নাম তার রামসেবক দাস। সে নাকি সাধু। তারই কুকীর্তিতে লজ্জায় মুখ ঢাকল রামজন্মভূমি অযোধ্যা। পবিত্র ভূমিতেই এক আশ্রমে এক ১৪ বছরের নাবালককে ধর্ষণ করার চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে রামসেবক-এর বিরুদ্ধে। শুধু তাই নয়, আক্রান্ত কিশোর যৌন নির্যাতনে বাধা দিলে অভিযুক্ত সাধুবাবা তার যৌনাঙ্গ ছুরি দিয়ে কেটে ফেলার চেষ্টাও করেছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।

জানা গিয়েছে, ঘটনার দিন সরযু নদী থেকে জল আনতে গিয়েছিল আক্রান্ত কিশোর। সেইসময়ই তার সঙ্গে দেখা হয়েছিল রামসেববক দাস-এর। সেই ছেলেটির প্রলুব্ধ নিয়ে এসেছিল তার আশ্রমে। এরপরই ছেলেটির সঙ্গে পায়ু সঙ্গমের চেষ্টা করে সে। এই অপ্রাকৃত যৌনতায় স্বাভাবিকভাবেই বাধা দিয়েছিল ওই কিশোর। তাতে সাধুবাবা তার গোপনাঙ্গ উদ্দেশ্য করে ছুরি চালিয়েছিল বলে অভিযোগ।

গুরুতর আহত অবস্থায় ছেলেটি কোনও রকমে সাধুর খপ্পর থেকে নিজেকে মুক্ত করে ঘটনাস্থল থেকে পালায়। এরপর সে সোজা বাড়ি এসে তার অভিভাবকদের ওই ভয়ঙ্কর ঘটনা খুলে বলে। পরে তার বাড়ির লোকজনই পুলিশে যোগাযোগ করে ওই সাধুর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। স্থানীয় পুলিশ রামসেবক দাস-কে গ্রেফতার করেছে।

অযোধ্যায় কয়েকশো মঠ এবং আশ্রম রয়েছে যেখানে ছেলেদের সংস্কৃত ভাষা এবং ধর্মগ্রন্থ পড়ানো হয়। নির্যাতিত কিশোরটিও এরকমই এক আশ্রমে সংস্কৃত শেখে। ঘটনার পর থেকে সে প্রচন্ড ভয় পেয়ে গিয়েছে। আশ্রমে পড়াশোনা করতে যেতেও চাইছে না বলে জানা গিয়েছে।