কানাডার প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী থেকে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী কেউই রেহাই পাননি করোনাভাইরাসের হাত থেকে। এমনকি ব্রিটেনের যুবরাজ চার্লসকেও কাবু করেছিল এই মারণ ভাইরাস। বিদেশে একাধিক নেতা, নেত্রী, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব সংক্রমণের শিকার হয়েছেন। ভারতেও একাধিক রাজনৈতিক দলের নেতার করোনা সংক্রমণের খবর পাওয়া গিয়েছে। তবে সেই দলে এতদিন ছিল না জাতীয় স্তরে কোনও হাইপ্রফাইল নেতৃত্ব। এবার হয়তো সেই অভাবও পূরণ হতে চলেছে। করোনা সংক্রমণের উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হলেন বিজেপির জাতীয় মুখপাত্র সম্বিত পাত্র।

জানা যাচ্ছে গুরুগ্রামের এক বেসরকারি হাসপাতালে বৃহস্পতিবার ভর্তি করা হয়েছে বিজেপির জাতীয় মুখপাত্রকে। তাঁর শরীরে করোনার স্পষ্ট উপসর্গ রয়েছে। যদিও বর্তমানে তাঁর অবস্থা স্থিতিশালী বলেই জানাচ্ছেন চিকিৎসকরা। তবে সম্বিত পাত্রের পরিবারের তরফে এখনও এই বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

বিজেপির সর্বভারতীয় নেতাদের মধ্যে সম্বিত পাত্র অত্যন্ত পরিচিত মুখ। সন্ধে হলেই জাতীয় স্তরের খবরের চ্যানেলগুলিতে আয়োজিত বিতর্কে প্রায়শই তাঁকে দেখতে পাওয়া যায়। পদ্ম শিবিরের বাগ্মি নেতা হিসাবে তাঁর যথেষ্ট জনপ্রিয়তা রয়েছে। এছাড়া সোশ্যাল মিডিয়াতেও যথেষ্ট জনপ্রিয়তা রয়েছে এই তরুণ বিজেপি নেতার।

বৃহস্পতিবারও গুরুগ্রামের মেদান্তা হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার আগে সম্বিত পাত্রকে নিজের ট্যুইটার অ্যাকউন্ট থেকে বিজেপির পক্ষে বেশকিছু পোস্ট করতে দেখা গিয়েছে। ট্যুইটারে  তাঁর ফলোয়ার সংখ্যা ৪৪ লক্ষের বেশি। 

গতবছর লোকসভা নির্বাচনে ওড়িশার পুরী কেন্দ্র থেকে বিজেপির হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন সম্বিত পাত্র। যদিও ৪৫ বছরের রাজনীতিক সম্বিত বিজেডি প্রার্থীর কাছে হেরে যান। সম্বিত নিজেও একজন চিকিৎসক। দীর্ঘদিন ধরেই বিজেপির সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন তিনি। 

দেশে করোনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে দেশের রাজধানী দিল্লি রয়েছে চতুর্থ স্থানে। সম্বিত পাত্রও দিল্লির বাসিন্দা। তবে তাঁর আগেই দিল্লিতে করোনায় আক্রান্ত হন আরও এক রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব। সম্প্রতি কোভিড ১৯-এ আক্রান্ত হয়েছেন দিল্লি কংগ্রেসের মুখপাত্র সঞ্জয় ঝা। নিজেই ট্যুইট করে সেকথা জানান কংগ্রেসের এই নেতা। আপাতত হোম আইসোলেশনে রয়েছেন তিনি।