দেশে যখন করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৯ লক্ষ ছাড়িয়ে গেছে তখনই আশার আলো দেখালেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। আর মাত্র কয়েক মাসের অপেক্ষা। তারপরেই করোনাআভইরাসের প্রতিষেধক হাতে পাওয়ার বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন। দ্যা শিফটিং হেলথ কেয়াল প্যারাডিজম ইন অ্যান্ট পোস্ট কোভিড- শীর্ষক এরটি আলোচনা সভায় এমনই মন্তব্য করেছেন তিনি। তিনি বসেছেন আগামি তিন থেকে চার মাসের মধ্যে করোনাভাইরাসের প্রতিষেধক প্রস্তুত হয়ে যাবে। বৈজ্ঞানিক তথ্যের ওপর ভিত্তি করে প্রতিষক বিলি করা হবে।

কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রীর কথায় প্রথম পর্বে প্রতিষেধ দেওয়া হবে করোনা যোদ্ধা ও বয়স্কদের মধ্যে। করোনা যোদ্ধার তালিকায় রয়েছে চিকিৎসক নার্সসহ জরুরি পরিষেবার সঙ্গে যুক্ত ব্যক্তিরা। কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী আরও জানিয়েছেন প্রতিষেধক বিলির জন্য জরুরি ভিত্তিকে কাজকর্ম চলছে। প্রতিষেধক বন্টনের জন্য তৈরি হয়েছে নীল নক্সা। বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি কমিটিও ইতিমধ্যে তৈরি হয়েছে। ২০২১ সালের মধ্যে সমস্ত পরিস্থিতি সামাল দেওয়া যাবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেছেন। তিনি বসেছেন আশা করা হচ্ছে ২০২১ সাল আমাদের সকলের পক্ষে ভালো হবে। 

কেন্দ্রীয় সরকার ২০২১ সালেক জুলাই - অগাস্টের মধ্যে ২৫-৩০ কোটি মানুষের জন্য করোনার প্রতিষেধকের ৪০০-৫০০ মিলিয়ন ডোস সরবরাহ করতে পারবে। প্রতিষেধক আসার পরে তা বন্টনের ওপরেই সবথেকে বেশি জোর দেওয়া হবে। তিনি বলেন প্রতিষধক বিতরণই অগ্রাধিকার পাবে কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে। পাশাপাশি সংক্রমণ রোখার জন্য মাস্কের ব্যবহার, বারবার হাত ধোয়া ও নিরাপদ শারীরিক দূরত্বের বজার রাখার ওপর জোর দিয়েছেন তিনি।