এয়ার ইন্ডিয়াতেও হানা দিল করোনাভাইরাস। রবিবার অন্তত ৫ জন পাইলটের করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল ইতিবাচক এসেছে বলে জানা গিয়েছে। তবে সবচেয়ে ভয় ধরানো যে তথ্য সামনে এসেছে, সেটা হল এই পাাইলটদের প্রত্যেকেই আপাত দৃষ্টিতে সুস্থ। জ্বর নেই, না আছে গলা ব্যথা বা শুকনো কাশির সমস্যা। অর্থাৎ এঁরা প্রত্যেকেই অ্যাসিম্পটমেটিক অর্থাৎ উপসর্গহীন। সেই কারণেই আশঙ্কা করা হচ্ছে সম্ভবত আরও অনেক পাইলটই অজান্তেই কোভিড-১৯ রোগ বাধিয়ে বসেছেন।

এয়ার ইন্ডিয়া সংস্থার একটি সূত্র জানিয়েছে, আপাতত পাঁচজন পাইলটের পরীক্ষার ফলই ইতিবাচক এসেছে। এঁরা প্রত্যেকেই মুম্বইয়ের বাসিন্দা। সেখানথেকে চিনে মালবাহী উড়ান নিয়ে যাতায়াত করার দায়িত্বে নিযুক্ত ছিলেন তাঁরা। আরও জানা গিয়েছে, উড়ানের ৭২ ঘন্টা আগে প্রত্যেক বিমানচালকেরই কোভিড-১৯ পরীক্ষা করছে বিমান সংস্থাটি। শুক্রবার সেই মতো ওই আপাত দৃষ্টিতে 'সুস্থ' পাইলটদেরা সোয়াব নমুনা নিয়া পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছিল। রবিবার সেই পরীক্ষার ফলই ইতিবাচক এসেছে। 

তবে তাদের শরীর স্বাস্থ্য এতটাই স্বাভাবিক, যে বিমান সংস্থা এই ফলাফল পাওয়ার পরেও বিশ্বাস করতে পারছে না। সংস্থার এক সূত্র জানিয়েছে, ওই বিমান চালকদের থেকে পর পর নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা করা হয়েছিল। তাই তাদের সন্দেহ হয় পরীক্ষার কিটের ত্রুটির জন্যও এইরকম ফল এসে থাকতে পারে। সেইসঙ্গে, তাঁরা কোথা থেকে এই সংক্রমিত হলেন, তাই নিয়েও ধন্দ রয়েছে।

কেউ কেউ বলছেন, এই পাঁচটি পাইলটই সম্প্রতি একটি বোয়িং ৭৮৭ বিমান চালাচ্ছিলেন। তাই সেই বিমানটি জীবানুমুক্ত করা উচিত। তবে এয়ার ইন্ডিয়ার এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এই পাঁচজনের কেউই শেষ তিন সপ্তাহ কোনও বিমান চালাননি। দ্বিধা-ধাঁধা সবমিলিয়ে মিশিয়ে এয়ার ইন্ডিয়ায় শোরগোল ফেলে দিল করোনা। এই রাষ্ট্রায়ত্ব সংস্থার বিমানেই আপাতত ভারতের সিংহভাগ প্রয়োজনীয় পণ্য়ের আমদানী-রপ্তানী চলছে। সেই সঙ্গে 'বন্দে ভারত মিশন'-এর আওতায় বিদেশ থেকে ভারতীয় নাগরিকদের আনার কাজও ব্যহত হতে পারে।