সনিয়া গান্ধীকে চিঠি লেখেই কংগ্রেস ছাড়লেন অভিনেত্রী তথা রাতনীতিবিদ খুশবু সুন্দর। সোমবারই সকালে কিছুটা অপ্রত্যাশিত হলেও ধাক্কা খেল শতাব্দী প্রাচিন এই রাজনৈতিক দলটি। ২০১৪ সালে কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন তিনি। সেই সময় থেকেই দলের মুখপাত্রের দায়িত্ব সামলেছেন দক্ষিণী এই অভিনেত্রী। 

সনিয়া গান্ধীকে লেখা চিঠিতে খুশবু লিখেছেন দলের মধ্যে কিছু মানুষে রয়েছেন যাঁদের কোনও রাজনৈতিক ভিত্তি নেই। জনতাও তাঁদের স্বীকৃতি দেননি। তাঁরা হুমক দিচ্ছেন। আর তাতে তাঁর কাজ করতে খুব অসুবিধে হচ্ছে। পাশাপাশি তিনি আরও বলেছেন তিনি আন্তরিকভাবেই দলের কাজ করতে চেয়েছিলেন। কোনও রকম ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থ করতে তিনি রাজনীতিতে আসেননি বলেও জানিয়েছেন। কিন্তু  কিছু নেতৃত্বস্থানীয় মানুষ প্রতি পদে  তাঁর কাজে বাধা দিচ্ছেন। তাই কিছুটা বাধ্য হয়েই তিনি দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন। 

একটি সূত্র বলছে বিজেপির সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন খুশবু। সোমবারই যোগ দিতে পারেন পদ্মশিবিরে। আগামী বছরই তামিলনাড়ুতে বিধানসভা নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনে ভালো ফল করতে মরিয়া বিজেপি। সেই কারণে যেকোনও দলের সঙ্গেই গাঁটছড়া বাঁধতে চায় বলেও জানিয়ে দেওয়া হয়েছে পদ্ম শিবিরের পক্ষ থেকে। আর খুশবু যদি বিজেপির প্রার্থী হয় তাহলে কিছুটা হলেও ভোটবাক্সে বিজেপি লাভবান হবে বলেই মনে করেছেন স্থানীয় নেতৃত্ব। বিজেপির তামিলনাড়ু ইউনিটের পক্ষ থেকে জানান হয়েছে খুশবু তামিলনাড়ুতে বিজেপির ধারনা বদলে দিতে সক্ষম। এমনিতেই অভিনেত্রী হিসেবে জনপ্রিয় ছিলেন তিনি। পাশাপাশি ২০১৪ সাল থেকে কংগ্রেসের সঙ্গে থাকায় তাঁর রাজনৈতিক দক্ষতাও বৃদ্ধি পেয়েছে। পাশাপাশি জনগণের কাছে পৌঁছে যাওয়ার একটি সহজায়ত ক্ষমতা রয়েছে বলেও মনে করেছেন তামিল নেতৃত্ব। 

টানা ছ'বছর কংগ্রেসের মুখপাত্রের দায়িত্ব সামলেছেন তিনি। কিন্তু তামিলনাড়ুতে বিধানসভা ভোটের আগেই আচমকা তাঁর দল ছাড়ায় কিছুটা হলেও কংগ্রেস সমস্যায় পড়তে চেয়েছে বলেও মনে করছেন রাজনীতিক বিশেষজ্ঞরা। তবে কংগ্রেস বিষয়টি নিয়ে এখনও পর্যন্ত মুখ খোলেনি। দলের পক্ষ  থেকে বিষয়টি নিয়ে এখনও কোনও মন্তব্য করা হয়নি। তবে দলের সব পদ থেকেই তাঁকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।