সোমবার দুপুর ২.৪৩ মিনিটে সফল উৎক্ষেপণ সম্পন্ন হয়েছে চন্দ্রযান-২-এর। প্রথমবার সমস্তরকম পরিকল্পনা করেও উৎক্ষেপণ ব্যর্থ হওয়ার কারণে কার্যত হতাশ হয়ে পড়েছিল গোটা দেশবাসী। অবশেষে চন্দ্রযান ২-এর সফল উৎক্ষেপণের পর কার্যত গর্বিত সকল ভারতবাসী। ইসরোর এই সাফল্যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর পাশাপাশি সারা দেশের প্রতিটি মানুষও এদিন শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়েছেন। পাশাপাশি শুভেচ্ছা জানিয়েছে  চেন্নাইয়ের জলসরবরাহ দফতর।

এদিন টুইট করে চন্দ্রযান-২-এর সফল উৎক্ষেপনের পর ইসরোকে শুভেচ্ছাবার্তা জানাতে গিয়ে একটি উল্লেখযোগ্য বিষয়কে তুলে ধরা হয়েছে চেন্নাইয়ের জল সরবরাহ এবং সেচ বিভাগের তরফে। এক প্রকার মজার ছলেই সেই টুইটে বলা হয়েছে, আমরা পানীয় জলের নতুন উৎসের সন্ধান পাওয়ার চেষ্টা করছি। যদি আপনারা চাঁদে জলের সন্ধান পান তাহলে অবশ্যই সবার প্রথমে কাকে জানাতে হবে সেটা নিশ্চয় আপনারা বুঝতে পারছেন। বিজ্ঞান আপনাদের সহায় হোক।

প্রসঙ্গত একদিকে বিহার ও অসম যখন বন্যার কবলে তেমনই অন্যদিকে তীব্র জলসঙ্কটের মধ্যে দিয়ে দিন কাটাচ্ছিলেন চেন্নাইবাসী। সেখানে সাধারণ এক লিটার জল বিকোচ্ছে ৩০০-৪০০ টাকায়। কোথাও কোথাও আবার টাকা দিয়েও মিলছে না জল। জলের অভাবে কার্যত স্তব্ধ চেন্নাইয়ের জনজীবন। চেন্নাইয়ের এই বিপদের দিনে পাশে দাঁড়িয়েছিল তামিলনাড়ু সরকার। একটি বিশেষ ট্রেনে চেন্নাইতে জল সরবরাহ করেছিল তাঁরা। কিন্তু জলকষ্টের কারণেই কিন্তু চেন্নাইতে বন্ধ রাখা হয়েছিল স্কুল-কলেজ এবং অফিস-ও। বেশকিছু সংস্থার তরফ থেকে কর্মচারীদের বাড়ি থেকেই কাজের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। আর এই পরিস্থিতিতে মজা করে হলেও একবিন্দু জলের কদর এই মুহূর্তে চেন্নাইতে যে কতখানি তা এই টুইট থেকেই প্রমাণিত।