বিহারের পর এবার পশ্চিমবঙ্গ জয়ের জন্য মরিয়া প্রয়াস শুরু করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। আর ভোট লড়াইয়ের প্রস্তুতে যাতে কোনও রকম ফাঁস না থাকে সেইজন্য এখন থেকেই সবদিকে খেয়াল রাখছে বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব। আর সেই কারণেই পশ্চিম বঙ্গ রাজ্যবিজেপির সহকারি পর্যবেক্ষক হিসেবে নিয়োগ করা হয়েছে আইটি সেলের প্রধান অমিত মালব্যকে। নতুন দায়িত্বেকে যে অমিত মালব্য রীতিমত গুরুত্ব দিচ্ছেন তাও সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে স্পষ্ট করে দিয়েছেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় বার্তা দিয়ে অমিত মালব্য জানিয়েছেন বাংলা বিজেপির জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ এই রাজ্য। এই রাজ্যের সহকারী পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পেয়ে তিনি যথেষ্ট গর্বিত। জেপি নাড্ডা, নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহকে কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন অমিত মালব্য। পাশাপাশি তিনি বলেছেন তিনি তাঁরা সেরা দেওয়ার চেষ্টা করবেন। 


দায়িত্ব পাওয়ার পরপরই কলকাতা এসেছিলেন অমিত মালব্য়। আর কলকাতায় এসেই তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারকে পিসির সরকার বলে তোপ দেগেছেন। পাশাপাশি বলেছেন,  ২০২১ সালের নির্বাচনে বাংলার গৌরবময় অধ্যায় আবারও স্থাপিত হবে। পিসির সরকারের দূর্ণীতি, স্বজনপোষণ ও অরাজকতা দূর করতে বাংলার মানুষের ভোটে ২০০-এর বেশি আসনে জয় পাবে বিজেপি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের শাসন শেষ হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 


অমিত মালব্যর এই নিয়োগকে বিজেপি গুরুত্ব দিলেও তৃণমূল কংগ্রেস তেমন গুরুত্ব দিতে রাজি নয়। কারণ তৃণমূল নেতা সৌগত রায় বলেছেন, অমিত মালব্য বিজেপি কোনও নির্বাচিত প্রতিনিধি নন। তিনি তৃণমূল স্তরের কোনও কর্মীও নন। বাংলায় সোশ্যাল মিডিয়ায়কে ব্যবহার করে প্রচার বাড়ানোর জন্যই তাঁকে নিয়োগ করা হয়েছে। বিজেপি সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডল ভালো করে পর্যবেক্ষণ করবে তৃণমূল। নাম প্রকাশে অনিচ্ছিক এক বিজেপি নেতা বলেছেন, ২০১৯ -এর লোকসভা নির্বাচনে যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা গ্রহণ করেছিলেন অমিত মালব্য। তাঁর দেওয়া নির্দেশে মেনে চলায় বিজেপির আসন সংখ্যাও বেড়েছিল।  আর সেই কারণেই অমিল মালব্যর নিয়োগ শীর্ষ নেতৃত্বের যথেষ্ট সুচিন্তিত মননের পরিচয় বলেও জানিয়েছেন তিনি।