শনিবার রাত থেকেই যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করে ভারতে গোলাগুলি চালাচ্ছিল পাকিস্তান। রবিবার সকাল থেকে তার পাল্টা দিয়েছে ভারতীয় সেনা। পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীরের জঙ্গি শিবিরগুলি গুঁড়িয়ে দিয়েছে। রবিবার সন্ধ্যায় হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সেনাপ্রধান বিপিন রাওয়াত। তিনি জানিয়েছেন এই হামলায় অন্তত ৬ থেকে ১০ জন পাকিস্তানি সেনা-সহ বহু সংখ্যক সন্ত্রাসবাদি খতম হয়েছে।

বিপিন রাওয়াত আরও জানিয়েছেন, ভারতীয় সেনাবাহিনী বর্তমানে জঙ্গিদের হতাহতের সংখ্যার সঠিক হিসেব কষার কাজ করছে। তিনি জানান, ৩৭০ ধারা বাতিলের পর থেকেই সেনার কাছে সীমান্তের ওপার থেকে বারবার অনুপ্রবেশের খবর এসেছে। উপত্যকা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসছে, তবে দেশের ভিতর এবং বাইরে থেকে এই শান্তি ও স্বাভাবিক অবস্থা বিঘ্নিত করার চেষ্টা চালানো হচ্ছে পর্দার আড়াল থেকে।

সেনাপ্রধান জানিয়েছেন, সম্প্রতি জঙ্গিদের ভারতীয় সীমান্তের কাছাকাছি গোরাফেরার খবর এসএছিল সেনার কাছে। পাকিস্তান সেনাবাহিনী তাদের আড়াল করার জন্যি শনিবার রাত থেকে যুদ্ধবিরতি লঙ্ঘন করেছে। তাঙধর সেক্টর দিয়ে এই জঙ্গি অনুপ্রবেশের চেষ্টা করা হয়েছিল। পাক গোলার আঘাতে দুই ভারতীয় সেনা সদস্য শহিদ হয়েছেন বলে জানিয়েছেন বিপিন রাওয়াত।

তিনি জানান এরপরই অনুপ্রবেশের উৎস, পাক অধিকৃত কাশ্মীরের জঙ্গি ঘাঁটিগুলিতে হামলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয় ভারতীয় সেনাবাহিনী। সীমান্ত পেরিয়ে জঙ্গি পরিকাঠামো ব্যাপক ক্ষতিসাধন করা গিয়েছে বলে দাবি করেছেন তিনি।

এদিকে সেনাপ্রধানের এই বক্তব্যের পরই দল্পনা তৈরি হয়েছে তাহলে কি প্রত্যঘাতের নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী স্বয়ং? হামলার পরই জানা গিয়েছিল রাজনাথ সিং তাঙধর সেক্টরের পরিস্থিতি নিয়ে সেনাপ্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াতের সঙ্গে কথা বলেছেন। প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্যক্তিগতভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করছেন। সেনাপ্রধান-ও নিয়মিত তাঁকে পরিস্থিতির সর্বশেষ খবর জানিয়েছেন।