আরও এক মার্কিন প্রেসিডেন্টের পা পড়ল তাজমহল-এ। ভারত সফরের প্রথম দিন আহমেদাবাদ-এ নমস্তে ডোনাল্ড ট্রাম্প অনুষ্ঠানের পরই দলবল নিয়ে আগ্রার উদ্দেশ্যে রওনা হন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। গোধূলিবেলার সোনালি আভাতে সাদা মার্বেলের ঐতিহাসিক সৌধে অবশ্য স্ত্রী মেলানিয়া-র সঙ্গে একেবারে একাই দেখা গেল তাঁকে। প্রিয় স্ত্রী মুমতাজ মহলের জন্য মুঘল সম্রাট শাহজাহান-এর তৈরি প্রেমের অমর সৌধে একসঙ্গে হাতে হাত হাঁটলেন তাঁরা।

এই হাই দর্শনার্থীদের জন্য তাজমহল-কে বিশেষভাবে সাজিয়ে তোলা হয়েছিল। সমস্ত কমপ্লেক্সটি পরিষ্কার করা হয়। বিশেষভাবে মূলতানি মাটি দিয়ে শাহজাহান ও মুমতাজ হলের সমাধির প্রতিরূপগুলিও সাফ করেছিল এএসআই। কয়েকশ শ্রমিক ঘষে ঘষে পাথর পরিষ্কার করেন। দেওয়ালে লাগানো হয়েছে নতুন রঙ। সেই সঙ্গে সমানকরে ছাঁটা হয়, লনের ঘাস ও বাগানের গাছের পাতা।

সেই পরিষ্কার লনগুলিতে ধরে বয়ে যাওয়া ঝর্ণার পাশ দিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ও তাঁর স্ত্রীকে তাজ দেখাতে নিয়ে গেলেন এক গাইড। মার্কিন সিক্রেট সার্ভিসের পক্ষ থেকে এই কাজের জন্য তিনজন গাইডকে বাছা হয়েছিল। তার মধ্য থেকেই একজন মার্কিন প্রথম দম্পতিকে নিয়ে যান তাজ দেখাতে।

যাওয়ার পথে ডোনাল্ড এবং মেলানিয়া ট্রাম্প সেই বিখ্যাত আসনটির সামনেও থামেন, যেখানে বেশিরভাগ বিদেশী বিশিষ্ট ব্যক্তিদের হাত ধরে বসে ছবি তুলতে দেখা যায়। তাঁরাও সেখানে একবার দাঁড়িয়ে পিছনে তাজকে রেখে পিছন পিছন আসা একঝাঁক ফটোগ্রাফারদের জন্য একবার ঘুরে দাঁড়ান। হাসিমুখে ছবি তোলেন।

তাজমহল দেখার পর তিনি তাজমহলের ভিসিটর্স বুকে মুগ্ধতা প্রকাশ করেন। ভিসিটর্স বুকে কালো কালিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট লেখেন, 'তাজমহল বিস্মিত করে। ভারতীয় সংস্কৃতির সমৃদ্ধ ও বৈচিত্র্যময় সৌন্দর্যের এক কালজয়ী প্রমাণ। ভারতকে ধন্যবাদ'।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প এবং তার স্বামী জ্যারেড কুশনার-ও এই সফরে ট্রাম্পের সঙ্গী। তাঁদেরকেও আলাদাভাবে ভারতের গর্ব পৃথিবীর অষ্টম আশ্চর্যের অন্যতম এই সৌধটি পরিদর্শন করতে দেখা গিয়েছে।