নথিভুক্ত গোশালাগুলিকে আর্থিক সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। আর সেই প্রকল্পে খরচ করা হবে প্রায় ৯০০ কোটি টাকা। শ্রী বিশ্বপ্রশন্ন তীর্থ স্বামীর লেখা একটি চিঠির উত্তর দিতে গিয়ে একথাই জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নির্মলা সীতারমন। গত অগাস্ট মাসে চিঠিটি লিখেছেন স্বামীজি। তখন করোনার মত মহামারি প্রতিহত করার জন্য দেশজুড়ে চলছে লকডাউন। সেই সময়ই কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীকে চিঠি লিখে তিনি গোশালাগুলির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ২০০ কোটি টাকা দাবি করেছিলেন। 

পরবর্তীকালে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে দেখা করে চিঠির কথা মনে করিয়ে দিয়েছিলেন বিশ্বপ্রশন্ন তীর্থ স্বামী। তারপরই তিনি জানিয়েছেন অর্থ মন্ত্রক সংশ্লিষ্ট মন্ত্রককে ৯০০ কোটি টাকা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। মূলত রক্ষণাবেক্ষণ, আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপনের কাজে এই টাকা খরচ করা হবে। কেন্দ্রীয় সরকার সূত্রের খবর রাজ্যসরকারগুলির মাধ্যমে এই টাকা নথিভুক্ত গোশালাগুলিরকে দেওয়া হবে। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর মন্ত্রক বিষয়টি নিয়ে রাজ্যগুলির সঙ্গে যোগাযোগ করেছে। গোশালাগুলিতে ৯০০ কোটি টাকা দেওয়া হবে। আর গোটা তহবিলের স্বচ্ছতা যাতে থাকে তারজন্যই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। নির্মলা সীতারমন আরও জানিয়েছেন, কেন্দ্রীয় সরকারের এই পদক্ষেপে খুশি হয়েছে তীর্থ স্বামীজি। 

আরও পড়ুনঃ জেএনইউ-এর বিতর্কিত বিবেকানন্দ মূর্তিতে আজ প্রধানমন্ত্রীর শিলমোহর, মূর্তি উদ্বোধনে মোদী .

আরও পড়ুনঃ সোমবার হতে পারে নীতিশ কুমারের শপথ, ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে সরকার গঠনের প্রস্তুতি .

স্বামীজি কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতিরমনকে উদুপি তাঁত সমবায়ের সদস্যদেরতৈরি দুটি শাড়ি উপহার দেন। এখানেই শেষ নয় তাঁর উপহারের তালিকাটি ছিল আরও লম্বা। তিনি দীপাবলির উপহার হিসেবে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে একটি রুপোর প্লেটে কৃষ্ণ মন্দিরের প্রদাসও দেন। কেন্দ্রীয় মন্ত্রীও তা গ্রহণ করেন। একই সঙ্গে দীর্ঘক্ষণ স্বামীজির সঙ্গে গোশালা উন্নয়ন নিয়ে আলোচনাও করেন। তাঁদের আলোচনার সময় উপস্থিত ছিলেন সমাজকর্মী বাসুদেব ভাট।