আদালতে তার বিচার চলছে। করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল ইতিবাচক আসায় তাঁকে ভর্তি করা হয়েছিল হরিয়ানার জিন্দের একটি হাসপাতালে। কিন্তু মঙ্গলবার রাতে এক অদ্ভূত কায়দায় হাসপপাতাল কর্তৃপক্ষের চোখে ঝূলো দিয়ে সেই করোনা পজিটিভ পালিয়েছিল। তবে কয়েক ঘন্টা পরই তাকে ফের গ্রেফতার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে পুলিশ। বুধবার এমনটাই জানিয়েছেন হরিয়ানার এক পুলিশ আধিকারিক।

হরিয়ানার ডেপুটি পুলিশ সুপার কাপ্তান সিং জানিয়েছেন ওই ব্যক্তির নাম শিব কুমার। অন্য মামলায় গ্রেফতার হয়ে সে জেলে হেফাজতে ছিল। গত ৬ জুন জানা গিয়েছিল সে কোভিড-১৯ পজিটিভ। আদালতের নির্দেশে তাকে দুই দিন আগেই জামিনে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল। কোভিড-১৯ ইতিবাচক বলে তাকে জিন্দ সিভিল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

দুদিন চুপচাপ থাকলেও মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সে হাসপাতালের জানালার দিয়ে পালায়। তার পরণে ছিল পিপিপি অর্থাৎ ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম। সংক্রমণ এড়াতে যে বিশেষ পোশাক পরে ডাক্তার ও অন্যান্য চিকিৎসা কর্মী এবং অন্যান্য পরিষেবা কর্মীরা কাজ করে থাকেন, সেই পিপিপি পরে বের হওয়াতে হাসপাতালের গেটে নিরাপত্তারক্ষীরাও তাকে আটকাননি। একটি সিসিটিভি ফুটেজে পুলিশ দেখেছিল শিব কুমার একটি পিপিই কিট পরে পালাচ্ছেন।

তারপর সন্ধান চালিয়ে গভীর রাতে তাকে ফের গ্রেফতার করে পুলিশ। তার বিরুদ্ধে বিপর্যয় মোকাবিলা আইন ও ভারতীয় দণ্ডবিধির কয়েকটি ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে সে কীভাবে ওই পিপিপি কিট-এর নাগাল পেল, সেটি ব্যবহৃত না অব্যবহৃত, সে নিজে ব্যবহার করার পর পিপিপি-টির কী করেছে, সেই বিষয়গুলি পুলিশের পক্ষ থেকে স্পষ্ট করে জানানো হয়নি। এই নিয়ে হরিয়ানার জিন্দা শহরে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির আতঙ্ক তৈরি হয়েছে।