বিহার বলতেই চোখের সামনে দারিদ্রে জর্জরিত এক রাজ্যের কথা মাথায় আসে। কিন্তু অবিশ্বাস্য হলেও সেই বিহারেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ১৫৩ জন কোটিপতি প্রার্থী। আর সবচেয়ে বিত্তবান যিনি, তিনি এক ট্রাক চালকের মেয়ে। পারিবারিক সম্পত্তি, ৮৯.৭৭ কোটি টাকার!

২৮ অক্টোবর, ৩ ও ১০ নভেম্বর - এই তিন দফায় ভোট হচ্ছে বিহারে। নির্বাচন কমিশনের কাছে জমা পড়া হলফনামা অনুযায়ী, প্রথম দফার নির্বাচনের মোট ১০৬৫ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। আর তার মধ্যে ১৫৩ জনই কোটিপতি, অর্থাৎ ব্যক্তিগত সম্পত্তি ১ কোটি টাকার উপর। মহাজোট অর্থাৎ আরজেডি, কংগ্রেস ও বামদলগুলির জোটের প্রার্থীদের ৫৮ শতাংশই কোটপতি। আর এনডিএ, অর্থাৎ বিজেপি, জেডিইউ, জোটের প্রার্থীদের মধ্যে কোটিপতির সংখ্যা ৬০ শতাংশ।

সবচেয়ে বিত্তবান যিনি তিনি আবার এক ট্রাক চালকের মেয়ে। আত্রি জেলার জেডিইউ প্রার্থী মনোরমা দেবী। তাঁর পারিবারিক সম্পত্তির মোট পরিমাণ প্রায় ৮৯ কোটি টাকা। এরমধ্যে তাঁর ব্যক্তিগত সম্পত্তির পরিমানই ৫৩.১৯ কোটি টাকা। এরমধ্যে অস্থাবর সম্পদ ২৬.১৮ কোটি টাকার এবং স্থাবর সম্পত্তি রয়েছে ২৭ কোটি টাকার। এছাড়া তিনি ঋণ নিয়েছেন ১.৬৯ কোটি টাকার।

মনোরমা দেবী

কোটিপতিদের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন ঔরঙ্গাবাদ জেলার কুটুম্বা আসনের কংগ্রেস প্রার্থী রাজেশ কুমার। তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৩৩.৬ কোটি টাকা। আর তৃতীয় স্থানে রয়েছেন ফের এক জেডি (ইউ) প্রার্থী। কুশল যাদবকে টিকিট দেওয়া হয়েছে নওয়াদা আসনে। স্থাবর ও অস্থাবর মিলিয়ে তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ ২৬.১৩ কোটি টাকা। আবার তাঁর বিপরীতে মহাজোটের প্রার্থী আরজেডির জেল বন্দি নেতা রাজবল্লভ প্রসাদ যাদবের স্ত্রী বিভা দেবীর সম্পত্তির পরিমাণ ২২.৪৭ কোটি টাকা। তিনি আছেন কোটিপতিদের তালিকার চতুর্থ স্থানে।

রাজবল্লভ প্রসাদ যাদব ও বিভা দেবী

আর বিহারের ভোটে দরিদ্রতম প্রার্থী হলেন এসইউসিআই (সি) এর নরেশ দাস। তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ মাত্র ৩,৫০০ টাকা বলে জানিয়েছেন তিনি। এই তালিকায় এরপরই রয়েছে জনতা পার্টির অনিল কুমার-এর নাম। তাঁর সম্পদ রয়েছে ৭,০০০ টাকার।