পরিকল্পনা অনুযায়ীই চাঁদের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে চন্দ্রযান ২। বুধবর ভোররাত ২.২১ মিনিটে পৃথিবীর কক্ষপথ ছেড়ে চাঁদের দিকে রাওনা দিল সে। 

ইসরোর তরফে জানানো হয়েছে, পরিকল্পনা অনুযায়ীই এগোচ্ছে চন্দ্রযান ২। মঙ্গলবার রাতের ট্রান্স লুনার ইনসারশন সফল হওয়ার পরে আগামী সাত দিনে চাঁদের আরও কাছাকাছি পৌঁছবে চন্দ্রযান ২। এই সাতদিনে পৃথিবী থেকে চাঁদের মধ্যে ৩ লক্ষ ৮৪ হাজার কিলোমিটার পথ অতিক্রম করবে চন্দ্রযান ২। ২০ অগাস্ট চাঁদের কক্ষপথে প্রবেশ করবে সে। এর পর থেকে ঘন ঘন কক্ষপথ বদল করে চাঁদকে প্রদক্ষিণ করতে শুরু করবে চন্দ্রযান ২। ইসরোর বিজ্ঞানীদের আশা, আগামী ৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের মাটি ছোঁবে চন্দ্রযান ২। তবে চাঁদে সফট ল্যান্ডিং করার আগে পনেরো মিনিটের জটিল প্রক্রিয়া সফলভাবে সম্পন্ন করাই ইসরোর বিজ্ঞানীদের কাছে সবথেকে কঠিন চ্যালেঞ্জ। 

আরও পড়ুন- চন্দ্রযান ২ থেকে তোলা পৃথিবীর ছবি প্রকাশ করল ইসরো, ঠিক কেমন দেখতে নীল গ্রহ

আরও পড়ুন- চন্দ্রযান ২ থেকে তোলা পৃথিবীর ছবি প্রকাশ করল ইসরো, ঠিক কেমন দেখতে নীল গ্রহ

চাঁদে সফট ল্যান্ডিং করার কথা চন্দ্রযান ২-এর। তা সফলভাবে করতে পারলে বিশ্বের চতুর্থ দেশ হিসেবে সেই কৃতিত্ব অর্জন করবে ভারত।  এর আগে রাশিয়া, আমেরিকা এবং চিনের এই কৃতিত্ব রয়েছে। 

চাঁদের সফট ল্যান্ডিং করার কয়েকঘণ্টার চার ঘণ্টার মধ্যে চন্দ্রযান ২-এর মধ্যে থাকা ল্যান্ডার বিক্রমের থেকে বেরিয়ে আসবে রোভার প্রজ্ঞান। এই প্রজ্ঞানের আয়ু চোদ্দ দিন। চাঁদের মাটি থেকে পাঁচশো মিটার উপরে উঠে ছবি তুলে তার বিশ্লেষণ করতে শুরু করবে প্রজ্ঞান। এর পর চাঁদের মাটি থেকে পাওয়া সেই সমস্ত তথ্য এবং ছবি বিক্রমের মাধ্যমে পনেরো মিনিটের মধ্যে ইসরোর বিজ্ঞানীদের হাতে চলে আসবে। 

বিক্রম এবং প্রজ্ঞানের আয়ু একটি চন্দ্র দিন বা পৃথিবীর হিসেবে চোদ্দ দিন হলেও একবছর ধরে চাঁদকে প্রদক্ষিণ করবে চন্দ্রযানের সঙ্গে থাকা মহাকাশযান। মূলত চাঁদের বিভিন্ন অংশের ছবি তুলে জলের অস্তিত্ব খুঁজে বের করার চেষ্টা করবে সে। 

এ দিকে চন্দ্রযান ২-কে রওনা করে দেওয়ার পর থেকেই তার সমস্ত কাজকর্ম স্বাভাবিকভাবে হচ্ছে কি না, সেদিকে প্রতি মুহূর্তে নজর রাখছেন ইসরোর প্রযুক্তিবিদরা। এখনও পর্যন্ত চন্দ্রযান ২-এ কোনও সমস্যা দেখা দেয়নি বলেই ইসরোর তরফে জানানো হয়েছে।