ভারতীয় সেনাবাহিনীকে চরম লজ্জায় ফেললেন এক মেজর জেনারেল। সেনা সূত্রে জানানো হয়েছে বিশিষ্ট ওই সেনা আধিকারিক নিয়মিত ন্যাশনাল ক্যাডেট কর্পস-এর মহিলা ক্য়াডেটদের পর্নোগ্রাফিক ভিডিও পাঠাতেন। তদন্তে তা প্রমাণিত হওয়ায় চাকরি জীবনের একেবারে প্রান্তে দাঁড়িয়ে থাকা ওই মেজর জেনারেল এখন কোর্ট মার্শালের মুখোমুখি

সংবাদ সংস্থা এএনআই-কে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে এক পদস্থ সেনা কর্তা জানিয়েছেন, অভিযুক্ত মেজর জেনারেল ভারতের পশ্চিমাঞ্চলে নিযুক্ত ছিলেন। এনসিসি-র মহিলা ক্যাডেটদের দেখভাল করাটাই ছিল তাঁর দায়িত্ব। আর তা করতে গিয়েই তিনি নিয়মিত মহিলা ক্যাডেটদের পর্নোগ্রাফিক ভিডিও পাঠাতেন।

তাঁর কাছ থেকে ভিডিও পাওয়া মহিলা ক্যাডেটরা এরপর ওই মেজরের বিরুদ্ধে উচ্চ কর্তৃপক্ষের কাছে অভিযোগ জানান। তারপরই নেজরের বিরুদ্ধে তদন্ত করে সেনা। জানা গিয়েছে অল্প দিনের মধ্যেই অবসর নেবেন অভিযুক্ত সেনা আধিকারিক। কিন্তু তাই বলে কোর্ট মার্শাল এড়াতে পারবেন না। সেনা আইনের ১২৩তম ধারা অনুযায়ী অবসরের পরও সেনা সদস্যদের বিরুদ্ধে মামলা চালানো যায়।

জেনারেল বিপিন রাওয়াত সেনা প্রধানের দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে গত কয়েক বছরে এই ধরণের শৃঙ্খলাভঙ্গের ক্ষেত্রে সেনাকে কড়া পদক্ষেপ নিতে দেখা গিয়েছে। সম্প্রতি এক মহিলা সেনা অফিসারের শ্লীলতাহানির অভিযোগে এক মেজর জেনারেল ব়্যাঙ্কের সেনা অফিসারের কোর্ট মার্শাল হয়েছে। আরেক সেনা অফিসারেরও একই হাল হয়েছে এক সহকর্মীর স্ত্রীর সঙ্গে অবৈধ সম্পর্ক ধরা পড়ে যাওয়ায়। গত ২-৩ বছরে প্রায় ১০ জন সেনা অফিসারের কোর্ট মার্শাল হয়েছে। তারপরেও সেনা আধিকারিকদের মধ্য়ে শৃঙ্খলা আনা যাচ্ছে না।