করোনাভাইরাস ইতিবাচক হিসাবে সনাক্ত হলেন কংগ্রেস নেত্রী তথা শিলচরের প্রাক্তন সাংসদ সুস্মিতা দেব। তবে জানা গিয়েছে তাঁর শরীরে এখনও পর্যন্ত করোনার কোনও উপসর্গ দেখা যাচ্ছে না। এর আগে সঞ্জয় ঝা এবং অভিষেক মনু সিংভি - কংগ্রেসের আরও দুই বড় নেতা কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছিলেন। তৃতীয় কংগ্রেস নেতা হিসাবে এই তালিকাভুক্ত হলেন সুস্মিতা দেব।

এদিন নিজেই টুইট করে তাঁর করোনা সংক্রমণের খবর দেন সুস্মিতা। তিনি জানিয়েছেন অসমের কাছারে অবস্থিত শিলচর মেডিক্যাল কলেজের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগে স্বাক্ষরিত প্রতিবেদন অনুযায়ী তাঁর কোভিড-১৯ পরীক্ষার ফল ইতিবাচক এসেছে। তবে তিনি উপসর্গহীন বা অ্য়াসিম্পটমেটিক। যাঁরা তাঁর স্বাস্থ্যের বিষয়ে উদ্বিগ্ন, ফোন করে খবরাখবর নিয়েছেন, তাঁদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন মহিলা কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভানেত্রী।

তবে অসমে কোভিড পরীক্ষা কতটা সুষ্ঠুভাবে হচ্ছে তাই নিয়ে প্রশ্ন উঠে গিয়েছে। সুস্মিতা দেব-এর ক্ষেত্রেই পরীক্ষার রিপোর্ট নিয়ে ধন্দ তৈরি হয়েছে। গত মঙ্গলবারই তিনি কোভিড পরীক্ষার জন্য লালারসের নমুনা দিয়েছিলেন। অভিযোগ বুধবার সকালে শিলচর মেডিক্যাল কলেজ থেকে প্রথমে সেই পরীক্ষার ফল নেতিবাচক বলে জানানো হয়েছিল। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পরই ফোন করে বলা হয় আগের পরীক্ষার ফল নিশ্চিত নয় বলে ফের তাঁর নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এরপর বিকালে, জেলাশাসকের কার্যালয় থেকে কংগ্রেস নেত্রীকে ফোন করে জানানো হয় তিনি কোভিড আক্রান্ত। রিপোর্ট দু-বার দু-রকম কীভাবে এল তাই  নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ক্ষুব্ধ সুস্মিতা দেব।

তবে শুধু তিনিই নন, অসমে অনেকেই এই পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ। আর পরীক্ষার ফলাফল নিয়ে এই বিভ্রান্তির কারণে, অনেকেরই শুশ্রুসা শুরু হতে হতে অনেক দেরি হয়ে যাচ্ছে।