গত রবিবার মৌজপুর-জাফররাবাদ'এ সিএএ সমর্থক ও বিরোধীদের একটি সংঘর্ষ। সেখান থেকেই পরের চারদিনে হিংসার আগুনে পুড়েছে উত্তর-পূর্ব দিল্লি। সেই হিংসায় লেগেছে মৃত্যুর মিছিল। গত বৃহস্পতিবার রাত থেকে থিতিয়ে যায় হিংসা। তারপর আরও মাঝখানে আরও দুদিন কেটে গেলেও, রবিবারও আরও দুটি দেহ উদ্ধার হল উত্তরপূর্ব দিল্লির গোকুলপুরির এক খাল থেকে।

বৃহস্পতিবার পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে এলে তারপর থেকে পুনর্গঠনের কাজ শুরু হয়েছে। রাস্তায় যে ধ্বংসাবশেষের স্তূপ পড়ে আছে তা সাফাই করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে পুলিশ এখনও বিভিন্ন থেকে খালে নালায় আরও দেহ পড়ে আছে কিনা তার সন্ধান চালাচ্ছে। এদিন সকালেই গোকুলপুরি অঞ্চলের একটি নালা থেকে একটি দেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। তারপর বিকেলের দিকে আরও একটি দেহ উদ্ধার হয় একই খাল থেকে। ফলে সবমিলিয়ে এখনও পর্যন্ত দিল্লি কাণ্ডে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৪২।

উল্লেখ্য উত্তরপূর্ব দিল্লির চাঁদবাগ এলাকার এই নালাটি থেকেই গোয়েন্দা (আইবি) অফিসার অঙ্কিত শর্মা-র মরদেহও উদ্ধার করা হয়েছিল। হিংসার সময়, গত মঙ্গলবার রাতে বারবার নৃশংসভাবে ছুরিকাঘাত করার পরে অঙ্কিত শর্মার মরদেহটি ওই নালায় ফেলে দেওয়া হয়েছিল। এর একদিন পর তদন্তকারী দল ওই নালা থেকে থেকে আরও দুটি লাশ উদ্ধার করেছিল। এদিন আরও দুটি লাশ উদ্ধার হওয়ার শুধুমাত্র এই নালাটি থেকেই এখন পর্যন্ত মোট ৫ টি মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে।

এদিন যে দেহগুলি মিলেছে, তাদের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। সেইসঙ্গে এদিন উদ্ধার হওয়া দেহগুলি ওই চারদিনের হিংসারই বলি কিনা সেই বিষয়টিও স্পষ্ট নয়। এই নিয়ে তদন্ত চালানো হচ্ছে। এদিনও হিংসা বিধ্বস্ত এলাকাগুলিতে বিশাল পুলিশবাহিনী মোতায়েন রয়েছে। সেইসঙ্গে ফরেনসিক দলের সদস্যরা বিভিন্ন জায়গায় ঘুরে ঘুরে নমুনা সংগ্রহ করেন।