আর্জেন্টিনার একটি নতুন গবেষণার ফলাফল থেকে জানা গিয়েছে যে উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের সংখ্যা বৃদ্ধির অন্যতম কারণ হল লকডাউন। ২০ মার্চ থেকে লকডাউন শুরু হওয়ার তিন মাস পরে, আর্জেন্টিনার একটি হাসপাতালে জরুরি অবস্থার জন্য আনা রোগীদের এক চতুর্থাংশ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছিলেন। এর ১৬৪৩ জন রোগীর মধ্যে ৩৯১ জন অর্থাৎ ২৩.৮ শতাংশ রোগীদের উচ্চ রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছিলেন।

আরও পড়ুন- দূরত্বতেই বাড়বে সম্পর্কের গভীরতা, মাথায় রাখুন এই বিষয় গুলি

কেন লকডাউন উচ্চ রক্তচাপের জন্য দায়ী?

চিকিত্সকদের মতে, রক্তচাপের সমস্যায় ভোগা রোগীদের সংখ্যা ২০১৯ সালের এই তিন মাসের তুলনায় এক তৃতীয়াংশ বা ৩৭ শতাংশ বেশি। "সামাজিক বিচ্ছিন্নতা এবং উচ্চ রক্তচাপের মধ্যে সম্পর্কের জন্য বেশ কয়েকটি সম্ভাব্য কারণ রয়েছে," বুয়েনস আইরেসের ফাভালোরো ফাউন্ডেশনের ইউনিভার্সিটি হাসপাতালের গবেষক মাতিয়াস ফসকো বলেছেন, মহামারী সময়ে আলস্য জীবনযাত্রার কারণে মানসিক চাপ, সীমাবদ্ধ সামাজিক মেলামেশা, অর্থনৈতিক বা পারিবারিক অসুবিধা বা আচরণ পরিবর্তন, খাদ্য, অ্যালকোহল এবং ওজন বাড়ার মতো কারণগুলি উচ্চ রক্তচাপের সমস্যার জন্য দায়ী হতে পারে। ।

আরও পড়ুন- শীতকালে রুক্ষ ত্বকের সমস্যার মুশকিল আসান, সহজেই পান তুলুন সতেজ ও উজ্জ্বল ত্বক

তিনি আরও জানিয়েছেন যে, সামাজিক বিচ্ছিন্নতার সময়, রোগীদের বয়স, লিঙ্গ, মাস, দিন বিবেচনায় বিষয় মনে রেখে জরুরি অবস্থার মধ্যে উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের সংখ্যা প্রায় ৩৭ শতাংশ। সামাজিক বিচ্ছিন্নতা শুরু হওয়ার পরে জরুরি অবস্থায় আসা আরও বহু রোগীদের মধ্যে উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা ছিল। রোগীদের উচ্চ রক্তচাপের ফ্রিকোয়েন্সিগুলি ২০১৯ সালের সামাজিক বিচ্ছিন্নতার আগের তিন মাসের সঙ্গে তুলনা করা হয়েছিল। গবেষকরা এই ধারণাটি নিশ্চিত করার জন্য গবেষণাটি চালিয়েছেন।

২১ মার্চ ২০১৯ থেকে ২৫ জুন ২০২০ সালের মধ্যে ভর্তি হওয়া প্রায় ৯৮.২ শতাংশ রোগী এই গবেষণার অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। গবেষণার ফলাফলগুলি থেকে জানা গিয়েছে যে সামাজিক বিচ্ছিন্নতার সমস্যা চলাকালীন, জরুরি অবস্থায় ভর্তি হওয়া ২৩.৮ শতাংশ রোগী উচ্চ রক্তচাপে ভুগছিলেন। এই সংখ্যাটি ২০১৯ সালের রোগীদের তুলনায় স্পষ্টতই বেশি ছিল কারণ ২০১৯ সালে এই সময়ের মধ্যে রোগীদের শতাংশ ছিল ১৭.৫ শতাংশ এবং লকডাউনের তিন মাস আগে এটি ১৫.৪ শতাংশ।