জওহরলাল নেহরু ইউনিভারসিটিতে ছাত্র, শিক্ষকদের ওপর হামলা নিয়ে সরব হয়েছে সোশ্য়াল মিডিয়া। জেএনইউ-এর গেটের সামনে দিল্লি পুলিশের উপস্থিতি থাকা সত্ত্বেও কীভাবে হামলা হল , তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। হামলার পিছনে অখিল ভারতীয় বিদ্যার্থী পরিষদ রয়েছে বলে অভিযোগ করেছে ছাত্র ছাত্রীরা। সোশ্য়াল মিডিয়ায় গেরুয়া ব্রিগেডকে কাঠগড়ায় তুলেছে বাম, কংগ্রেস।

मोदी जी और अमित शाह जी की आख़िर देश के युवाओं और छात्रों से क्या दुश्मनी है?

कभी फ़ीस वृधि के नाम पर युवाओं की पिटाई, कभी सविंधान पर हमले का विरोध हो तो छात्रों की पिटाई।

आज जवाहर लाल नेहरू में हिंसा का नंगा नाच हो रहा है और वो भी सरकारी संरक्षण में!

हमारा वक्तव्य- pic.twitter.com/igv9ALaI9K

— Randeep Singh Surjewala (@rssurjewala) January 5, 2020  

 

কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সিং সুরজেওয়ালা  বলেন, জেএনইউ-তে মহিলাদের সবরমতী, কাবেরী ও পেরিয়ার হোস্টেলে ঢুকে গুন্ডারা নগ্ন নাচ করে বেড়াচ্ছে। শিক্ষকদের পিটানো হচ্ছে।  ছাত্র ছাত্রীরা রক্তাক্ত হচ্ছে। দিল্লি পুলিশ নীরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। মোদী , অমিত শাহের  সঙ্গে জেএনইউ -এর যে শত্রুতার সম্পর্ক তা এখন সবাই জানে। কখনও ফি বৃদ্ধির প্রতিবাদে জেএনইউ-এর ছাত্রদের হামলা করা হয়। কখনও তারা সংবিধান বাঁচানোর জন্য রাস্তায় নামলে তাদের মারা হয়। মোদী অমিত শাহকে হুঁশিয়ারি দিয়ে সুরজেওয়ালা বলেন,দেশের যুব প্রজন্মের সঙ্গে এরকম ব্যবহার করলে আগামী দিনে আপনাদের যুব প্রজন্মই উচিত শিক্ষা দেবে। 

Gates closed ; Cops / media outside outside main gates ; Slogans being raised outside ... Inside #JNU ... This ... Horrible !!! pic.twitter.com/kfMZHH8pOz

— Supriya Bhardwaj (@Supriya23bh) January 5, 2020
   
রবিবার ফি বৃদ্ধির বিরোধিতায় জওহরলাল নেহরু বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রছাত্রীদের বিক্ষোভ চলাকালীন এবিভিপি-র বিরুদ্ধে হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে। হামলায় মাথা ফেটেছে ছাত্র সংসদের সভানেত্রী ঐশী ঘোষের। এছাড়াও হামলা আক্রান্ত হয়েছেন আরও অনেক ছাত্রছাত্রী। অভিযোগ, এ দিন সন্ধ্যার পর আচমকাই জেএনইউ ক্যাম্পাসের মধ্যে ঢুকে লাঠি, ব্যাট নিয়ে হামলা চালায় বহিরাগতরা।

হামলাকারীদের মুখ ঢাকা ছিল বলেও অভিযোগ। হামলা চালানোর পর বহিরাগতরা ক্যাম্পাস ছেড়ে নিশ্চিন্তে বেরিয়ে যায় বলেও অভিযোগ। হামলা চলার সময়কার বেশ কিছু ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে মুখে কাপড় বেঁধে হাতে লাঠি নিয়ে জেএনইউ ক্যাম্পাসের হোস্টেলের মধ্যে আলো নিভিয়ে রীতিমতো তাণ্ডব চালাচ্ছে কয়েকজন। সোশ্য়াল মিডিয়ায় ছড়িয়ে গেছে সেই ভিডিয়ো।