সুপ্রিমকোর্টে তাৎক্ষণিক তিন তালাকের মামলাকারী কলকাতার ভারতীয় জনতা পার্টির সদস্য ইশরাত জাহানের বিরুদ্ধে উঠল হুমকীর অভিযোগ। জানা গিয়েছে গত মঙ্গলবার বাড়ির কাছেই একটি হনুমান চালিশা পাঠে অংশ নিয়েছিলেন তিনি। অভিযোগ এর পরেই হুমকির শিকার হন তিনি। 

একটি সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে তিনি জানিয়েছেন, বুধবার ছেলেকে সঙ্গে নিয়ে বাড়ি ফেরার সময়ে তাঁর বাড়ির সামনে কয়েকজন মানুষকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখেন তিনি। বাড়ি ঢুকতেই তাঁকে ঘেরাও করে চলে হেনস্থা। কেন তিনি হনুমান চালিশা পাঠে অংশ নিয়েছেন সেই নিয়েও ওঠে প্রশ্ন। তাঁর অভিযোগ, তাঁকে প্রাণনাশের হুমকীও দেয় তারা। আর সেই কারণেই পুলিশি নিরাপত্তার দাবি করছেন তিনি। 

 

ইশরাত আরও জানান যে, হেনস্থার মুখে পড়ে তিনি বলেন যে তিনি একজন ধর্মনিরপেক্ষ মানুষ। হিন্দুরা যদি নমাজ পাঠের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পেতে পারেন তাহলে তিনি কেন হনুমান চালিশা পাঠের অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারবেন না। তাঁর এই দাবির জন্যই তাঁকে আরও কোণঠাসা করা হয় বলে অভিযোগ। অভিযুক্তরা দাবি করে যে, হিজাব পরে কখনওই তিনি হনুমান চালিশার মতো অনুষ্ঠানে অংশ নিতে পারেন না। এমনকী তাঁকে বাড়ি থেকেও উৎখাত করা হবে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ইশরাতের স্বামী দুবাইতে কর্মরত, সেখান থেকেই ফোনে তিনি তালাক দেন ইশরাতকে। আর এই ঘটনার পরই তাৎক্ষণিক তিন তালাক নিয়ে সুপ্রিমকোর্টে মামলা করেছিলেন ইশরাত। গত বছর তিনি যোগ দেন বিজেপিতেও। তলবে হনুমান চালিশার অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া নিয়ে তাঁকে যেভাবে হেনস্থার শিকার হতে হয়েছে, তাতে ছেলেকে নিয়ে একা থাকতে কার্যত ভয় পাচ্ছেন ইশরাত। আর সেই কারণেই পুলিশের সাহায্য দাবি করছেন ইশরাত।