গত কয়েকদিন ধরেই বালাকোট বিমান হামলা প্রসঙ্গে আলোচনার কেন্দ্রে রিপাবলিক টিভির সাংবাদিক অর্ণব গোস্বামী। অভিযোগ উঠেছে হামলার বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই এই হামলার বিষয়ে খবর ছিল তাঁর কাছে। এই নিয়ে বুধবার সুর চড়াল জাতীয় কংগ্রেস। বুধবার বিশিষ্ট কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এ কে অ্যান্টনি বলেছেন, কোনও সামরিক অভিযানের বিষয়ে সরকারী গোপনীয় তথ্য ফাঁস করা বিশ্বাসঘাতকতা এবং এর সঙ্গে জড়িতদের অবশ্যই শাস্তি দিতে হবে।

এদিন এক সাংবাদিক সম্মেলন করে এ কে অ্যান্টনি বলেন, কেন্দ্রীয় সরকারের অবিলম্বে বিষয়টি তদন্তের নির্দেশ দেওয়া উচিত। মঙ্গলবার কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও বিষয়টি উত্থাপন করে বলেছিলেন, প্রধানমন্ত্রী, প্রতিরক্ষা মন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, বায়ুসেনা প্রধান এবং জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা - এই পাঁচ জনের কাছেই এই গোপন তথ্য থাকা সম্ভব। সেই তথ্য প্রদান সাংবাদিককে দেওয়াটা অপরাধ। সেই তথ্য যে দিয়েছে এবং যে তা গ্রহণ করেছে, দুইজনকেই কারাবন্দি করা উচিত বলে মন্তব্য করেছিলেন তিনি। তবে এই বিষয়ে কোনও তদন্ত হবে না বলেও জানান তিনি, কারণ শেষ পর্যন্ত হয়তো দেখা যাবে এর পিছনে প্রধানমন্ত্রীর হাত রয়েছে, বলে অভিযোগ করেন তিনি।

রিপাবলিক টিভির সাংবাদিক অর্ণব গোস্বামী

বস্তুত, দিন কয়েক আগে ভারতে টিভি রেটিং নির্ধারণকারী সংস্থা বার্ক-এর এক প্রাক্তন উচ্চপদস্থ আধিকারিক-এর সঙ্গে রিপাবলিক টিভির অর্ণব গোস্বামীর একটি হোয়াটসঅ্যাপ কথোপকথন সোশ্যাল মিডিয়ায় ফাঁস হয়ে গিয়েছিল। সেই কথোপকথন থেকে দেখা গিয়েছে, বালাকোট হামলা হওয়ার আগেই সেই বিষয়ে ওই আধিকারিক-একর সঙ্গে কথা বলেছেন অর্ণব। তার থেকেই অনেকে অভিযোগ করছেন, এই সাংবাদিককে ওই হামলা সম্পর্কে আগেই জানানো হয়েছিল। তবে ওই ফাঁস হওয়া হোয়াটসঅ্যাপ বার্তালাপ আদৌ সত্যি কি না, সেই সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।