ইদানিং তাঁকে বিজেপির কর্মসূচিতে বিশেষ দেখা যায় না। বয়সও হয়েছে, সেই সঙ্গে মোদী-শাহ'এর নেতৃত্বে বিজেপি যেভাবে তরতরিয়ে এগিয়ে চলেছে, তাঁকে অততটা দায়িত্বও নিতে হয় না। কিন্তু, ১৯৮৯ সালে লালকৃষ্ণ আদবানির নেতৃত্বেই অযোধ্য়ায় বাবরি মসজিদের জায়গায় রাম মন্দির গড়ার ডাক দিয়ে হয়েছিল বিজেপির রথযাত্রা। অবশেষে তার তিন দশক পর অযোধ্যার বিতর্কিত জমিতে রাম মন্দির গড়ার পক্ষেই রায় দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। আর এই রায় তাঁর কাছে একটা পূর্ণতার মুহূর্ত, বলে জানিয়েছেন বর্ষিয়ান এই বিজেপি নেতা।
 
এদিন অযোধ্যা রায়ের প্রতিক্রিয়ায় আদবানি জানিয়েছেন, অযোধ্যা মামলায় সুপ্রিম কোর্ট যে রায় দিয়েছে তাকে দেশবাসী স্বাগত জানিয়েছে। তাদের দলেই য়োগ দিয়ে তিনিও  পাঁচ সদস্যের সাংবিধানিক বেঞ্চের দেওয়া এই রায়কে সর্বান্তকরণে স্বাগত জানাচ্ছেন।

বর্ষিয়ান বিজেপি নেতা আরও বলেন, এটা তাঁর কাছে একটা পূর্ণতার মুহুর্ত। তাঁর মতে তিনি অযোধ্যায় রাম মন্দির গড়ার আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ঠিকই, কিন্তু তা আগে থেকেই একটি গণআন্দোলনে পরিণত হয়েছিল। আর স্বয়ং ঈশ্বরই তাঁকে এই গণআন্দোলনে তাঁর 'সামান্য' অবদান রাখার সুযোগ করে দিয়েছিলেন।

ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের পর রাম মন্দির আন্দোলনই ভারতের সর্ববৃহৎ গণআন্দোলন ছিল দাবি করে আদবানি আরও বলেন, তাঁরা যে লক্ষ্য নিয়ে আন্দোলন শুরু করেছিলেন তা এদিন আদালতের রায়ে পূরণ হয়েছে। তাই যে কাজ তিনি ১৯৮৯ সালে শুরু করেছিলেন তা এদিন যেন শেষ হল, এমন অনুভূতি হচ্ছে তাঁর।