লকডাউন শুরু হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই আতঙ্ক শুরু হয়েছিল রান্নার গ্য়াস নিয়ে। আর তার জেরে শুরু হয়ে গিয়েছিল যথেচ্ছ সিলিন্ডার কিনে মজুত করে রাখা। এবার তাতেই রাশ টানল ইন্ডিয়ান অয়েল। নিয়ম করা হল, একটি সিলিন্ডার নেওয়ার ১৫ দিনের মধ্য়ে আর পরের সিলিন্ডার বুক করা যাবে না।

আসলে লকডাউনের বাজারে প্য়ানিক বাইংয়ের সৌজন্য়ে রান্নার গ্য়াস নিয়েও শুরু হয়ে  গিয়েছিল কালোবাজারি।  সরকারি আশ্বাসে ভরসা রাখতে না-পেরে গ্য়াসের গুদাম থেকে সিলিন্ডার তুলে আনছিলেন অনেকে। শুরু হয়ে গিয়েছিল সিলিন্ডার মজুত করা। এই পরিস্থিতিতে অন্য়দের আশঙ্কা ছিল, এইবাবে মজুত করা শুরু হলে তো কিছুদিনের মধ্য়েই রান্নার গ্য়াসের সংকট দেখা দেবে।

ইন্ডিয়ান অয়েল কর্পোরেশনের প্রেসিডেন্ট সঞ্জীব সিং একটি ভিডিয়ো মেসেজে গ্রাহকদের আশ্বাস দিয়ে জানিয়েছেন যে--  রান্নার গ্য়াসের কোনও অভাব নেই। শুধু গ্য়াসই নয়, সমস্ত পেট্রোলিয়ামজাত পণ্য়ই যথেষ্ট মজুত রয়েছে। তাই এলপিজি গ্রাহকরা নিশ্চিন্তে থাকতে পারেন। অযথা আতঙ্কিত হবেন না। প্রয়োজনের বেশি সিলিন্ডার বুক করবেন না।

তবে ইন্ডিয়ান অয়েলের এই  পদক্ষেপে অনেকেই খুশি। কেউ কেউ বলছেন-- এতে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বরং এতে করে এলপিজির জোগান ঠিকঠাক থাকবে। কিছু লোক যেভাবে চাল-ডাল, আলু-পেঁয়াজের মতো করে মজুত করছিলেন রান্নার গ্য়াস, তাতে এই ব্য়বস্থা না-নিলে অচিরেই সংকট দেখা দিত।