শুক্রবার মুক্তি পেয়েছিলেন জম্মু ও কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী ৮৩ বছেরের ফারুক আব্দুল্লা। আজই তিনি দেখা করতে গিয়েছিলেন তাঁর জেল বন্দি ছেলে ওমর আব্দুল্লার সঙ্গে। তিনিও একটা সময় শাসন করেছেন উপত্যকা। বর্তমানে শ্রীনগেরর একটি জেলে বন্দি অবস্থায় রয়েছেন তিনি। উপত্যকায় সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিলের পর থেকেই পাব্লিক সেফটি আইন প্রয়োগ করে  জেলে পোরা হয়েছে ভূস্বর্গের প্রায়  বিজেপি বিরোধী প্রায় সবকটি রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বকে। সেই তালিকায় যেমন রয়েছেন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী মেহবুবা মুফতি। তেমনি রয়েছে ওমর। জেলে বন্দি অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে বেশ কয়েকজন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতাও। 

আরও পড়ুনঃ করোনাভাইরাসের কোপ মাউন্ট এভারেস্টেও , নেপালে কর্মহীন প্রায় ২০,০০০

আরও পড়ুনঃ মোদীর ডাকে সাড়া, করোনা মোকাবিলায় ভারতের সঙ্গে কথা বলতে রাজি পাকিস্তান

শুক্রবার নিজের মুক্তির পরই জম্মু কাশ্মীরের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রশাসনের কাছে জানতে চেয়েছিলেন,  তাঁর বন্দি ছেলের সঙ্গে তাঁকে দেখা করতে দেওয়া হবে কিনা। সেখান থেকেই অনুমতি আদায় করে আজ সকালেই দেখা করতে যান ওমর আব্দুল্লার সঙ্গে। সূত্রের খবর দেখা হওয়া মাত্রই দুজনে দুজনকে জড়িয়ে ধরেন। তার আগে ফারুক যান শ্রীনগরে তাঁর বাবা শেখ আব্দুল্লার সমাধিস্থলে। এদিন সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে ফারুক জানিয়েছেন, উপত্যকার মানুষের কাছে তিনি কৃতজ্ঞ। তাঁর মুক্তর জন্য যাঁরা প্রার্থনা করেছিলেন তাঁদেরও শুভেচ্ছা জানান তিনি। 

এদিন ভূস্বর্গের পোড়খাওয়ার রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব শুরু করে দেন তাঁর রাজনৈতিক কর্মসূচি। দেখা করেন কংগ্রেস নেতা গুলামনবি আজাদের সঙ্গে। সেখান থেকেই গুলামনবি আদাজ উপত্যকার নজরবন্দি নেতাদের মুক্তির দাবি জানান। পাশাপাশি দাবি জনান জম্মু ও কাশ্মীরের অবিলম্বে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে। গত ৫ আগস্ট জম্মু কাশ্মীরের ক্ষেত্রে সংবিধানের ৩৭০ অনুচ্ছেদ বাতিল করা হয়। তারপর থেকে প্রায় স্তব্ধ উপত্যকার জনজীবন।