ঘূর্ণীঝড় তাউতের বিপর্যয় এখনও কাটিয়ে উঠতে পারেনি মহারাষ্ট্রষ রাজ্যের দুটি জেলা রত্নগিরি ও সিন্ধুদুর্গ-এখনও পর্যন্ত বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন অবস্থায় রয়েছে। সোমবার বিকেলে মহারাষ্ট্রের কোঙ্কন উপকূলের কাছদিয়ে বয়ে গিয়েছিল ঘূর্ণীঝড় তাউতে। রাতে দিউ ও উনার মধ্যবর্তী গুজরাটের  সৌরাশত উপকূলে স্থলভাগে আছড়ে পড়ে।  কিন্তু তার আগে থেকে প্রবল জড়ে লন্ডভন্ড হয়ে যায় মহারাষ্ট্রের বিস্তীর্ণ এলাকা।

মহারাষ্ট্র প্রশাসন সূত্রের খবর দুটি  জেলার ৩ হাজার ৬৬৫টি গ্রামের প্রায় ৫২ শতাংশ গ্রাহকের বিদ্যুৎ সংযোগ পুণরায় চালু করা হয়েছে। বাকি অংশের কাজ চলছে। মহারাষ্ট্রের জ্বালানী মন্ত্রী নিতিন রাউন বলেছেন ১৩ হাজার ৩৮৯ জন কর্মী তৎপরতার সঙ্গে কাজ করছেন। স্থানীয় প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী রত্নগিরি, সিন্ধুদুর্গ, রায়গড়, থানে ও পালঘর জেলার ১৩ হাজারেও বেশি মানুষকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। 

গতকাল মহারাষ্ট্রের উপর দিয়ে বয়ে গেছে ঘূর্ণী ঝড় তাউতে। ঝড়ের দাপটে প্রায় স্তব্ধ গয়ে গিয়েছিল বাণিজ্য নগরি। বন্ধ করে দেওয়া হয়েছিল উড়ান পরিষেবা। আবহাওয়া দফতর জানিয়েছ মুম্বইয়ের ওপর দিয়ে প্রায় ১১৪ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া  বয়েছে। প্রবল জলোচ্ছাসও হয় আরব সাগরে। আরব সাগরে আটকে পড়া দুটি বার্জ থেকে শতাধিক মানুষকে উদ্ধার করে ভারতীয় নৌবাহিনী।  আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে ভয়ঙ্কর এই ঘূর্ণী ঝড় মাঝরাতে শক্তি হারিয়েছে। কিন্তু তারপরেও প্রবল বৃষ্টি হয়েছে মহারাষ্ট্র, গুজরাতের উপকূলবর্তী জেলাহগুলিতে।