অরুণাচল প্রদেশে জঙ্গিদের নিশানায় অসম রাইফেসের কনভয়। মায়ানমার সীমান্তবর্তী তিরাপ জেলায় টহল দেওয়ার জন্য জঙ্গিরা হামলা চালায়।  সেনা সূত্রে খবর ঘটনাস্থলেই অসম রাইফেলসের এক জওয়ানের মৃত্যু হয়েছে। তবে হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনও জঙ্গি সংগঠন। গোটা এলাকা ঘিরে রেখেই তল্লাশি চালাচ্ছে প্রশাসন। 


অরুণাচল প্রদেশের তিনটি জেলা, তিরাপ, লংডিং আর চাংলং, মায়ানমার সীমান্তের সঙ্গে সীমান্ত ভাগ করে নেয়। দীর্ঘ দিন ধরেই সেখানে সীমান্ত রক্ষায় দায়িত্ব রয়েছে সেনা বাহিনাীর হাতে। বেশ কিছুদিন আগে পর্যন্ত এই এলাকা বিশেষ সশস্ত্র আইন বা আসফার অধীনে ছিল। আর এই এলাকাগুলি অসম আর নাগাল্যান্ডের নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠনের একটি ট্রানজিট রুট হিসেবে পরিচিত। এখান দিয়েই পারাপার করে জঙ্গি দলের সদস্যরা।  এখান থেকে অপারেশও চালায় নিষিজ্ঞ সংগঠনগুলি। সেনা সূত্রের খবর স্থানীয় বেশ কয়েকটি নিষিদ্ধ সংগঠনের সদস্যরা বর্তমানে মায়ানমারে আস্তানা তৈরি করে রয়েছে। আর সেখান থেকেই ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর হামলা চালান হয়েছে। 

চলতি মাসের শুরুতে চাংলং জেলায় অসম রাইফেলসের ওপর হামলা চালান হয়েছিল।সেনা সূত্রের খবর গ্রেনেডের পাশাপাশি জঙ্গিদের হাতে রয়েছে বেশ কয়েকটি আধুনিক প্রযুক্তির অস্ত্র। সেগুলি দিয়েই হামলা চালান হয়েছিল।  তারপর এদিনও অসম রাইফেলসের কনভয় লক্ষ্য করে হামলা চালায় জঙ্গিরা। সেনা সূত্রের খবর সংলগ্ন এলাকায় জঙ্গিরা আবারও সক্রিয় হচ্ছে। তবে পাল্টা জঙ্গিদের প্রতিহতও করছে ভারত। গত ১১ জুলাই লংডিং০এর নাগা আন্ডারগ্রাউন্ড গ্রুপ এনএসসি এনএর সদস্য সন্দেহে কমপক্ষে ৬জনকে হত্যা করা হয়েছে।