ডের ব্যথা উপশম হতে পারে। ট্রাঙ্ক, কোর ও কটিদেশের পেশী মেরুদণ্ডকে দুর্বল করে ও পিঠের ব্যছা করে। হাঁটা ওজন কমাতে সাহায্য করে। মেরুদণ্ডের পেশীতে রক্তপ্রবাহ বৃদ্ধি করে। রক্তের মধ্যে অক্সিজেন ও পুষ্টির মাত্রা বাড়িয়ে তোলে। এটি পেশীর ব্যথাও উপশম করে।

সঠিক ও পুষ্টিকর খাবার

চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলাই ভাল কারণ তারা শরীরের ওজন বাড়ায়, মেরুদণ্ডে চাপ দেয় এবং পিঠের সমস্যা সৃষ্টি করে। পিঠে ব্যথা, বিশেষ করে পিঠের ব্যথা, ভারতে একটি দীর্ঘস্থায়ী রোগ। এই রোগ বয়স্কদের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয় বরং তরুণদের মধ্যে বাড়ছে। যারা কম্পিউটারে, ডেস্কে, দীর্ঘ সময় ধরে পড়াশোনা করেন বা কাজ করেন, তারা সবচেয়ে বেশি ভোগেন। একটি বসন্ত জীবনধারা মেরুদণ্ডের ডিস্ক এবং পিছনের পেশীগুলিতে খুব বেশি চাপ দেয়, যা দীর্ঘমেয়াদী জটিলতার কারণ হয়। বিশ্ব মেরুদণ্ড দিবসে, আমরা মেরুদণ্ডের স্বাস্থ্য বজায় রাখতে এবং পিঠের ব্যথা প্রতিরোধে কয়েকটি টিপস ভাগ করি।

ভাল পোষ্ট
লোকেরা, যারা তাদের কম্পিউটারে কাজ করে, তারা সাধারণত অনেকটা নিস্তেজ হয়, যা ঘাড়, পিঠের পেশী এবং মেরুদণ্ডে চাপ দেয় এবং ব্যথা করে। যারা মোবাইল ফোন ব্যবহার করে, তারা প্রায়ই তাদের পেটে শুয়ে থাকে তাদের ঘাড় খিলান করে উপরের দিকে, যা তাদের মেরুদণ্ডের ক্ষতি করে। একটি সোজা ভঙ্গি বজায় রাখা, ঘাড় এবং নীচের পিঠের সারিবদ্ধকরণ এই ধরনের ক্ষতি এবং ব্যথা প্রতিরোধ করতে পারে। সঠিক ডেস্কটপ মনিটর বা ল্যাপটপ স্তর বজায় রাখাও এক্ষেত্রে প্রয়োজনীয়।

বিরতি
সংক্ষিপ্ত, ঘন ঘন বিরতি নেওয়া কেবল কাজের সাথে সম্পর্কিত মানসিক চাপকেই কমিয়ে দেয় না বরং আমাদের মেরুদণ্ডের উপর চাপও ফেলে। মেরুদণ্ড এবং পিঠের পেশীগুলির জন্য আন্দোলন ভাল কারণ এটি পেশী এবং স্নায়ুকে শক্তিশালী করে। দীর্ঘস্থায়ী ঘন্টার জন্য এক অবস্থানে বসে থাকা অস্বাস্থ্যকর এবং এর ফলে পিঠে ব্যথা হতে পারে।

অনুশীলন এবং যোগাসন
ব্যায়াম আমাদের পেশী, জয়েন্ট, মেরুদণ্ডের ডিস্কের তরলতা পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করে এবং ব্যথা উপশম করে। আংশিক ক্রাঞ্চ, ব্রিজ, হ্যামস্ট্রিং স্ট্রেচ, হাঁটু থেকে বুক, বিড়ালের স্ট্রেচ, কাঁধ এবং ঘাড়ের রোলগুলি করা সহজ এবং কার্যকর ব্যায়াম। আধো মুখ স্বনাসন, সালভাসন, মার্জারিয়াসন এবং ত্রিকোনাসনের মতো যোগাসনও পিঠের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে।

হাঁটা
নিয়মিতভাবে দ্রুত হাঁটাহাঁটি করলে পিঠের ব্যথা এবং মেরুদণ্ডের ব্যথা উপশম হতে পারে। আমাদের আসল কাজগুলি ট্রাঙ্ক, কোর এবং কটিদেশের পেশী, মেরুদণ্ডকে দুর্বল করে এবং পিঠে ব্যথা করে। হাঁটা ওজন কমাতে সাহায্য করে, মেরুদণ্ডের পেশীতে রক্ত ​​প্রবাহ বৃদ্ধি করে এবং রক্তে অক্সিজেন এবং পুষ্টির মাত্রা বাড়ায়। এটি পেশী পুনরুজ্জীবিত করে এবং ব্যথা উপশম করে।

সঠিক খাদ্য
চর্বিযুক্ত খাবার এড়িয়ে চলাই ভালো কারণ তারা শরীরের ওজন বাড়ায়, মেরুদণ্ডে চাপ দেয় এবং পিঠের সমস্যা সৃষ্টি করে। প্রচুর পরিমাণে জল পান করা, কম চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়া, ক্যালসিয়াম, প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ করা জরুরি, যা প্রয়োজনীয় খনিজ পদার্থ আমাদের ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখে।

Follow Us:
Download App:
  • android
  • ios