ভূস্বর্গে জমি কেনা ও বিক্রির করার নিয়ম অনেকটাই  শিথিল করল কেন্দ্র কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় সরকারের জারি করা বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে জম্মু ও কাশ্মীরের যে কোনও ভারতীয় জমি কিনতে পারবে। ৩৭০ ধারা বাতিলের পর এটাই ছিল কেন্দ্রীয়য় সরকারের সব থেকে বড় পদক্ষেপ। আগের জমি সংক্রান্ত সমস্ত বিধিগুলিতে অব্যাহতি দেওয়া হয়ে। আর এর ফলে যেকেউই অকৃষি জমি কিনতে পারবে। অন্যদিকে কৃষি জমি কেবলমাত্র কৃষি কাজে ব্যবহার করা যাবে এই শর্তে যেকোনও ভারতীয় নাগরিক জমি কিনতে পারবে। 

কেন্দ্রীয় সরকার ২৬ রাজ্যের আইন বদল করেছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে ভারতের নাগরিক হলেই জম্মু ও কাশ্মীর এবং লাদাখে জমি কিনতে পারবে। নতুন নিয়ম অনুযায়ী স্থায়ী নাগরিকর হওয়ার শর্ত বাদ দেওয়া হয়েছে। কারণ এতদিন পর্যন্ত নিয়ম ছিল জম্মু ও কাশ্মীরে জমি কিনতে গেলে সেখানকার স্থায়ী নাগরিক হতে হবে। পাশাপাশি বিবাহসূত্রে জমি পাওয়ার কোনও সম্ভাবনা ছিল না। ৩৭০ ধারার অধীনে এই নীতি কার্যকর ছিল। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের নতুন নিয়মটি খুব তাড়াতাড়ি কার্যকর করা হবে। মঙ্গলবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক  জন্য জে অ্যান্ড কে পুনর্গঠনের তৃতীয় আদেশ ২০২০-র অধীনে জম্মু ও কাশ্মীরের জন্য আরও ১১টি আইন বাতিল করেছে। সেগুলি হল জম্মু ও কাশ্মীর ভূমি আইন, জম্মু ও কাশ্মীর বিগ ল্যান্ডেড এস্টেট বিলুপ্তি আইন, জম্মু ও কাশ্মীর সাধারণ জমি আইন ১৯৫৬। আর নতুন আইন লাগু হওয়ায় এখন জমি কেনার জন্য  জম্মু ও কাশ্মীরের  আবাসিক বা স্থায়ী আবাসিকের কোনও শাংসাপত্রের কোনও প্রয়োজন নেই। 


উপত্যকার বিরোধী রাজনৈনিক দলগুলি কেন্দ্রীয় সরকারের এই সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা করেছে। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী তথা ন্যানাশান কনফারেন্স নেতা ওমর আব্দুল্লাহ বলেছেন জম্মু ও কাশ্মীরকে বিক্রি করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। আর এর ফলে ছোট জমির মালিকরা রীতিমত ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।  এই ঘটনার সমালোচনা করেছেন আপনি পার্টির সদস্যরাও।